• মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৯, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৬:৩৮ সন্ধ্যা

মঙ্গলগ্রহে গত এক মাসে তিনবার ভূমিকম্প, দাবি নাসার

  • প্রকাশিত ০৩:২৮ বিকেল সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১
মঙ্গল গ্রহ
সংগৃহীত

এ সম্পর্কে তাদের কাছে যথেষ্ট প্রমাণাদি রয়েছে বলেও জানান তারা

শুধু পৃথিবীই নয়, কখনও কখনও লাল মাটির মঙ্গলগ্রহও কেঁপে উঠে ভুমিকম্পে। ন্যাশনাল অ্যারোনটিকস অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (নাসা) বিজ্ঞানীদের দাবি, গত এক মাসে তিনবার ভূমিকম্পের মঙ্গল গ্রহের ভূমি কেঁপে উঠেছে। এ সম্পর্কে তাদের কাছে যথেষ্ট প্রমাণাদি রয়েছে বলেও জানান তারা।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিজেনেস ইনসাইডারের এক প্রতিবেদনে এ কথা জানা যায়।

প্রতিবেদনে  বলা হয়, মঙ্গলে গত এক মাসে হওয়া সবচেয়ে বড় ভূমিকম্পটি আঘাত হানে গত ১৮ সেপ্টেম্বর। বিগত ১০০০ দিনের মত মঙ্গলের শূন্য ধুলিকণার সমতল ভুমিতে বসে থাকা অবস্থায় নাসার ইনসাইট ল্যান্ডার মঙ্গলযানটির ভূমিকম্প নির্দেশক যন্ত্রে (সিসমোমিটার) ভূমিকম্প ধরা পড়ে। তবে আশ্চর্যজনক বিষয় হলো ৪.২ মাত্রার এই ভূমিকম্পের স্থায়িত্ব ছিল প্রায় দেড় ঘণ্টা।

নাসার বিজ্ঞানীদের কাছ থেকে জানা যায়, গত ২৫ আগস্ট মঙ্গলে ৪.২ এবং ৪.১ মাত্রার দুটি ভূমিকম্প অনুভূত হয়। যদিও সেগুলোর স্থায়িত্ব এতক্ষণ ছিল না।

প্রসঙ্গত, নাসার ইনসাইট ল্যান্ডার মঙ্গলযান ২০১৯ সালে ৩.৭ মাত্রার ভূমিকম্প রেকর্ড করেছিল। এতদিন ধরে এটিই ছিল মঙ্গল গ্রহে পর্যবেক্ষণকৃত সর্বোচ্চ মাত্রার ভূমিকম্প।

তবে ১৮ সেপ্টেম্বরের ভূমিকম্প ছারিয়ে গেছে আগের সবগুলো ভূমিকম্পকেই। ২০১৯ সালের সেই ৩.৭ মাত্রার ভূমিকম্পের চেয়ে সেটি পাঁচগুণ বেশি শক্তিশালী ছিল।

নাসার ইনসাইট ল্যান্ডারের  প্রধান তদন্তকারী ব্রুস ব্যানারড্ট এপ্রিল মাসে ইনসাইডারকে বলেন, "মনে হচ্ছে মঙ্গলে ছোট ভূমিকম্পের সংখ্যার তুলনায় অনেক বড় ও দীর্ঘস্থায়ী ভূমিকম্পের সংখ্যা বেশি। বিষয়টি রহস্যজনক।"

ইনসাইট মঙ্গলযানটি এখন পর্যন্ত সব মিলিয়ে ৭০০টিরও বেশি ভূমিকম্প রেকর্ড করেছে। বিজ্ঞানীদের ভাষ্যমতে, গ্রহাণুর প্রভাবে ভেঙে যাওয়ায় তাদের ধারণার চেয়েও মঙ্গলের ভূত্বক অনেক পাতলা। মঙ্গলের ভূত্বক শুষ্ক ও ভঙ্গুর হওয়ায় এখানে পৃথিবীর চেয়ে বেশিক্ষণ ভূমিকম্প হয়। 

মঙ্গল গ্রহে হওয়া এসব ভূমিকম্প সেখানের ভূমির বিভিন্ন রহস্য উন্মোচনে ভূমিকা রাখে। মানবদেহের বিভিন্ন বিষয় নিরূপণে যেমন এক্স-রে ও সিএটি স্ক্যান ব্যবহার করা হয়, তেমনি ভূতরঙ্গ বিশ্লেষণ করে মঙ্গল গ্রহের কোরের গঠন সম্পর্কে বিজ্ঞানীরা জানতে পারবেন।

মঙ্গলের অভ্যন্তরে আরও বিস্তারিত তথ্য পেলে গ্রহটির জন্ম এবং সময়ের পরিক্রমায় এর বিকাশ সম্পর্কিত তথ্য পাওয়া যেতে পারে বলে আশাবাদ বিজ্ঞানীদের। অন্য গ্রহে প্রাণের সন্ধানের ক্ষেত্রে এটি বিরাট ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করেন তারা। 

ব্রুস ব্যানারড্ট গত এপ্রিলে বলেন, "মঙ্গল গ্রহের দিকে এবং এর ভূত্বকের দিকে তাকিয়ে আমরা বুঝতে পেরেছি যে গত ৪.৫ বিলিয়ন বছরে এগুলোর খুব বেশি পরিবর্তন হয়নি। আমরা খুব তাড়াতাড়ি পৃথিবী দেখতে কেমন হতে পারে সে বিষয়ে একটি আভাস পেতে পারি। কিভাবে পাথুরে গ্রহ গঠিত হয় এবং কিভাবে তারা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বিবর্তিত হয় তা মঙ্গল গ্রহকে দেখে সহজে বোঝা যায়।"

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail