• সোমবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৩৪ দুপুর

আধুনিক মানুষের ‘আদি বাসস্থান’ বতসোয়ানা!

  • প্রকাশিত ১১:৪০ সকাল অক্টোবর ৩০, ২০১৯
আদি মানুষ
সংগৃহীত

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার গার্ভান ইন্সটিটিউট অফ মেডিকেল রিসার্চের ভেনেসা হেইস নামে এক জিন বিজ্ঞানীর গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে

বর্তমানে পৃথিবীতে যত মানুষ বেঁচে আছে, তাদের আদি বাসস্থান চিহ্নিত করেছেন বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, বর্তমান পৃথিবীর সব মানুষের এক সময়ের বাসস্থান ছিল জাম্বেজি নদীর দক্ষিণের একটি এলাকায়। সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার গার্ভান ইন্সটিটিউট অফ মেডিকেল রিসার্চের ভেনেসা হেইস নামে এক জিন বিজ্ঞানীর গবেষণায় এতথ্য উঠে এসেছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি। 

ভেনেসা হেইস বলেন, ''এটা বেশ কিছুদিন ধরেই পরিষ্কার হয়ে গেছে যে, শারীরিকভাবে আধুনিক মানুষ প্রায় দুই লাখ বছর পূর্বে আফ্রিকায় দেখা যেতে শুরু করেছে কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে যা নিয়ে বিতর্ক চলছে, তা হলো ঠিক কোন স্থান থেকে এই মানুষদের দেখা যেতে শুরু করে এবং কেন আমাদের পূর্বপুরুষরা পরবর্তীতে আলাদা হয়ে ছড়িয়ে যায়।''

গবেষণাটিতে আরও বলা হয়েছে, বর্তমানে ওই এলাকা লবণের মরুভূমি হয়ে আছে কিন্তু একসময় এখানে বিশাল একটি হৃদ ছিল, যেখানে আমাদের পূর্বপুরুষরা দুই লাখ বছর আগে বসবাস করতেন। জলবায়ু পাল্টে যাওয়ার আগে পর্যন্ত, প্রায় ৭০ হাজার বছর ধরে সেখানে বসবাস করেছেন আমাদের পূর্বপুরুষরা। উর্বর সবুজ করিডোর উন্মুক্ত হওয়ার পর তারা সেখান থেকে সরে যেতে শুরু করে। এভাবে আফ্রিকার বাইরে পরবর্তী অভিবাসন প্রক্রিয়াটি শুরু হয়।

জাম্বেজি অববাহিকার দক্ষিণের একটি এলাকায় আমাদের পূর্বপুরুষের উৎপত্তির কথা বলা হচ্ছে, সেটি হলো যা উত্তর বোতসোয়ানায় অবস্থিত। গবেষকরা ধারণা করছেন যে, আমাদের পূর্বপুরুষরা আফ্রিকার বিশাল হৃদ ব্যবস্থার কাছাকাছি বাসস্থান তৈরি করেছিলেন, যাকে বলা হয় লেক মাকগাডিকাগাদি, যা বর্তমানে শুকিয়ে দিয়ে আঁকাবাঁকা লবণ মরুভূমিতে পরিণত হয়েছে।

অধ্যাপক হেইস বলেন, ''এটা সত্যিই বিশাল একটা এলাকা, তখন এটা হয়তো খুব আর্দ্র আর উষ্ণ ছিল।এটা তখন আধুনিক মানুষ ও আশেপাশের বুনো জীবজন্তুর জন্য একটি উপযুক্ত বাসস্থান তৈরি করে দিয়েছিল। সেখানে প্রায় ৭০ হাজার বছর বসবাসের পরে সেই মানুষরা অন্যত্র সরে যেতে শুরু করে। পুরো অঞ্চল জুড়ে বৃষ্টির ধারা পাল্টে যাওয়ায় ১ লাখ ৩০ হাজার বছর থেকে ১ লাখ ১০ হাজার বছর আগে তিন দফায় অভিবাসন হয়। তখন তাদের সামনে তৈরি হওয়া একটি সবুজ উর্বর করিডোর দিয়ে এই অভিবাসন সম্পন্ন হয়।”

তিনি আরও বলেন, “প্রথম দফার অভিবাসীরা উত্তর-পূর্ব দিকে যায়, পরের দলটি যায় দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে আর তৃতীয় দলটি তাদের পুরনো ঠিকানাতেই থেকে যায়, যারা এখনো সেখানে আছে।”

মায়ের দিক থেকে শিশুদের মধ্যে যে ডিএনএ আসে, সেরকম শত শত ডিএনএ নমুনা পরীক্ষা করে মানুষের পারিবারিক ইতিহাস বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য বের করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

কিন্তু সেই ডিএনএ-র জিনগত তথ্যের সঙ্গে ভূগোল, কম্পিউটারের মাধ্যমে জলবায়ুর তথ্য বিশ্লেষণ করে বিজ্ঞানীরা সেই সময়ে একটি চিত্র এঁকেছেন, ঠিক দুই লাখ বছর আগে আফ্রিকান মহাদেশ যেমন ছিল।