• শুক্রবার, অক্টোবর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৩:৪৬ বিকেল

কুকুর যখন মেয়র

  • প্রকাশিত ০৪:৪৩ বিকেল সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৮
মেয়র ম্যাক্স
গত ৫ বছর ধরেই এই গোল্ডেন রিট্রিভার জাতের কুকুরটি ইডিলওয়াইল্ড কমিউনিটির মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। ছবি: সংগৃহীত।

২০১২ সালে ইডিলওয়াইল্ড শহরে প্রথম বারের মতো মেয়র নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার শর্ত ছিল যে প্রার্থীকে শহরের বাসিন্দা হতে হবে এবং অবশ্যই হতে হবে শহরের কারো পোষা প্রাণী।

প্রায়ই অযোগ্য লোকজন অত্যন্ত প্রভাবশালী পদে আসীন হন। ভোট দিতে যেয়ে অনেকেই মুশকিলে পড়ে যান অযোগ্য প্রার্থী দেখে। তাই বলে যদি কুকুরকে প্রার্থী হিসেবে দেখেন, তখন কি করবেন? হ্যা ঠিকই পড়েছেন পাঠক। বলছি ম্যাক্সিমাস মাইটি ডগ ম্যুলারের(II) কথা যাকে সবাই মেয়র ম্যাক্স নামেই বেশী চেনে। গত ৫ বছর ধরেই সে ইডিলওয়াইল্ড কমিউনিটির মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে বলে খবর এনবিসি নিউজের।

২০১২ সালে ইডিলওয়াইল্ড শহরে প্রথম বারের মতো মেয়র নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার শর্ত ছিল যে প্রার্থীকে শহরের বাসিন্দা হতে হবে এবং অবশ্যই হতে হবে শহরের কারো পোষা প্রাণী। 

ঐ নির্বাচনে অংশ নেওয়া ১২টি কুকুর ও ২ টি বিড়ালের মধ্যে নির্বাচিত হয় বর্তমান মেয়র ম্যাক্সের চাচা ম্যুলার(I)। মেয়র ম্যাক্সের কার্যালয়ের প্রধান কর্মকর্তা ফিলিস ম্যুলার বলেন, ‘২০১২ সালে নির্বাচনের মূল উদ্দেশ্য ছিল পশুসংরক্ষণের জন্য একটি তহবিল গঠন। ঐ নির্বাচনে ভোট দেওয়ার জন্য ভোটারকে ১ ডলার করে দান করতে হয়েছিল’। 

তবে, ২০১৩ সালে মৃত্যু ঘটে প্রথম নির্বাচিত মেয়র ম্যুলারের (I) এরপর নির্বাচিত করা হয় বর্তমান মেয়রকে। নির্বাচিত হওয়ার সময় ম্যুলার (II) নিতান্তই শিশু ছিল বলে জানান মেয়র ম্যাক্সের মূখপাত্র ফিলিস ম্যুলার। 

তিনি বলেন, ‘বর্তমান মেয়রের প্রধান কাজ হল অন্যকে সহযোগিতা এবং অন্যদের প্রতি নিঃস্বার্থ ভালবাসা প্রকাশের মাধ্যমে একটি সুন্দর পৃথিবীর বার্তা পৌঁছে দেওয়া। আর কার্যালয়ের প্রধান কর্মকর্তা হিসেবে অন্যান্য কাজগুলোর দেখভাল করা আমার কাজ’। এসময় একটা ছোট্ট ঘেউ এর মাধ্যমে এ কথায় সায় দিয়ে ওঠে মেয়র ম্যাক্স।

নিজের এলাকায় যথেষ্টই জনপ্রিয় মেয়র ম্যাক্স। এলাকার সব দাতব্য কিংবা তহবিল গঠনের আয়োজনে তার উপস্থিতি নিশ্চিত থাকে। এসব অনুষ্ঠানে সে তার জন্য নির্ধারিত ডগপ্রুফ গাড়িতে করে হাজির হয়। 

উল্লেখ্য, রাজনীতিতে ম্যাক্সের জ্ঞান সীমিত হলেও ছলাকলার মাধ্যমে খাবার আদায়ে সে খুবই পটু। এমনকি ভ্রমণ করতে আসা পর্যটকদেরকেও সে রেহাই দেয় না। অন্যদিকে পর্যটকরাও পরম ভালবাসায় তাকে খাওয়াতে পছন্দ করেন। 

ইডিলওয়াইল্ডে ভ্রমণরত ভালাদেজ বলেন, ‘ম্যাক্স অসাধারণ একজন মেয়র। সে খুবই বন্ধুবৎসল এবং কিছুক্ষণ আগেই আমার কাছ থেকে খেয়েছে’। 

অন্যদিকে, ফিলিস ম্যুলার বলেন, ‘সে একজন সফল মেয়র কারণ তার কারণে তার এলাকার মানুষ আনন্দিত হয়, তাকে দেখলে সুখী হয় এবং তাকে সবাই ভালোবাসে’।