Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বাঘ শিকারে ব্যবহার করা হচ্ছে কেলভিন ক্লেইনের সুগন্ধি

সুগন্ধিটির মূল উপাদান হল সিভেট নামের একটি বিড়ালজাতীয় প্রাণীর গ্রন্থিরস যা বাঘকে আকৃষ্ট করে

আপডেট : ১০ অক্টোবর ২০১৮, ০৫:৪৬ পিএম

ভারতে বন্যপ্রাণী কর্তৃপক্ষ অভিনব উপায়ে নয়জন মানুষের হত্যাকারী একটি হিংস্র বাঘকে ধরার চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানা গেছে। তারা হিংস্র এই বাঘটিকে ধরার জন্য কেলভিন ক্লেইনের অবসেশন  নামক একটি সুগন্ধি ব্যবহার করছেন বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের একটি খবরে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, ৬ বছরের এই বাঘটি মহারাষ্ট্রের পান্ধারকাওয়াদা শহরের মানুষদের উপর চড়াও হয়। একে ধরার জন্য চালানো অভিযানে এর নাম রাখা হয়েছে টি১। এখনও পর্যন্ত বাঘটি ধরার জন্য নানা ধরণের চেষ্টা কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে চালানো হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে পাঁচটি হাতি আনা হয়। তবে ট্রাকে করে আনার সময় এই পাঁচটি হাতির একটি ছুটে বেরিয়ে যায়। এরপর হাতিটি তাঁর চলার পথে এক নারীকে পদদলিত করলে সাথে সাথেই ঐ নারীর মৃত্যু হয়।

এদিকে অভিযানের সাথে যুক্ত একজন বন্যপ্রাণী বণ্যপ্রাণী কর্মকর্তা সুনীল লিমায়ে জানিয়েছেন যে, তারা বাঘটি ধরার জন্য সুগন্ধি ব্যবহার করবেন কিনা তা চিন্তা করছেন। তবে, বাঘটি ধরার জন্য এই পদ্ধতি অবলম্বন করাও একটি বিকল্প উপায়। 

এর আগে ২০০৩ সালে নিউইয়র্কের ব্রংক্স চিড়িয়াখানায় একটি পরীক্ষার মাধ্যমে বাঘ ধরার টোপ হিসেবে কেলভিন ক্লেইনের কার্যকারিতা প্রমাণিত হয়। এই সুগন্ধিটির মূল উপাদান হল সিভেট নামের একটি বিড়ালজাতীয় প্রাণীর গ্রন্থিরস যা বাঘকে আকৃষ্ট করে। 

তবে, সুনীল জানান যে বাঘটি ধরার জন্য তারা এখনও পর্যন্ত ক্যামেরা ট্র্যাপ, ট্র্যাক মার্ক, থার্মাল ড্রোন এবুং পায়ের ছাপের উপরেই নির্ভর করছেন। তবে, এই পদ্ধতিতে কাজ না হলে তারা পারফিউম ব্যবহার করবেন।

উল্লেখ্য, এর আগেও কেলভিন ক্লেইনের সুগন্ধি ব্যবহার করে ভারতে বাঘ ধরা হয়েছে। সর্বপ্রথম ভারতে কেলভিন ক্লেইনের সুগন্ধি ব্যবহার করে বাঘ ধরেন বন্যপ্রাণী বিশেষজ্ঞ এইচ এস প্রয়াগ। 

তিনি বলেন, "২০১৫ সালে তামিলনাড়ুতে আমি প্রথম কেলভিন ক্লেইনের অবসেশন নামক সুগন্ধিটি ব্যবহার করি। এই বাঘটিকে ধরার জন্যও আমি একই পরামর্শ দেব। তবে, অবশ্যই আসল কেলভিন ক্লেইনের অবসেশন ব্যবহার করতে হবে। বাজারে যেগুলো পাওয়া যায় আমার ধারণা তা আসল নয়।

About

Popular Links