• রবিবার, ডিসেম্বর ০৫, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৩ সকাল

‘রেহানা মরিয়ম নূর’: সত্যের পক্ষে প্রতিরোধের ডাক

  • প্রকাশিত ০৬:৩৯ সন্ধ্যা নভেম্বর ২১, ২০২১
রেহানা মরিয়ম নূর
‘রেহানা মরিয়ম নূর’ ছবিতে আজমেরী হক বাঁধন/ ছবি: সংগৃহীত

সত্য মানেই প্রতিরোধ। অন্যায়, অন্যায্যের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ডাক। এ ছবি কোনো তারুণ্যের স্বাপ্নিক ভাবালুতা বা ইচ্ছেপূরণের গল্প নয়

ছবি বানাতে অনেক কিছু লাগে। শিল্পের সবচেয়ে শক্তিশালী বিবেচিত এ মাধ্যমের দাবি প্রচুর। শুরুতে দরকার ভাবনা। বাংলা ছবির অনন্য পথদ্রষ্টা ঋত্বিক ঘটক যাকে বলতেন ‘‘ভাবনার প্র্যাকটিস’’। করোটির এই তুমুল ‘‘প্র্যাকটিস’’ লিপিবদ্ধ হয়ে শক্তিশালী চিত্রনাট্যে রূপ নেয়। এর ওপর ভিত্তি পুরো ছবির।

কেন প্রযোজক বিনিয়োগ করবেন? কেন পরিবেশক একে হলে আনবেন? কেন দেশের কাঁটাতার, ভাষার সীমানা ছাড়িয়ে ছবি পৌঁছাবে ভিনদেশে? আর দর্শকেরই বা কী ঠেকা পয়সা দিয়ে, সময় দিয়ে তা প্রত্যক্ষ করতে অন্ধকার ঘরে আসার?

এমন অনেক প্রশ্নের জবাব নিজের অন্তরে রেখে একজন নির্মাতা তার দল নিয়ে ছবি বানান। বিপুল এ কর্মের সবচেয়ে শুরুতে লাগে একজন নির্মাতার শিল্প সৃষ্টির জেদ ও অস্থিরতা। পরিচালকের মন, মগজের এ তীব্রতায় দৃশ্যমান হয় সিনেমার বুনন।


আরও পড়ুন- এ বছর বাংলাদেশ থেকে অস্কারে যাচ্ছে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’


১০৭ মিনিট দৈর্ঘ্যের “রেহানা মরিয়ম নূর” ছবিতে পরিচালক আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ দায়বদ্ধ ছিলেন একমাত্র সত্যের কাছে। বাংলা ছবির ইতিহাসে এ এক অনবদ্য বাঁক বদলের লগ্ন। এ ছবির একজন দর্শক নিজেকে ভাগ্যবান মনে করবেন। মিথ্যার অন্ধকারের রাজত্ব ক্ষণিকের।

নক্ষত্রতুল্য সত্য হাজির হবেই কোনো না কোনো এক সময়। এ সত্য মানেই প্রতিরোধ। অন্যায়, অন্যায্যের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ডাক। এ ছবি কোনো তারুণ্যের স্বাপ্নিক ভাবালুতা বা ইচ্ছেপূরণের গল্প নয়। বরং প্রজ্ঞাবান দূরদৃষ্টিময় নৈতিক দৃষ্টান্ত। বাংলা ছবির সুবর্ণ সময়ে ফেরার চিহ্ন “রেহানা মরিয়ম নূর”।

আগেই বলাই হয়েছে ছবি নির্মাণের সময় করোটিতে চলে ভাবনার প্র্যাকটিস। তখন কেউ ফেরেন ইতিহাসে। বাংলা জনপদের নির্মাতাদের এক নিয়তি আছে। তা হলো, প্রথম ছবিটি হতে হবে মুক্তিযুদ্ধকেন্দ্রিক। নানাভাবে সিনেমায় এসেছে জাতি-রাষ্ট্রের জন্মলগ্নক্ষণ ১৯৭১। সে ৯ মাসে কম কিছু ঘটেনি। সামরিক জান্তা ও এর দেশীয় দোসরদের হাতে গণহত্যার রক্ত নদী মিশেছে বঙ্গোপসাগরে। সামনেও নিশ্চয়ই অনেক সিনেমা হবে জনযুদ্ধের অব্যাখ্যাত নানা দিক নিয়ে।


