Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

মাঝসাগরে কনডম বাঁচাচ্ছে জেলেদের প্রাণ

তবে জীবন বাঁচানো এই কনডম আবার মাঝেমধ্যে বেশ বিপত্তিতে ফেলে জেলেদের। মোম্বাসা বলেন, "অনেক সময় কনডমগুলো ভুল করে আমাদের পকেটেই থেকে যায়। আর বাড়িতে সেটা দেখে ফেললেই সর্বনাশ।  'এই কনডম তোমার কাছে কেন? এগুলো দিয়ে কী কর'-এসব নিয়ে বউয়ের সঙ্গে ঝগড়া শুরু হয়ে যায়।"

আপডেট : ৩০ অক্টোবর ২০১৮, ১১:০৩ পিএম

কেনিয়ার বন্দর নগরী মোম্বাসার মৎস্যজীবীরা নিজেদের সুরক্ষার জন্য ব্যবহার করছেন কনডম। তবে সুরক্ষার বিষয়টি মোটেও গতানুগতিক উপায়ে এই গর্ভনিরোধকটি ব্যবহারের মতো না। বরং মাঝ সাগরে নিজেদের প্রাণরক্ষার জন্য জরুরি মোবাইল ফোনটি পানির হাত থেকে বাঁচানোর জন্য ব্যবহার করছেন সেটি।  

সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ নিয়ে কথা বলেছে আলি কিবওয়ানা মোয়াতেলা মোম্বাসা নামের একজন জেলের সঙ্গে। তিনি প্রতি সপ্তাহেই ট্রলার নিয়ে গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে যান।

মোম্বাসা বিবিসিকে জানান, প্রথমে নিজের টি-শার্টে ঘষে ঘষে কনডমের গায়ের পিচ্ছিল পদার্থটা তারা তুলে ফেলেন। তারপর সেই শুকনো কনডমটা দিয়ে জড়িয়ে নেন নিজের মোবাইল ফোন। পরে একটা গিঁট দিয়ে দেন। এভাবেই ফোন হয়ে যায় পানিনিরোধী। ফলে ভারত মহাসাগরের ঢেউ আছড়ে পড়লেও পানি ঢুকে মোবাইলগুলোর কোনো ক্ষতি হয় না।

মোম্বাসা আরও বলেন, 'আমাদের নৌকা প্রায়ই উল্টে যায়। কিন্তু কনডমে মোড়ানো থাকলে মোবাইলগুলোর কোনো ক্ষতি হয় না। আসলে আমরা গরিব মানুষ। বিপদে মোবাইলগুলো বাঁচানোর এই সহজ ও সস্তা উপায়টা আমরাই মাথা খাটিয়ে বের করেছি।'

'মোবাইল চালু থাকলে সাগর থেকেই ক্রেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়। একটা সময় ঠিক করে আমাদের মাছ এনে সৈকতে ক্রেতাদের কাছে বেচেও দিতে পারি। এমন কী নৌকাডুবি হলেও উদ্ধারকারী যানকেও মোবাইল থেকে সঠিক স্থানে পাঠাতে পারি। কাজেই কনডমই আমাদের মোবাইলগুলো বাঁচিয়ে দিয়েছে!'

মোম্বাসারই আর একজন মৎস্যজীবী জাফারি মাতানো। বছর কয়েক আগে সমুদ্রে তাদের নৌকা উল্টে যায়। এতে সঙ্গী আরও চারজন জেলে ডুবে গেলেও তিনি রক্ষা পেয়েছিলেন।

জাফারি বলেন, 'আমাদের নৌকা যখন উল্টে যায়, তখন গভীর রাত। বেলা ১১টা নাগাদ আমাদের তীরে এসে ভেড়ার কথা ছিল। প্রচণ্ড ঢেউয়ে নৌকার ছয় জেলেই আমরা পানিতে পড়ে যাই। চারজন মারা গিয়েছিল। সেদিন মোবাইল ফোন চালু থাকলে ওরাও হয়তো বেঁচে যেতে পারত।'

তবে জীবন বাঁচানো এই কনডম আবার মাঝেমধ্যে বেশ বিপত্তিতে ফেলে জেলেদের। মোম্বাসা বলেন, "অনেক সময় কনডমগুলো ভুল করে আমাদের পকেটেই থেকে যায়। আর বাড়িতে সেটা দেখে ফেললেই সর্বনাশ।  'এই কনডম তোমার কাছে কেন? এগুলো দিয়ে কী কর'-এসব নিয়ে বউয়ের সঙ্গে ঝগড়া শুরু হয়ে যায়।"


About

Popular Links