Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সঙ্গ দোষে লোহা ভাসে!

চারপাশে যাই হোক না কেনো কিছু ব্যাপারে সচেতন থাকলে আপনি একটি নেতিবাচক পরিবেশে থেকেও আপনার মেধা এবং যোগ্যতার সর্বোচ্চ বিকাশ ঘটাতে পারবেন

আপডেট : ২১ জুলাই ২০২২, ০৩:১২ পিএম

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ার সময় প্রতি ক্লাসে ৫০ নম্বরের সাধারণ জ্ঞানের পরীক্ষা হতো আমাদের। সেখানে থাকতো বিভিন্ন দেশের রাজধানী, মুদ্রা, ভাষার নাম, গাছের পাতা কেনো সবুজ হয়, লোহা কেনো পানিতে ভাসে না এরকম বিভিন্ন তথ্য। লোহার ভর বেশি তাই স্বাভাবিক নিয়মেই সে পানিতে ডুবে যায়। কিন্তু আমরা দেখি লোহার তৈরি বিভিন্ন যানবাহন যেমন, লঞ্চ, স্টিমার, জাহাজ সবই পানিতে ভেসে চলে। এর বৈজ্ঞানিক কারণ যাই হোক “সঙ্গ দোষে লোহা ভাসে” এটি একটি বহুল প্রচলিত এবং পুরোনো প্রবাদ। 

আমরা পরিবার, বন্ধু, প্রতিবেশী, সহকর্মীদের ভালো-মন্দ আচরণে প্রভাবিত হই। এটাই স্বাভাবিক। অনেকেই বলে থাকি, “আমার চারপাশের পরিবেশটা ভালো না তাই কারো সঙ্গে মিশি না।” কিন্তু এতে করে আমরা বঞ্চিত হবো সামাজিক যোগাযোগ থেকে, কমে যাবে যোগাযোগ দক্ষতা।

চারপাশে যাই হোক না কেনো কিছু ব্যাপারে সচেতন থাকলে আপনি একটি নেতিবাচক পরিবেশে থেকেও আপনার মেধা এবং যোগ্যতার সর্বোচ্চ বিকাশ ঘটাতে পারবেন। আসুন জেনে নিই সেরকম কিছু কৌশল-

ইতিবাচক মনোভাব: পরিবেশ পরিস্থিতি থেকে আমাদের বিশ্বাস, আচরণ, বাচনভঙ্গি, পছন্দ-অপছন্দ ইত্যাদি প্রভাবিত হয়। তবে আমাদেরকে সেল্ফ ফিল্টারিং মনোভাব রাখতে হবে। যা দেখব, শুনবো তার মাঝে কোন আচরণগুলো গ্রহণযোগ্য এবং কোনগুলো নয় তার একটি তালিকা করে নিতে পারি। যেমন, কর্মক্ষেত্রের পরিবেশে আমার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা আমার সঙ্গে নিয়মিত চিৎকার-চেঁচামেচি করে যাচ্ছে বলে আমিও প্রভাবিত হয়ে সহকর্মী কিংবা অন্যান্যদের সঙ্গে সেরকম আচরণ করবো তা আমার ইতিবাচক মনোভাবের পরিচায়ক নয়। পক্ষান্তরে, অন্যের ইতিবাচক কাজগুলো থেকে উৎসাহিত হয়ে শিক্ষা নিতে পারি। যেমন, আমার বন্ধু প্রতিদিন সকালে উঠে ব্যায়াম করে, মেডিটেশন করে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সুপরিকল্পিতভাবে জীবনযাপন করে ইত্যাদি।


