• সোমবার, জানুয়ারী ২০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪৫ রাত

১১ বছরের শিশুর সাথে ৪১ বছরের পাত্রের বিয়ে

  • প্রকাশিত ০৮:৩৮ রাত জুলাই ৪, ২০১৮
Malaysia-Early Marriage.jpg
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া বিয়ের ছবি। সংগৃহীত

এ বিয়ে ‘জঘন্য ও অগ্রহণযোগ্য’-শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ।

মালয়েশিয়ায় ১১ বছরের পাত্রীর সাথে ৪১ বছরের পাত্রের বিয়ে হয়েছে। পাত্র ছয় সন্তানের জনক এবং তাঁর আরও দুজন স্ত্রী রয়েছে। এই বিয়ে নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে মালয়েশিয়ায়। সমালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে দেশটিতে বিয়ের ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন বয়স ১৮ করার দাবি উঠেছে।  

বিবিসি ও ফক্স নিউজের তথ্য অনুযায়ী, সম্প্রতি মালয়েশিয়ার আবদুল করিম আবদুল হামিদ লুকিয়ে থাইল্যান্ডের ১১ বছর বয়সী এক শিশুকে বিয়ে করছেন। 

মালয়েশিয়ার সরকার বলছে, তাদের এখানে এ বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়নি। এটি থাইল্যান্ডে ঘটেছে এবং তারা ঘটনাটির তদন্ত করছে। ওই ব্যক্তি একজন সমৃদ্ধিশালী ব্যবসায়ী। শিশুটির পরিবার দরিদ্র। এ বিয়ে নিয়ে সমালোচনা চলছে মালয়েশিয়া জুড়ে।

শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ জানিয়েছে, এ বিয়ে ‘জঘন্য ও অগ্রহণযোগ্য’। ইউনিসেফের মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি মারিয়ান ক্লার্ক হাটিং জানান, এতে কোনোভাবেই শিশুটির ভালো হতে পারে না।

মালয়েশিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী ওয়ান আজিজাহ ইসমাইল বিবিসিকে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এ বিয়ে অবৈধ। কারণ শরিয়া আদালতে এ বিয়ে অনুমোদন পায়নি। 

মালয়েশিয়ার আইন অনুযায়ী, কারও বয়স ১৮ হলেই তাঁর বিয়ে দেওয়া যাবে। যদিও ইসলামি শরিয়া আদালত চাইলেই ১৬ বছরের কম বয়সীদের ক্ষেত্রেও বিয়ে অনুমোদন দিতে পারেন। 

মালয়েশিয়ার অধিকারকর্মীরা বলছেন, ১১ বছরের শিশুকে বিয়ে শিশুর ওপর যৌন নিপীড়নকারীর মতো আচরণ।