• মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৪, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:০০ রাত

ক্রমবর্ধমান সংখ্যা কোভিড-১৯ সঙ্কট সম্পর্কে যে বার্তা দেয়

  • প্রকাশিত ০৪:৫৫ বিকেল জুন ৪, ২০২০
করোনা-বাংলাদেশ
করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য অপেক্ষমাণ মানুষ। রাজীব ধর/ঢাকা ট্রিবিউন

কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধিতে আশংকাজনক ইঙ্গিতসমূহ বিবেচনা করে, বাংলাদেশের অবশ্যই লকডাউন বলবৎ রাখার দিকে নজর দেওয়া উচিৎ 

মে মাসের শুরু থেকেই, বাংলাদেশ ধীরেধীরে কোভিড-১৯ মহামারির বিশ্বতালিকায় জায়গা করে নিয়েছে। বিশ্বস্ত স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক তথ্যসূত্র থেকে প্রাপ্ত খবরে জানা যায়, বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে কোভিড-১৯ সংক্রমণের হটস্পট হিসেবে স্থান করে নিচ্ছে, যদিও তার ভয়াবহতা এখনও দৃশ্যমান নয়। বাংলাদেশ সম্পর্কে নিম্নোক্ত নিখুঁত পর্যালোচনা লকডাউন শিথিল করার বর্তমান সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে এবং নমুনা পরীক্ষার ক্ষেত্রে আরও কঠোর হয়ে ওঠার পক্ষে মত দেয়।

আক্রান্ত শনাক্তের বিচারে বিশ্বে ২১তম, এপ্রিলে অবস্থান ছিলো শীর্ষ ৪০এর বাইরে

আক্রান্ত শনাক্তের সংখ্যার যে তথ্য তা কোভিড-১৯এর বিস্তারের ক্ষেত্রে একটি অপরিশোধিত, পশ্চাৎপদ হিসাব হলেও, বেশ ভালোভাবেই বুঝিয়ে দেয় একটি দেশ কোন অবস্থানে দাঁড়িয়ে রয়েছে। এই মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্র প্রায় ২০ লাখ আক্রান্ত নিয়ে তালিকার শীর্ষে অবস্থান করছে। যেখানে ব্রাজিল রয়েছে দ্বিতীয়, রাশিয়া তৃতীয় ও যুক্তরাজ্য চতুর্থ অবস্থানে।

বাংলাদেশের অবস্থান যেভাবে লাফিয়ে সামনের দিকে উঠছে তাতে চীনকেও পেছনে ফেলার নির্দেশ দিচ্ছে। এই ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধি জুন শেষ হওয়ার আগেই বাংলাদেশকে ১৭তম অবস্থানে নিয়ে যাবে বলে আশংকা করা যাচ্ছে।  

দৈনিক সংক্রমণ বৃদ্ধির হারে বিশ্বে নবম, একমাস আগেও শীর্ষ ৪০ দেশের বাইরে ছিলো

শনাক্ত বৃদ্ধির সংখ্যা একটি বড়ধরনের ইঙ্গিত যা, একটি দেশের কোভিড-১৯এর প্রত্যাশিত ভবিষ্যত তীব্রতার চিত্র তুলে ধরে। বাংলাদেশ গত ১ জুনের তথ্যমতে, বর্তমানে বিশ্বের নবম সর্বোচ্চহারে কোভিড-১৯ আক্রান্তর সংখ্যা বৃদ্ধির দেশ। যা দেখে প্রতীয়মান হয় যে আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই বাংলাদেশের পরিস্থিতি কোভিড-১৯ সংক্রমণের দিক থেকে বিশ্বের অন্যতম বাজে অবস্থানে পৌঁছাবে। 

বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান তিনদেশ মিলে তালিকায় নিজেদের অবস্থান ধরে রাখছে

তিনটি দেশের মধ্যে কোভিড-১৯ সংক্রমণ ও সংক্রমণের বৃদ্ধিতে বেশ মিল দেখা যাচ্ছে। যদিও একমাস আগেও সংক্রমণ বৃদ্ধির হার বিচারে শীর্ষ ১০ দেশের মধ্যে এদের কোনটিই ছিলো না। তবে এই মুহূর্তে বাংলাদেশের অবস্থান নবম, পাকিস্তান ষষ্ঠ ও ভারত রয়েছে চতুর্থ স্থানে। এই তিন দেশ বর্তমানে ব্রাজিলকে অনুসরণ করছে, যেখানকার জনসংখ্যা ২১ কোটি ২০ লাখ এবং এই মুহূর্তে দৈনিক সংক্রমণ বৃদ্ধির হিসাবে দেশটি বিশ্বে প্রথম অবস্থানে রয়েছে।

