• মঙ্গলবার, এপ্রিল ০৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:২৮ রাত

বেলারুশিয়ান ভাষায় বাংলাদেশের কবিতা

  • প্রকাশিত ০৪:৩১ বিকেল অক্টোবর ১২, ২০১৮
বেলারুশিয়ান ভাষায় বাংলাদেশের কবিতা প্রকাশকারী বই
বেলারুশিয়ান লিটার্যা রি এন্ড আর্টিস্টিক পাবলিকেশন্স বাংলাদেশের কবিতাকে উৎসর্গ করে "ইয়ং"নামে একটি বই প্রকাশ করেছে। ছবি: ইউএনবি।

বইটিতে বাংলাদেশের জাতীয় কবি এবং বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের বিদ্রোহী কবিতাটির একটি অনুবাদও স্থান পেয়েছে

বেলারুশিয়ান লিটার‍্যারি এন্ড আর্টিস্টিক পাবলিকেশন্স বাংলাদেশের কবিতাকে উৎসর্গ করে "ইয়ং" নামে একটি বই প্রকাশ করেছে। গত বুধবার বেলারুশের তথ্য মন্ত্রণালয়ের একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই খবর প্রকাশ পেয়েছে।

বইটিতে বাংলাদেশের জাতীয় কবি এবং বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের বিদ্রোহী কবিতাটির একটি অনুবাদও স্থান পেয়েছে। বেলারুশিয়ান ভাষায় কবতাতির অনুবাদ করেছেন প্রতিভাবান বেলারুশিয়ান কবি মারিয়া কোবেট।

এছাড়াও এই কাজে ভাবানুবাদ করেছেন বেলারুশের রাজধানী মিনস্কে বসবাস এবং কর্মরত বাংলাদেশি নাগরিক মুজাহিদুল ইসলাম তুষার।

এর আগে আগস্ট মাসেও বেলারুশের সাহিত্য ও শিল্প বিষয়ক পত্রিকা লিটারেচার এন্ড আর্ট বিদ্রোহী কবিতাটির একটি বেলারুশীয় অনুবাদ প্রকাশ করেছিল। অই সময় কবিতাটির অনুবাদ করেছিলেন মিকোলা মেটলিটস্কি।

এ বিষয়ে বেলারুশের তথ্যমন্ত্রী অ্যালেস কার্ল্যুকেভিচ বলেন, "এটা বাংলাদেশ এবং বেলারুশের সাহিত্যিক আদান প্রদানের সবেমাত্র শুরু"। 

এ সময় তিনি বাংলাদেশের সাহিত্য অনুরাগীরাও অদূর ভবিষ্যতে বেলারুশের সাহিত্যের প্রতি আকৃষ্ট হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। বেলারুশের তথ্যমন্ত্রী বলেন, "আমরা বিশ্বাস করি আগামী বছরগুলোতে বেলারুশের সাহিত্যিকদের লেখা বই বাংলাদেশে আলোর মুখ দেখবে।" এসময় তিনি বেলারুশের বিভিন্ন বিখ্যাত কবি সাহিত্যিকদের নাম উল্লেখ করেন যার মধ্যে রয়েছেন নোবেলজয়ী সেতলানা আলেক্সিভিচ, ভ্যাসিল বায়কভ, ভ্লাদিমির ক্রোটোকেভিচ, ইয়াংকা কুপালা, ইয়াকুব কোলাস প্রমুখ। তিনি এসব লেখকের লেখা এক সময় বাংলাদেশি পাঠকদের আকৃষ্ট করবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

এছাড়াও ইয়ং নামক বইটিতে নোবেলজয়ী বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সোনার বাংলা কবিতাটিরও একটি অনুবাদ স্থান পেয়েছে। উল্লেখ্য, এই কবিতাটির সুরারোপিত রুপ বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত হিসেবে আখ্যা পেয়েছে।

প্রকাশিত ঐ বইয়ে বেলারুশের জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত তিনজন লেখক- মারিয়া কোবেট, নাউম গালপেরোভিচ এবং মিকোলা মেটলিটস্কির তিনটি কাজের বেলারুশীয় অনুবাদও স্থান পেয়েছে।

এছাড়াও বইটির মুখবন্ধে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের উপর একটি প্রবন্ধ লেখা হয়েছে।