আরও পড়ুন- চতুর্দশ এশিয়া প্যাসিফিক স্ক্রিন অ্যাওয়ার্ডসে সেরা অভিনেত্রী বাঁধন


তবে একটি বিষয় বোধগম্য থাকা ভালো। তা হলো- বাঙালি শুধু একাত্তরেই জাগেনি। কৈবর্ত বিদ্রোহ থেকে হাজার বছরের বেশি সময় ধরে শাসকের অধীনতার মোকাবিলা করেছেন এই বাংলার মানুষ। পলিজাগা এ ব-দ্বীপ সিক্ত অগণন শহীদের শোণিতে। আপস করিনি মোরা এই হলো ইতিহাস। একটি দলের তুষ্টিতে যারা শুধু একাত্তরকেই বাইনোকুলার দিয়ে খোঁজেন তাদের দ্বারা কিছু হবে না। কালে কালে যুগে যুগে ক্ষমতার এ প্রণোদনা, অনুদান অন্বেষকরা নিক্ষিপ্ত হয়েছেন আস্তাকুঁড়ে।

২০১৬ সালে আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদের পরিচালক হিসেবে অভিষিক্ত হওয়ার প্রথম ছবিটি ছিল “লাইভ ফ্রম ঢাকা”। এটি সমসাময়িক গল্প। দ্বিতীয় ছবি “রেহানা মরিয়ম নূর” বিরাজমান সময়কে দেখার আশ্চর্য শক্তিতে নির্মিত। এই ছবি অজস্র আগামীর নির্মাতাকে পথ দেখাবে এই কথা বলে, “কারও অপেক্ষায় বসে না থেকে তোমার গল্পটি বলে ফেল”। দরকার নেই কোনো কোনো দাদা কিংবা ভাই-ব্রাদারের সহকারী পরিচালক হয়ে সময়ক্ষেপণ। সংবেদনশীল দর্শকের স্পন্দিত বুকে প্রেক্ষাগৃহে বসেই মনে হবে, “আমিই রেহানা”। সিনেমার শক্তি যেখানে। সিনেমাই সেই শিল্পমাধ্যম যা পর্দার মানুষটিকে নিজের ভেতরে ধারণ শেখায়।

রেহানা মরিয়ম নূর ছবিটি দেশের তথাকথিত “প্রগতিশীল” ও “জনবিচ্ছিন্ন ও ভোগসর্বস্ব নারীবাদ” চর্চাকারীদের লজ্জায় ফেলবে। সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণ যে বিশ্বাসে আস্থা রাখেন তার প্রতিফলন এ ছবি। দেশের চিকিৎসাখাতের দুগর্তি এ সিনেমায় উন্মোচিত।

শিক্ষাব্যবস্থার বাংলা মিডিয়াম বনাম ইংরেজি মাধ্যমের আসল দশা চিত্রিত এ ছবিতে। সত্য, সুন্দর আর মিথ্যা, নিপীড়নের বিরুদ্ধে এক অবিনাশী লড়াই প্রবাহিত সিনেমাজুড়ে। সব মিলিয়ে এ ছবি এক গণমুখী শিল্পের নিদর্শন। জনপদের গ্রাম, শহর, পাড়া, মহল্লা, বন্দর, গঞ্জের মোকামে এ ছবির প্রচার গুরুত্বপূর্ণ। নিশ্চয়ই “ফিল্ম অ্যাকটিভিস্ট” নামে সত্যিই যদি কেউ থাকেন দেশে, তারা এর দায়িত্ব নেবেন।

রেহানা মরিয়ম নূর সিনেমার প্রতিটি কর্মী সাধুবাদ পেতে পারেন এমন বিরল সৃষ্টির জন্য। ঠিক মতো গল্প বলা গেলে তা কান লুফে নেবে। অস্কারও অধরা থাকবে না-    রেহানা মরিয়ম নূরের জয়জয়কার তাই প্রমাণ করে। সত্যের জন্য লড়াই মানুষের নিগুঢ় প্রবৃত্তি। রেহানা মরিয়ম নূর সিনেমার গল্প হয়ে সে আদর্শেরই ডাক দেয়।


ফ্রিল্যান্স লেখক ও সাংবাদিক হাসান শাওনের জন্ম, বেড়ে ওঠা রাজধানীর মিরপুরে। পড়াশোনা করেছেন মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি বাঙলা কলেজ, বাংলাদেশ সিনেমা ও টেলিভিশন ইনিস্টিটিউটে। ২০০৫ সাল থেকে তিনি লেখালেখি ও সাংবাদিকতার সঙ্গে যুক্ত। কাজ করেছেন সমকাল, বণিক বার্তা, ক্যানভাস ম্যাগাজিন ও আজকের পত্রিকায়।

 ২০২০ সালের ১৩ নভেম্বর হাসান শাওনের প্রথম বই “হুমায়ূনকে নিয়ে” প্রকাশিত হয়।


 প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। প্রকাশিত লেখার জন্য ঢাকা ট্রিবিউন কোনো ধরনের দায় নেবে না।



50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail