Monday, June 17, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

এক বছরে দুই লাখ বিদেশিকে নাগরিকত্ব দিয়েছে জার্মানি

জার্মান পাসপোর্ট পাওয়ার তালিকায় শীর্ষে রয়েছে সিরিয়া, তুরস্ক, ইরাক, রোমানিয়া এবং আফগানিস্তানের নাগরিকরা

আপডেট : ২৯ মে ২০২৪, ১০:২৫ পিএম

২০২৩ সালে ১৫৭টি দেশের দুই লাখ ১০০ বিদেশিকে দেওয়া হয়েছে জার্মানির নাগরিকত্ব। সংখ্যাটি তার আগের বছরের তুলনায় অন্তত ১৯% বেশি।

মঙ্গলবার (২৮ মে) দেশটির কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান দপ্তর জানিয়েছে, ২০০০ সালের পর রেকর্ড সংখ্যক বিদেশি জার্মানির নাগরিকত্ব পেয়েছেন।

জার্মান পাসপোর্ট পাওয়ার তালিকায় শীর্ষে রয়েছে সিরিয়া, তুরস্ক, ইরাক, রোমানিয়া এবং আফগানিস্তানের নাগরিকরা। সর্বোচ্চ সংখ্যক ৭৫,৫০০ সিরিয়ার নাগরিক গত বছর জার্মান পাসপোর্ট পেয়েছেন। গড়ে ছয় বছর নয় মাস ধরে জার্মানিতে ছিলেন তারা। এদের মধ্যে ৬৪% পুরুষ।

২০১৪ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে অসংখ্য মানুষ সিরিয়ার গৃহযুদ্ধ থেকে পালিয়ে জার্মানিতে আশ্রয় নিয়েছিলেন। এ কারণেই নাগরিকত্ব অর্জনের তালিকায় তারা এগিয়ে রয়েছেন বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

দ্বিতীয় অবস্থানে আছে তুরস্ক ও ইরাকের নাম। গত বছর এ দুটি দেশ থেকে ১০,৭০০ জন করে জার্মানির পাসপোর্ট পেয়েছেন। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, নাগরিকত্ব অর্জনের ক্ষেত্রে ইরাকিদের সংখ্যা আগের চেয়ে ৫৭% বেড়েছে। আর তুরস্কের ক্ষেত্রে তা ২৫% কমেছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের শেঙেন জোনে সম্প্রতি আংশিক অন্তর্ভুক্তি পাওয়া রোমানিয়ার ৭,৬০০ নাগরিক ২০২৩ সালে জার্মান পাসপোর্ট পেয়েছেন। আগের চেয়ে তাদের সংখ্যা বেড়েছে ৮%। আর আফগানদের নাগরিকত্ব অর্জনের হার ৫৫% বেড়েছে৷ আফগানিস্তান থেকে আসা ৬৫০০ অভিবাসী গত বছর জার্মানির নাগরিকত্ব পেয়েছেন।

কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান অফিসের তথ্য অনুযায়ী, ২০২৩ সালে জার্মান নাগরিকত্ব পাওয়া ব্যক্তিদের গড় বয়স ২৯.৩ বছর। জার্মানির নতুন নাগরিকরা দেশটির মোট জনসংখ্যার আনুমানিক গড় বয়স ৪৪.৬-এর তুলনায় তরুণ।

এর আগের বছর অর্থাৎ, ২০২২ সালে এক লাখ ৬৮ হাজার ৫৪৫ জন বিদেশিকে জার্মান নাগরিকত্ব দেওয়া হয়েছিল।

অভিবাসন আইনের আধুনিকায়ন

সরকারি পরিসংখ্যান বলছে, জার্মানিতে বসবাসরত এক কোটি ২০ লাখ বা ১৪% অভিবাসীর জার্মান পাসপোর্ট নেই। এদের মধ্যে আবার ৫৩ লাখ মানুষ অন্তত দশ বছর ধরে জার্মানিতে বসবাস করছেন।

বার্ধক্যসহ বিভিন্ন কারণে তৈরি হওয়া শ্রম ঘাটতি মেটাতে জার্মানি তার নাগরিকত্ব আইনের আধুনিকায়ন করেছে।

গত জানুয়ারিতে অভিবাসীদের জন্য নাগরিকত্ব অর্জনকে আগের তুলনায় সহজ করে এবং দক্ষ কর্মীদের জন্য দেশটিকে আরও আকর্ষণীয় গন্তব্যে পরিণত করতে অভিবাসন আইন সংস্কার করেছে জার্মানি।

নতুন নিয়মে যারা জার্মানির নাগরিকত্ব চেয়ে আবেদন করবেন, তাদের আগের নাগরিকত্ব ছাড়তে হবে না। দুই দেশের আইনি কাঠামোকে বিবেচনায় নিয়ে দ্বৈত নাগরিকত্বের সুযোগ রাখা হয়েছে নতুন নিয়মে। নাগরিকত্ব অর্জনের সময়সীমা আট বছর থেকে কমিয়ে করা হয়েছে পাঁচ বছর।

‘অতিথি কর্মী’ প্রজন্মের জন্য বিশেষ সুযোগ

“অতিথি কর্মীদের” অবদানের প্রতি সম্মান জানিয়ে তাদের প্রজন্মের জন্য জার্মান নাগরিকত্ব পাওয়ার পথ আরও সহজ করা হয়েছে।

এই প্রজন্মের অভিবাসীদের যারা জার্মান ভাষায় দক্ষতা দেখাতে পারবেন তারা নাগরিকত্ব অর্জনের পরীক্ষায় অংশ না নিয়েই সরাসরি পাসপোর্ট চাইতে পারবেন।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর অর্থনীতি পুনর্গঠনের জন্য জার্মানিতে শ্রমিক অভাব দেখা দেয়। ওই সময় কয়েক হাজার অতিথি কর্মীর জন্য দরজা খুলে দেয় দেশটি৷ এসব অতিথি কর্মীর বেশিরভাগই তুরস্ক ও ইতালির নাগরিক এবং তাদের বেশিরভাগই ছিলেন পুরুষ৷

About

Popular Links