Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নিজের মূত্রই যার পানীয় আর ফেসওয়াশ!

মাতাদিন প্রতিদিন প্রায় ২০০ মিলিমিটার ‘টাটকা’ মূত্র পান করেন

আপডেট : ০১ মে ২০২২, ০৮:১৪ পিএম

সময় আর স্রোত কারও জন্য অপেক্ষা করে না। জীবের জীবন যেমন আছে তেমনই আছে জরা। বয়সকে খাঁচায় বন্দি করে রাখতে মানুষ কত কী না করে। কেউ বা রূপচর্চা, কেউ করে পালন করে কঠিন খাদ্যাভ্যাস কেউ আবার ছুরি-কাঁচির নিচে যেতেও পিছপা হন না। তবে, যত পরিশ্রম বা অর্থ খরচ করা হোক না কেন বয়স কখনও থেমে থাকে না। তবে, যুক্তরাজ্যের এক ব্যক্তি বয়সকে থামিয়ে রাখার জন্য অদ্ভুত এক “পানীয়” পান করেন।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে ইংল্যান্ডের হ্যাম্পশায়ারের ৩৪ বছর বয়সী হ্যারি মাতাদিনের কথা। তারুণ্য ধরে রাখতে তিনি নিজের মূত্র পান করেন।

শুনতে যতই খারাপ লাগুক, ২০১৬ সাল থেকে হ্যারির এই অভ্যাস চলে আসছে।

তার দাবি, উদ্ভট এই অভ্যাসটি তাকে শুধুমাত্র হতাশা থেকেই “নিরাময়” হতে সাহায্য করেনি বরং তার বয়সও ১০ বছর কমিয়ে দিয়েছে!

হ্যারির ভাষ্য, “মূত্র থেরাপি” শুরু করার পরে, তিনি শান্তি, প্রশান্তি এবং সংকল্পের একটি নতুন অনুভূতি অনুভব করেছেন।

সংবাদমাধ্যম জ্যাম প্রেসকে তিনি বলেন, “এটি আমার কল্পনার বাইরে ছিল। যে মুহূর্ত থেকে আমি মূত্র পান করেছি, এটি আমার মস্তিষ্ককে জাগিয়ে তুলেছে এবং আমার বিষণ্ণতা দূর করেছে। আমি শান্তি এবং সংকল্পের একটি নতুন অনুভূতি অনুভব করেছি।”

“আমি ভেবেছিলাম, বাহ! আমি বিনামূল্যে নিজেকে সবসময় সুখি রাখতে পারছি,” হ্যারি বলেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, হ্যারি মাতাদিন প্রতিদিন প্রায় ২০০ মিলিমিটার মূত্র পান করেন। তার প্রতিদিনের এই পানীয় হতে পারে তাজা অথবা এক মাস পুরনো।

হ্যারির দাবি, তার প্রস্রাব “অত্যন্ত পরিষ্কার” এবং তাজা প্রস্রাব প্রায়শ গন্ধহীন হয়, যা পান করতে ততটা খারাপ স্বাদের মনে হয় না।

তিনি আরও জানান, সাধারণত বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রস্রাব দুর্গন্ধযুক্ত এবং স্বাদ অত্যন্ত বাজে হয়। তবে, এর কার্যকারিতা বেশি।

হ্যারি বলেন, “প্রস্রাব আমাকে অনেক অল্পবয়সী দেখাতে সাহায্য করেছে। আমার যৌবনের সময় আবারও পুনরুজ্জীবিত করেছে।”

“প্রস্রাব আমার মুখে মালিশ করার পর আমার ত্বক তরুণ, নরম এবং উজ্জ্বল হয়েছে। তাই আমি এটি ছাড়া অন্য কোনো স্কিনকেয়ার ব্যবহার করি না,” তিনি যোগ করেন।

তবে, যুক্তরাজ্যের চিকিৎসক জেফ ফস্টারের মতে, নিজের প্রস্রাব পান করা বা ত্বকে ঘষার কোনো স্বাস্থ্য উপকারিতা নেই। বরং নিজের প্রস্রাব পান করা “শরীরের জন্য অনেক খারাপ” এবং এটি ডিহাইড্রেশন বা পানি শূন্যতা প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করতে পারে। এমনকি দেহে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াও সৃষ্টি করতে পারে।

About

Popular Links