• সোমবার, জানুয়ারি ১৮, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৫৫ দুপুর

কোভিড: উৎপত্তি নিয়ে ধাঁধার উত্তর মেলেনি আজও!

  • প্রকাশিত ১০:৪২ রাত জানুয়ারি ১০, ২০২১
করোনাভাইরাস
প্রতীকী ছবি। বিগস্টক

বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা, করোনাভাইরাসের উৎস সম্পর্কে সুস্পষ্ট কোনো ধারণা লাভ করা সম্ভব হবে না কখনোই

বর্তমান সময়ে বৈজ্ঞানিক জগতের সবচেয়ে জটিল ধাঁধা বলে বিবেচনা করা যেতে পারে করোনাভাইরাসের উৎপত্তিকে। উৎপত্তির প্রায় এক বছর পরে এসে এ ধাঁধার সমাধানকে খুঁজে পাওয়াকে মনে হচ্ছে সুদূরপরাহত। বেইজিংয়ের অনাগ্রহতা, ভূরাজনৈতিক জটিলতা এবং সমন্বয়তার অভাবে ভরপুর একটি অনুসন্ধানী কার্যক্রমের পর এমনটাই আশংকা বিজ্ঞানীদের।

গতবছর ১১ জানুয়ারি চীনে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর খবর রেকর্ড করা হয়। মৃত্যুবরণকারী ওই ব্যক্তির বয়স ছিলো ৬১ বছর। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরের বিখ্যাত “ওয়েট মার্কেটে” তার নিয়মিত যাতায়াত ছিলো। এই “ওয়েট মার্কেটকে”ই করোনাভাইরাসের উৎস বলে ধারণা বিজ্ঞানীদের। 

করোনাভাইরাসের এখন পর্যন্ত সারা বিশ্বে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ২০ লক্ষ মানুষের। বিধ্বস্ত হয়েছে বৈশ্বিক অর্থনীতি। থমকে দাঁড়িয়েছে মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাত্রা। কোথায় এই ভাইরাসের উৎপত্তি? কী করেই বা বন্যপ্রাণীর দেহ থেকে মানুষের দেহে এলো এই জীবাণু? 

এই প্রশ্নের উত্তর অনুসন্ধানের চেষ্টায় সবচেয়ে বড় বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে চীনের অনাগ্রহতা। দেশে করোনাভাইরাস মহামারিকে সফলতার সাথে মোকাবিলা করতে সক্ষম হলেও ভাইরাসটির উৎপত্তি নিয়ে যেকোনো ধরণের 'নিরপেক্ষ তদন্ত'এর ব্যাপারে শুরু থেকেই অনীহা দেখিয়ে আসছে বেইজিং। 

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়, ২০১৯ সালে প্রথম ধরা পড়া এই ভাইরাসের উৎপত্তি চীনের উহানে অবস্থিত “ওয়েট মার্কেট” থেকে। এই মার্কেটটি বন্যপ্রাণীর মাংস বিক্রির জন্য জনপ্রিয়। এবং এই জীবাণুর উৎপত্তির এক অজানা প্রজাতির বাঁদুড় থেকে বলে ধারণা বিশেষজ্ঞদের। 

তবে এর উৎপত্তি নিয়ে ষড়যন্ত্রতত্ত্বও কম রচিত হয়নি। বেশ কয়েকটি অসমর্থিত সূত্রের দাবি, করোনাভাইরাসের উদ্ভব হয়েছে চীনের উহানের একটি ল্যাব থেকে। 

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ভাইরোলোজিস্টরা বলছেন, ভবিষ্যতে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকে ঠেকাতে এর উৎস খুঁজে বের করা এবং এ সম্পর্কে ধারণা লাভ করা প্রয়োজন। যা পরবর্তীতে নীতিনির্ধারনীতে প্রভাব ফেলবে। 

একটি বৈশ্বিক বেসরকারি সংস্থা ইকোহেলথ এলায়েন্সের প্রেসিডেন্ট পিটার ডাসজাকের মতে, করোনাভাইরাসের উৎস জানা গেলে এই প্রাদুর্ভাবের পিছনের কারণগুলোকে চিহ্নিত করার পাশাপাশি এদেরকে মোকাবেলা করাও সম্ভব হবে। 

বার্তা সংস্থা এএফপির মতে, করোনাভাইরাস মহামারির শুরুর দিনগুলো চীনের পদক্ষেপগুলো অত্যন্ত প্রশংসনীয় ছিলো। সময়মতো ভাইরাসের জিনোম সিকোয়েন্সিং করার পাশাপাশি, ভাইরাসটির সংক্রমণের হার নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে জানিয়ে আসছিলো বেইজিং। 

তবে, প্রাথমিকভাবে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এবং মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমণের দাবিকে সম্পূর্ণ নাকচ করে দেয় উহানের প্রশাসন। 

এর পরপরই, চীনের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয় যে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি উহানের “হুয়ানান সীফুড মার্কেট” থেকে।

পরবর্তীতে গত মার্চে, চীনের রোগ নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তের কর্মকর্তা গাও ফু জানান, উহানের এই মার্কেটটি করোনাভাইরাসের উৎপত্তি নয় বরং এই ভাইরাসের প্রভাবে সর্বপ্রথম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এই মার্কেট। যেখান থেকে ভাইরাসটি আরো ছড়িয়ে পড়েছে। 

যদিও পরবর্তীতে এ সংক্রান্ত তদন্ত কার্যক্রমে কোনো সাফল্য লাভ করতে পারেনি দেশটির বিশেষজ্ঞরা। 

এ বিষয়ে জর্জটাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের মহামারীবিদ ড্যানিয়েল লুসি বলছেন, "উহানের ওয়েট মার্কেট থেকে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি হওয়ার তথ্যগুলো বিশ্বাসযোগ্য নয়। ভাইরাসটি ২০১৯ সালের ডিসেম্বরেই চীনের উহানে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছিলো যা নির্দেশ করে এই ভাইরাসটির উৎপত্তি আরো আগে হয়েছে।"

তিনি আরো বলেন, "একটি ভাইরাস সংক্রামকে রূপ নিতে কয়েকমাস থেকে কয়েকবছর পর্যন্ত লাগতে পারে। এ থেকে ধারণা করা যায় ভাইরাসটির উৎপত্তি প্রাকৃতিকভাবে অনেক আগেই হয়েছে। হতে পারে সেটা কয়েকমাস কিংবা কয়েকবছর আগে।"

গতবছরের ডিসেম্বরে ভাইরাসটির উৎস অনুসন্ধানে ১০ জনের একটি বিশেষজ্ঞদল চীনে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। যদিও ভিসা সংক্রান্ত জটিলতায় তাদের অধিকাংশকেই চীনে ঢুকতে দেয়া হয়নি। 

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এরই মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ সব তথ্যপ্রমাণ ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে। 

এদিকে, ভাইরাসটির  সম্ভাব্য উৎপত্তিস্থল নিয়ে শুরু হয়েছে নতুন আলোচনা। কেউ কেউ দাবি করছেন চীনের উহানে নয় বরং ইউরোপ কিংবা ব্রাজিলে উৎপত্তি এই মহামারির। তবে এ বিষয়ে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ এখনো পাওয়া যায়নি। 

এমতাবস্থায় এই ভাইরাসের উৎস অনুসন্ধানে সাফল্য পাওয়ার আশা ফিকে হতে শুরু করেছে। একবছরের বেশি সময় পরে এসে এই ধাঁধার সমাধানকে মনে হচ্ছে সুদূরপরাহত। 

53
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail