Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

২০০ কেজি সোনায় কারুকার্যমণ্ডিত হতে যাচ্ছে বিশ্বের ‘বৃহত্তম’ কোরআন

বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই পবিত্র কোরআন তৈরির কাজটি হাতে নিয়েছে স্বনামধন্য পাকিস্তানি ভাস্কর ও চিত্রশিল্পী শহীদ রাসাম

আপডেট : ০২ অক্টোবর ২০২১, ১০:১৭ পিএম

বিশ্বজুড়ে শ্রেষ্ঠ কাজগুলোর অঙ্কুরে সব সময় ছিল তার পেছনের মানুষগুলোর বিশ্বাস এবং জীবনবোধ। এর সাথে যুক্ত হয়েছিলো তাদের নিরন্তর প্রচেষ্টা যা মহাকাল জুড়ে চির অম্লান হয়ে আছে। ঠিক তেমনি এক ইতিহাসের জন্ম হতে যাচ্ছে বিশ্বের “সবচেয়ে বড়” পবিত্র কোরআন শরীফ তৈরির মাধ্যমে। এটি পূর্বের “সর্ববৃহৎ” পবিত্র কোরআন তৈরির সকল রেকর্ডকে ছাড়িয়ে যাবে বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের। ইতোমধ্যে পাকিস্তানের করাচীতে বিশাল টিম নিয়ে শুভ মহরতে কাজটি শুরু হয়ে গেছে। চলুন, বিস্ময়কর এই নির্মাণ শৈলীর ব্যাপারে বিস্তারিত জেনে নেই।

স্বর্ণখচিত বিশ্বের বৃহত্তম পবিত্র কোরআন নির্মাণ প্রজেক্ট

বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই পবিত্র কোরআন তৈরির কাজটি হাতে নিয়েছেন স্বনামধন্য পাকিস্তানি ভাস্কর ও চিত্রশিল্পী শহীদ রাসাম। এ প্রজেক্টটির আরেকটি বিশেষত্ব হলো, অ্যালুমিনিয়ামের উচ্চ মানের ক্যানভাসের উপর এই পবিত্র কোরআনের অক্ষরগুলো সোনা দিয়ে বানিয়ে বসানো হবে। ৫৫০টি পৃষ্ঠার জন্য প্রায় ২০০০ কেজি অ্যালুমিনিয়াম এবং ৮০ হাজার অক্ষরের জন্য প্রায় ২০০ কেজি সোনা ব্যবহার করা হবে। ফ্রেম ছাড়া ৬.৫ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৮.৫ ফুট প্রস্থের এই বিশাল পবিত্র কোরআনের প্রতিটি পৃষ্ঠায় ১৫০টি অক্ষর বসানো হবে।

পাঁচ বছর পূর্বে শুরু করা দুর্দান্ত এই হস্তশিল্পের কাজটি ২০২৫ সাল নাগাদ সম্পন্ন করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন শহীদ রাসামের টিম। পুরো প্রজেক্টের ব্যয়ভার শহীদ রাসাম নিজেই বহন করছেন। তবে এই মহৎ কাজটির সুষ্ঠুভাবে সমাধার জন্য তাঁর শুভাকাঙ্ক্ষী বন্ধুরাও তাকে সাহায্য করছেন।

১৪০০ বছরেরও অধিক সময়ের পুরনো ইসলামী ইতিহাসে এত বিশাল আকারের স্বর্ণখচিত পবিত্র কোরআন শরীফ এই প্রথমবার নির্মিত হতে যাচ্ছে।

স্বর্ণশোভিত বিশ্বের সর্ববৃহৎ পবিত্র কোরআন কারিগরেরা

চিত্রকর শহীদ রাসামের উপর চিত্রশিল্পের পৃষ্ঠপোষকদের আস্থা অপরিসীম। কেননা ভারত ও পাকিস্তানসহ যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, সংযুক্ত আরব আমিরাত, যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালিতে তার কাজ বহুল প্রশংসিত হয়েছে। তার সাথে এই প্রজেক্টে কাজ করছে ২০০ জনের একটি টিম এবং তারা সবাই এখন করাচীতে অবস্থান করছেন। এরা সবাই শহীদ রাসামের নিজ হাতে গড়ে তোলা দক্ষ কারিগর।

শহীদ রাসাম এর আগে এ্যালুমিনিয়াম ও সোনায় প্রলেপিত আল্লাহর ৯৯টি নাম লিখেছিলেন। তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতের আল আইন বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্ষসেরা চিত্রকর (২০০০) এবং ক্বায়েদ-এ-আযম ইয়থ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। বর্তমানে তিনি পাকিস্তানের করাচীতে আর্টস কাউন্সিল ইন্সটিটিউট অব আর্টস এ্যান্ড ক্র্যাফটস (এসিআইএসি) এ প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় পবিত্র কোরআন-এর প্রদর্শনী

সোনায় কারুকার্যমন্ডিত বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই পবিত্র কোরআন প্রদর্শিত হবে আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী “এক্সপো ২০২০ দুবাই”-এ। আন্তর্জাতিক এক্সপোটির আয়োজন করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই। দীর্ঘ ছয় মাসব্যাপী এই প্রদর্শনীটি চলবে ২০২১ এর ১ অক্টোবর থেকে ২০২২ এর ৩১ মার্চ পর্যন্ত। প্রথমে এর সময় ঠিক করা হয়েছিল ২০২০ এর ২০ অক্টোবর থেকে ২০২১ এর ১০ এপ্রিল। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে দিনক্ষণ পেছানো হয়।

শহীদ রাসাম বৃহত্তম এই পবিত্র কোরআন শরীফের সূরা আর রহমান প্রদর্শন করবেন এক্সপো ২০২০ দুবাই অনুষ্ঠানে। প্রজেক্টটি এক্সপো-এর পাকিস্তান প্যাভিলিয়ন থেকে দেখানোর কামনা ব্যক্ত করেছেন শহীদ রাসাম। কিন্তু এখন পর্যন্ত প্রদর্শনীর স্থানটি চূড়ান্ত হয়নি।

আশা করা হচ্ছে, প্রথমবারের মতো মধ্যপ্রাচ্যে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এই জমকালো অনুষ্ঠানটি প্রায় ২৫০ লাখেরও বেশি দর্শনার্থীদের সম্মুখে শিল্প ও বিনোদনের নতুনত্বের সম্ভার মেলে ধরবে।

পরিশিষ্ট

সোনায় কারুকার্যমন্ডিত বিশ্বের সবচেয়ে বড় পবিত্র কোরআন তৈরির এই কাজটি ইসলামী শিল্প ও সংস্কৃতি অঙ্গনে একটি ল্যান্ডমার্ক হয়ে থাকবে। এর আগে পবিত্র কোরআন শরীফ শুধুমাত্র কাপড়, কাগজ এবং পশুর চামড়ায় লেখা হতো। সেগুলোর সাথে সোনা ও এ্যালুমিনিয়ামের অভিনব সংযোজন পবিত্র কোরআন-ভিত্তিক শিল্পের এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন করবে। এরই ধারাবাহিকতায় শহীদ রাসাম-এর দেখানো পথ অনুসরণ করে আরও অভূতপূর্ব ও চমকপ্রদ শিল্পের উপস্থাপন হবে।

About

Popular Links