Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নির্বাচনে পক্ষে না থাকায় যুবককে গাছে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ

ধামরাইয়ের ইউপি নির্বাচনে নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে শপথ নেওয়ার আগেই এ অভিযোগ উঠেছে 

আপডেট : ২৩ নভেম্বর ২০২১, ০৩:৪৮ পিএম

ঢাকার ধামরাই উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এক যুবককে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হাত-পা বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত চেয়ারম্যানসহ ৮ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

তবে পুলিশের পক্ষ থেকে আটকের বিষয়টি স্বীকার না করা হলেও হাজতে থাকা চেয়ারম্যানের একটি গোপন ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

সোমবার (২২ নভেম্বর) রাতে ধামরাই থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ওয়াহিদ পারভেজ এক যুবককে মারধরের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তবে অভিযুক্ত চেয়ারম্যানসহ ৮জনকে আটকের বিষয়টি এড়িয়ে যান তিনি। 

আটকেরা হলেন, বালিয়া ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মুজিবর রহমান ও তার ভাতিজা সিয়াম মিয়া, আব্দুল মজিদ, তার ছেলে সামছুল হক ও নাতি সিহাব, সূত্রাপুর মসজিদ কমিটির সভাপতি মজিবর রহমান, রাজন মিয়া, শামীম হোসেন, নাছিমা আক্তার এবং রাশেদা বেগম। 

জানা গেছে, ওইদিন দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের পূর্ব সূত্রাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ দুপুর ১টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছে ভুক্তভোগী নির্যাতিত ইসরাফিল হোসেনকে উদ্ধার করে ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। 

নির্যাতিত যুবকের ভাই রবিউল আউয়ালের অভিযোগ, তার ভাই ইসরাফিল একজন ইট ব্যবসায়ী। গত ইউপি নির্বাচনে সে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মজিবর রহমানের প্রতিপক্ষকে সমর্থন করেছিল। এরই জেরে দুপুর ১২টার দিকে চেয়ারম্যান মজিবর তার লোকজন পাঠিয়ে ইসরাফিলকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে তার ভাইকে সূত্রাপুর বাজারে হাত-পা বেধে লাঠি ও রড দিয়ে বেধরক পেটানো হয়। এসময় স্থানীয়দের খবরে পুলিশের ৪-৫টি গাড়ি উপস্থিত হলে চেয়ারম্যান এলাকার মসজিদে মাইকিং করে আতঙ্ক ছড়ায়। এমনকি যার যা আছে তাই নিয়ে বাজারে হামলা করতে বলে চেয়ারম্যান মজিবর। পরে পুলিশ চেয়ারম্যানসহ তার ৮-৯জন সহযোগীকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

ধামরাই থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) ওয়াহেদ পারভেজ বলেন, “বালিয়া ইউনিয়নে এক যুবককে হাত-পা বেধে বেধরক মারধর করা হয়েছে। আহত যুবককে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তবে আটকের বিষয়ে পরে জানানো হবে।” মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি।

About

Popular Links