Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

চুয়াডাঙ্গার মসজিদ-মাদ্রাসা উন্নয়নে শিল্পপতি রাজ্জাক খান রাজের আর্থিক সহায়তা

প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হওয়ার পাশাপাশি তিনি একজন বিশিষ্ট সমাজসেবক ও চুয়াডাঙ্গার গণমানুষের নেতা

আপডেট : ০৭ নভেম্বর ২০২৩, ০৬:৫০ পিএম

স্থানীয় মসজিদ এবং মাদ্রাসার উন্নয়নের জন্য আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন চুয়াডাঙ্গার গণমানুষের নেতা এম এ রাজ্জাক খান রাজ সিআইপি।

সম্প্রতি চুয়াডাঙ্গার আলোকদিয়া ইউনিয়নের সাত নম্বর ওয়ার্ডের হাতি কাটার মোড় জামে মসজিদ, কালু ভান্ডার দোওয়া মাদ্রাসা, হাতি কাটা আদর্শ পাড়া নতুন জামে মসজিদ, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা ২ নম্বর ওয়ার্ডের বুদ্ধিমান পাড়া আল আরিশ জামে মসজিদ, আলমডাঙ্গার বাড়াদি ইউনিয়নের, পোলতাডাঙ্গা জামে মসজিদ, পোলতাডাঙ্গা বাজার জামে মসজিদ, নদী পাড়া জামে মসজিদ ও বলিয়ারপুর জামে মসজিদ এবং জেহালা ইউনিয়নের বাইতুল সুজুদ জামে মসজিদের নির্মাণকাজের জন্য নগদ অর্থ দেন তিনি।

এম এ রাজ্জাক খান রাজ সিআইপি দেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠান মিনিস্টার-মাইওয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান, শীর্ষ ব্যবসায়িক সংগঠন এফবিসিসিআই ভাইস প্রেসিডেন্ট ও আওয়ামী লীগের  কেন্দ্রীয় অর্থ ও পরিকল্পনা বিষয়ক উপকমিটির সদস্য।

সম্প্রতি এসব মসজিদ ও মাদ্রাসার উন্নয়নের জন্য তিনি বিভিন্ন পরিমাণে অর্থ প্রদান করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “মসজিদ আল্লাহর ঘর। মসজিদ ও মাদ্রাসা আমাদের ধর্মীয় ও সামাজিক জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আমি সবসময় আমার সাধ্য অনুযায়ী মসজিদ ও মাদ্রাসা উন্নয়নে সহায়তা করে আসছি। আমি আশা করি এই সহায়তা মসজিদ ও মাদ্রাসাগুলোর উন্নয়নে অবদান রাখবে। আমি চুয়াডাঙ্গা জেলাকে একটি মডেল জেলা এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে একজন সৈনিক হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি। আমার এই প্রচেষ্টা সবসময় অব্যাহত থাকবে।”

চুয়াডাঙ্গার কৃতি সন্তান এম এ রাজ্জাক খান রাজ সর্বদাই জনগণের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখে আমৃত্যু কাজ করে যেতে চান । প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হওয়ার পাশাপাশি তিনি একজন বিশিষ্ট সমাজসেবক ও চুয়াডাঙ্গার গণমানুষের নেতা। তিনি বিভিন্ন সময় স্থানীয় শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ক্রীড়া, কর্মসংস্থান ও কৃষি খাত উন্নয়নে আর্থিক সহায়তা দিয়ে আসছেন। 

এছাড়াও তিনি নিয়মিতভাবে গরিব ও অসহায় মানুষদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। কোভিড মহামারির সময় তিনি জীবন বাজি রেখে মানুষের পাঁশে দাড়িয়ে সেবা করেছেন। দিয়েছেন নগদ অর্থসহ নানা ধরনের কোভিড প্রতিরোধী জিনিসপত্র। জাতীয় কিংবা স্থানীয় যেকোনো সঙ্কটে তার সাহায্যের হাত যেন সবার এগিয়ে আসে। তিনি একজন সমাজসেবক হিসেবেও পরিচিত। তিনি নিয়মিত বিভিন্ন দাতব্য ও সামাজিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করেন।

উল্লেখ্য, মসজিদ, মাদ্রাসা ও কবরস্থানের উন্নয়নে আর্থিক সহায়তা প্রদান করায় এম এ রাজ্জাক খান রাজ সিআইপির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন স্থানীয় মুসল্লি ও এলাকাবাসী।

About

Popular Links