ভারতের প্রতি একজন আক্রান্তর তুলনায় বাংলাদেশে আক্রান্তর হার ২.৫ 

বাংলাদেশে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ভারতের ২৫% আক্রান্ত প্রত্যক্ষ করছে, যেখানে ভারতের জনসংখ্যা বাংলাদেশের তুলনায় ৯গুণ বেশি। তাই এই ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধি এই ইঙ্গিত দেয় যে বাংলাদেশ খুব শীঘ্রই ভারতের সঙ্গে থাকা ব্যবধান কমিয়ে আনবে।

কোভিড-১৯এ মৃত্যুতে শ্রদ্ধার সাথে ভারতকে অনুসরণ করা

তথ্যানুযায়ী, ভারতে কোভিড-১৯ এর কারণে প্রতি মৃত্যুর বিপরীতে বাংলাদেশ ০.৯২টি মৃত্যুর রেকর্ড করেছে, যার অর্থ এই যে দু’টি দেশই মৃত্যুর হার নিয়ে প্রায় একই পথ অনুসরণ করছে। তবে, বাংলাদেশের শনাক্তের হার দ্রুত বাড়ার সাথেসাথে এবং লকডাউন শিথিলকরণের ফলে মৃত্যুর হার খুব শীঘ্রই ভারতের চেয়ে বেশি হয়ে যাওয়ার আশংকা রয়েছে।

জনসংখ্যার ঘনত্বের দিক থেকে ১০১তম, যা নির্দেশ করে বৃদ্ধি সবে শুরু হয়েছে

বাংলাদেশ প্রতি ১০ লাখে ৩১৬ জন কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী শনাক্তের তথ্য দিয়েছে, যা পাকিস্তানের একেবারেই কাছাকাছি। দেশটিতে প্রতি ১০ লাখে ৩৩৫ জনের শনাক্ত হওয়ার তথ্য রয়েছে। সার্ক-ভুক্ত তিনটি প্রতিবেশী দেশ জনসংখ্যার ঘনত্বের বিচারে বিশ্বতালিকায় নিচের দিকে অবস্থান করছে। বাংলাদেশের অবস্থান ১০১, পাকিস্তান ৯৮ ও ভারত রয়েছে ১৪৫তম অবস্থানে।

এটি কি আমাদের জন্য খুব আশাবাদী হওয়ার মত কোনও খবর? মোটেও না। ব্রাজিল এই মুহূর্তে রয়েছে ৩৫তম অবস্থানে এবং বাংলাদেশ গত কয়েক সপ্তাহে তালিকার প্রথম দিকে লাফিয়ে উঠছে। আবার অন্যদিকে, শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রর অবস্থান ধীরেধীরে নেমে আসছে।   

নমুনা পরীক্ষায় অনেক পিছিয়ে বাংলাদেশ

নানাবিধ অশনিসংকেতের মধ্যেও এপর্যন্ত বাংলাদেশে মাত্র ৩,২০,০০০ জনের নমুনা পরীক্ষা করেছে, যা দেশটির মোট জনসংখ্যার মাত্র ০.২%। পাকিস্তানে যেখানে প্রতি ১০০ জনের কোভিড-১৯ পরীক্ষা হয়েছে, সেখানে বাংলাদেশের হয়েছে ৭৭জনের এবং ব্রাজিলে প্রতি ১০০ জনের মধ্যে পরীক্ষা হয়েছে মাত্র ৪৫জনের। 

কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধিতে আশংকাজনক ইঙ্গিতসমূহ বিবেচনা করে, বাংলাদেশের অবশ্যই লকডাউন ধরে রাখার দিকে নজর দেওয়া উচিৎ। একইসাথে তিনটি কাজ করে যেতে হবে, তা হলো-পরীক্ষা, পরীক্ষা ও পরীক্ষা। 

সংখ্যা হাজারো কথা বলে। আর এক্ষেত্রে ক্রমশঃ বৃদ্ধি পাওয়া সংখ্যা খুব ভালো কোনও ইঙ্গিত দিচ্ছে না।



বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মোহাম্মদ তোফায়েল চৌধুরী পিডব্লিউসি অস্ট্রেলিয়ায় একজন অংশীদার


প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। প্রকাশিত লেখার জন্য ঢাকা ট্রিবিউন কোনো ধরনের দায় নেবে না।


51
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail