Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পা ফাটা দূর করার সহজ উপায়

সাধারণত শীতকালে সবার পা ফাটে। তবে অনেকের শীতকাল ছাড়াও বছরের অন্যান্য সময় পা ফাটে। যে সময়ই পা ফেটে যাক না কেন মূলত সঠিকভাবে যত্নের অভাবেই পা ফাটে

আপডেট : ১৫ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৫৭ পিএম

শীতের শুষ্কতা ত্বকে নানা সমস্যা ডেকে আনে। সাধারণত শীতকালে সবার পা ফাটে। তবে অনেকের শীতকাল ছাড়াও বছরের অন্যান্য সময় পা ফাটে। যে সময়ই পা ফেটে যাক না কেন মূলত সঠিকভাবে যত্নের অভাবেই পা ফাটে। অনেকে সময়ের অভাবেও নিজেদের পায়ের যত্ন নিতে পারে না। পায়ের পাতা ফেটে যাওয়ার কারণের অনেকেই জটিল সমস্যায় ভোগেন। এমনকি চামড়া ফেটে গিয়ে রক্ত বের হওয়ার ঘটনাও ঘটে। তাদের ক্ষেত্রে শীতে কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। আর তাইতো পা ফাটার সমস্যা দূর করার সহজ কিছু উপায় জেনে নিন।

লবণ পানিতে পা ভেজানো:

অর্ধেক বালতি ঈষদুষ্ণ জলে এক চিমটি লবণ দিয়ে যদি পা ২০ থেকে ২৫ মিনিট ডুবিয়ে রাখা যায় তবে বেশ আরাম পাওয়া যাবে। শুধু যাদের পা ফাটার সমস্যা রয়েছে তাদের ক্ষেত্রে পা ভালো রাখতেও খুব কার্যকর লবণ পানি।

অ্যালোভেরা জেল ও অলিভ অয়েল ব্যবহার:

প্রতিবার পা ধোওয়ার পর অ্যালোভেরা জেল ও অলিভ অয়েলের একটি মিশ্রণ তৈরি করে পুরো পায়ে ভালো করে লাগিয়ে নিতে হবে। এতে পা ফাটার ভয় কমবে। সেইসঙ্গে পা হবে কোমল।

মোজা পরে থাকা:

শীত অল্প পড়লেও মোজা পরার অভ্যাস করতে হবে। কারণ এতে করে ঠাণ্ডা, দূষণ, ধুলোবালি সব কিছুর হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। মোজা যে শুধু পায়ের সুরক্ষা দেবে তা নয় পোশাকের সাথে মিলিয়ে মোজা পরলে নিজস্ব স্টাইলও তৈরি হবে।

ভিটামিন ই ক্যাপসুল ব্যবহার:

পা ভালো রাখতে সাহায্যকারী আরেকটি উপাদান হলো ভিটামিন ই ক্যাপসুল। সেজন্য কয়েকটি ভিটামিন ই ক্যাপসুল ফুটো করে তেলটুকু ফুটো করে নিন। এরপর সেই তেল পেট্রোলিয়াম জেলির সঙ্গে মিশিয়ে নিন। এবার মিশ্রণটি রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পায়ে মেখে মোজা পরে নিন। এতে পা তো ফাটবেই না, সেইসঙ্গে থাকবে নরমও।

স্ক্রাবিং:

বাজারে পিউমিস কিনতে পাওয়া যায়। পিউমিস দিয়ে পা স্ক্রাব করলে পায়ে সহজে ময়লা জমে না।

তেল ও ময়েশ্চারাইজারের ব্যবহার:

গোসলের পর পায়ের যত্নের দিকেও মন দিতে হবে। প্রতিদিন গোসলের পর পায়ে অবশ্যই ময়েশ্চরাইজার লাগিয়ে নেবেন। আবার বাইরে বের হওয়ার সময় পা ঢাকা জুতা পরার আগে ভালোভাবে ক্রিম মেখে মোজা পরে নিতে হবে। এতে ভালো থাকবে পা।

স্টেরয়েড ক্রিম লাগানো:

যদি এর পরেও পা ফাটা না কমে, তখন স্টেরয়েড ক্রিম দেন চিকিৎসকেরা। টানা এক বা দেড় মাস ওই ক্রিম লাগালে অনেকটাই উপকার পাওয়া যায়। তবে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কখনও এ ধরনের ক্রিম ব্যবহার করা উচিত নয়।

পা ফাটার এই সমস্যাগুলির অধিকাংশই আগেভাগে সতর্ক হলে এড়ানো সম্ভব। ওষুধ খাওয়ার মতো বাড়াবাড়ি পর্যায়ে তা খুব কম ক্ষেত্রেই পৌঁছায়। তবে পা ফাটা আদৌ চর্মরোগ না কি শীতের ফাটা, সে সম্পর্কে সচেতনতা জরুরি।

About

Popular Links