• মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:২০ রাত

আবুল বাজানদারের ব্যাপারে যা বললেন চিকিৎসকরা

  • প্রকাশিত ১০:৪৭ রাত জুন ৩, ২০১৮
abul-bajandar-1527530503984.jpg
মা, মেয়ে ও স্ত্রীর সঙ্গে আবুল বাজানদার

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন বৃক্ষমানব’ হিসেবে পরিচিত সাতক্ষীরার আবুল বাজানদার। এ নিয়ে ঢামেক হাসপাতালের বেশ কয়েকজন চিকিৎসক রবিবার (৩ জুন) ঢাকা ট্রিবিউনের সঙ্গে কথা বলেন। 

ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, আমরা গত আড়াই বছর তার চিকিৎসা করে প্রতিদানে এই পেলাম? জানি না এর পেছনে কী উদ্দেশ্য আছে তার। প্রধানমন্ত্রী নিজেই তার চিকিৎসার দায়িত্ব দিয়েছিলেন আমাকে। সে এখন কী বলছে তা প্রধানমন্ত্রীকে জানাবো।’

সম্প্রতি ঢামেক হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যান আবুল বাজানদার। এর আগে প্রায় আড়াই বছর সেখানে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যাওয়ার পর চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ করেন বাজানদার। এ নিয়ে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়।

ডা. সামন্ত লাল সেন আরও বলেন, আমাদের এখানে আবুল বাজানদার ছাড়াও অনেক রোগী আছেন। আবুলের পরিবারের চারজনকে খাবার দেওয়ার সময় অন্য রোগীরা আমাকে বলতেন, স্যার আপনি তো আমাদেরকে এভাবে খাবার দেন না। সেই আবুল আড়াই বছর চিকিৎসা নিয়ে চলে যাওয়ার পর গণমাধ্যমে চিকিৎসকদের নিয়ে অভিযোগ করায় আমার খুব কষ্ট লেগেছে।’

ঢামেকের এই চিকিৎসকের ভাষ্য, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় চিঠি লিখে বাজানদারের রক্ত ও অন্যান্য স্যাম্পল বিদেশে পাঠিয়ে বিনামূল্যে পরীক্ষা করিয়ে এনেছি। ডা. লতা গিয়ে তার স্যাম্পল জমা দিয়ে এসেছিল। অথচ আবুল এখন বলছে, তার রোগ জেনেটিক না। আমার প্রশ্ন হলো, রোগী কীভাবে বুঝবে যে, রোগ জেনেটিক কিনা? এটা তো চিকিৎসক ভালো বলতে পারবেন।’

বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. নুরুন নাহার লতা বলেন, হাসপাতালের মোটা চালের ভাত খেতে পারতেন না বাজানদার। তাই তাকে ও তার পরিবারকে (স্ত্রী, মেয়ে ও মা) ডক্টরস ক্যান্টিন থেকে খাবার কিনে দেওয়া হতো। পরে তা বন্ধ করায় সে আপত্তি জানায়। কিন্তু হাসপাতালের নিয়মানুযায়ী শুধু রোগী খাবার পাবে। অন্যদের খাবার কিনে দিতেন সামন্ত লাল সেন স্যার।’

সহকারী অধ্যাপক হোসাইন ইমাম বলেন, আবুল বাজানদার চিকিৎসকদের অবহেলার যে অভিযোগ এনেছেন তা পুরোপুরি আপত্তিজনক। আমরা তার চিকিৎসায় বিন্দুমাত্র অবহেলা করিনি। তার জন্য উচ্চ পর্যায়ের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। তার ২৫টি অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। এগুলোই আমাদের চেষ্টার প্রমাণ দেয়।’

অধ্যাপক হোসাইন ইমামের কথায়, আবুল তার খাবার ও ওষুধ সরবরাহে অবহেলার অভিযোগ এনেছে। তার খাবার ও ওষুধ হাসপাতাল থেকে দেওয়া হয়েছে। তার অস্ত্রোপচার, ওষুধ ও খাবারের জন্য যাবতীয় খরচ বহন করতেন প্রধানমন্ত্রী।’

বাজানদারের অভিযোগ অনুযায়ী, অধ্যাপক কবির চৌধুরীকে বিদেশি চিকিৎসক বলা হয়েছে। তবে অধ্যাপক হোসাইন ইমাম জানান, অধ্যাপক কবির চৌধুরী মূলত বাংলাদেশি চিকিৎসক।’

অভিযোগে আরও বলা হয়, কবির চৌধুরী ৫-৬টি অস্ত্রোপচার করেছেন। অধ্যাপক হোসাইন ইমামের দাবি, তিনি কোনও অস্ত্রোপচার করেননি। কবির চৌধুরী স্যার আমাদের সার্জিক্যাল টিমকে সহযোগিতা করেছেন, উপদেশ দিয়েছেন। আবুলের রোগটি আসলেই জেনেটিক সমস্যা। এই কথাটা সবাইকে বুঝতে হবে।’

আবুল বাজানদার যে ছুটির কাগজ প্রসঙ্গে অভিযোগ তুলেছেন সেই ব্যাপারে এই চিকিৎসক বলেন, নিজে থেকে কোনও রোগী চলে যেতে চাইলে তাকে লিখিত দিয়ে যেতে হয় যে, তার কিছু হলে সেই দায়দায়িত্ব তার নিজের। সবার ক্ষেত্রে একই নিয়ম। আবুলের ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম নয়। কিন্তু আবুল হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়।’

গণমাধ্যমকে আবুল বাজানদারের বিষয়ে কোনও কিছু লেখার আগে যাচাই-বাছাই করার আহ্বান জানিয়েছেন ঢামেকের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. কামরুননাহার লতা। তিনি বলেন, আবুল বাজানদার না বলে চলে গেছেন। তিনি এখন নিজের যাওয়াটাকে ন্যায়সঙ্গত করার জন্য অনেক কিছু বলবেন, এটাই স্বাভাবিক।’

যদিও সহকারী অধ্যাপক ডা. তানভীর আহমেদের কথায় আবুল বাজানদারের অসন্তোষের তথ্য বেরিয়ে এসেছে। তিনি বলেছেন, তাকে ছয়তলার যে কেবিনে দেওয়া হয়, সেখানে থাকতে রাজি ছিল না সে। কারণ এসি নেই। তাই তার কষ্ট হতো। কিন্তু আরও ১৬ জন রোগী কিন্তু কেবিনে থাকছেন। কিন্তু তিনি এসি ছাড়া থাকতে পারেন না।’