আরও পড়ুন: কাজের ফাঁকে মেডিটেশন বাড়াবে আপনার কর্মদক্ষতা


তথ্যের গোপনীয়তা: পরিবার, বন্ধু মহল কিংবা কর্মক্ষেত্রে কেউ কেউ সুযোগ পেলেই অন্যের নামে বাজে মন্তব্য করে এবং অন্যের কথোপকথন শুনে এসে রঙ মাখিয়ে সবাইকে বলে এক রকম অসুস্থ আনন্দ নেয়। মজার ব্যাপার হলো, আপনার কোনো খবর সবাইকে জানানোর হলে এরকম ব্যক্তিকে জানান, দেখবেন কয়েক ঘণ্টার মাঝে পুরো এলাকাবাসী তা জেনে গেছে, আপনাকে আর কষ্ট করে মাইকিং করতে হবে না। এরকম মানুষদের যত বেশি এড়িয়ে চলা যায় ততোই ভালো। কারণ, এরা জানে না যে এরা যা করছে তা উভয়ের জন্য ক্ষতিকর। আবার আপনি কিছু বলতে গেলে এরা আক্রমণাত্মক হয়ে উঠতে পারে। তাই কোনো ব্যক্তিগত তথ্য এদেরকে জানানো থেকে বিরত থাকুন। এদের সঙ্গ ত্যাগ করতে সরাসরি কিছু না বলে, “একটু কাজ আছে” বলে উঠে যেতে পারেন। এ ধরনের ব্যক্তিদের সঙ্গে আড্ডায় অংশ নেওয়া সম্পূর্ণভাবে মেধা, মননের অপচয়।

নিরাপদ দূরত্ব: ধরুন, সকালটা শুরুই হলো একটা বাজে মন্তব্য শুনে, সেক্ষেত্রে আজকে সারাদিনের জন্য যতটুকু সম্ভব নিরাপদ দূরত্ব মেনে চলুন। কথার পিঠে কথা বলতেই হবে এই মনোভাব থেকে বেরিয়ে আসুন। “জি, আচ্ছা, হুম, ও, ঠিক আছে, ধন্যবাদ, দুঃখিত” এরকম ছোট ছোট প্রতিক্রিয়া ও হাসি মুখে দিয়ে ঝামেলা এড়াতে পারেন। নিজের ওপর চাপ নেবেন না। 

অর্থনৈতিক সিদ্ধান্তে প্রভাবিত না হওয়া: আপনার বন্ধু হয়ত দামি ব্র্যান্ডের গাড়ি কিনেছে, দামি ফ্ল্যাট কিনেছে আর এই নিয়ে আপনাকে খুব শোনাচ্ছে, গল্প করছে। আর অন্য বন্ধুরাও আপনাকে খোঁচা দিয়ে কথা বলতে ছাড়ছে না। ঘটনা যাই ঘটুক, কোনোভাবেই আপনার অর্থনৈতিক কোনো সিদ্ধান্ত অন্যের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে নেবেন না। আপনার সামর্থ্য নেই কিন্তু সামাজিকতার দায়ে ক্রেডিট কার্ডে কেনাকাটা করে নিজের ঋণের বোঝা বাড়াবেন না। 


 আরও পড়ুন:কৈশোরের প্রেম এতো তীব্রতা নিয়ে আসে কেন?


নিজের প্রতি ফোকাস বৃদ্ধি: পরিকল্পনা করে ফেলুন আগামী এক বছর আপনি কী কী কাজ করবেন এবং তা কীভাবে করবেন, এতে কার কার সহায়তা লাগবে। করে নিতে পারেন সাপ্তাহিক রুটিন চার্ট। মনে রাখবেন, দিনশেষে আপনার পাশে আপনিই থাকবেন। তাই বন্ধু নির্বাচনে সতর্ক হোন। যদি মনে করেন আপনার সবচেয়ে প্রিয় বন্ধু কিংবা কাছের মানুষটি ভীষণ টক্সিক হয়ে উঠেছে, তাহলে এর ছায়া আপনার ওপরেও পড়বে, আর সেটা হয়ত আপনি বুঝতেও পারবেন না। তাই নিজের আচরণ সংযত আছে কি-না যাচাই করুন।

সঙ্গ দোষে যতই লোহা ভাসুক না কেন, সময় থাকতে নিজেকে নিয়ে ভাবুন। নিজের বাচনভঙ্গি ও আচরণগত দক্ষতা বৃদ্ধি করুন।


 ফারজানা ফাতেমা

মনোবিজ্ঞানী, "শৈশবকালীন প্রতিকূলতা ও নিউরো ইমেজিং স্টাডি বাংলাদেশ", আইসিডিডিআর, বি। আজীবন সদস্য, বাংলাদেশ মনোবিজ্ঞান সমিতি।


প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্ত ব্যক্তিগত। ঢাকা ট্রিবিউন কর্তৃপক্ষ এর জন্য দায়ী নয়।

About

Popular Links