Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া লেগেই আছে? শান্তি বজায় রাখবেন যেভাবে

বাস্তবতা সবসময় আমাদের প্রত্যাশা মেনে চলে না

আপডেট : ০৩ অক্টোবর ২০২৩, ০৮:২১ পিএম

সুখে থাকার নির্দিষ্ট কোনো সংজ্ঞা হয় না। একেক জনের কাছে সুখের সংজ্ঞা একেক রকম। তবে বেশিরভাগ মানুষের মত হলো, সুখের আসল জায়গা সংসার। আর সংসার সুখের হয় দুজনার গুণে। অর্থাৎ, স্বা-স্ত্রী দুজনের মধ্যে বোঝাপড়া ভালো হলে সেখানে সুখ উপচে পড়ে। তবে, বাস্তবতা সবসময় আমাদের প্রত্যাশা মেনে চলে না। দৈনন্দিন জীবনের নানা চাপের বোঝাও বইতে হয় সংসারে। আর তা থেকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে নানা বিষয়ে ছোটখাটো মতবিরোধ দেখা দিতেই পারে। তা নিয়ে হতে পারে ঝগড়া। তবে এর দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব পড়ে সংসারে, নষ্ট হয় সুখ। তাই, এরকম পরিস্থিতি এড়াতে মেনে চলতে হবে কিছু কৌশল। চলুন, জেনে নেওয়া যাক সে সম্পর্কে-

একে অপরকে সময় দিতে হবে

সম্পর্কে একে অপরকে সময় দেওয়া জরুরি। দৈনন্দিন নানা সূক্ষ্ম বিষয়, একে-অপরের বক্তব্যকে গুরুত্ব দিতে হবে। দিনের একটা সময় নিজেদের আলাপচারিতার জন্য বরাদ্দ রাখতে হবে।

রোমান্স

সঙ্গীর সাধারণ চাওয়া-পাওয়ার বিষয়ে যত্নবান না হলে সম্পর্কের ভিতটাই নড়বড়ে হয়ে যায়। তাই একে অপরের মনে কী চলছে, তা জানা ভীষণ জরুরি। সঙ্গীর মন ভালো রাখাটাও জরুরি। সঙ্গীকে ছোটখোটো সারপ্রাইজ, সঙ্গীর প্রশংসা করা, মাঝেমধ্যেই দু’জনে কোথাও বেরিয়ে পড়া— এই ছোট ছোট বদল আনলেই কিন্তু সম্পর্ক মধুর হতে বাধ্য।

কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

আমরা সঙ্গীকে ধন্যবাদ দিতে কুণ্ঠা বোধ করি। প্রিয়জনকে কথায় কথায় ধন্যবাদ জানানোর দরকার নেই। তবে মাঝেমধ্যে এই কৃতজ্ঞতা প্রকাশ বা ধন্যবাদ জানানোর অভ্যাস সঙ্গীর মন ভালো করে দিতে পারে। তাই, আপনি যে তার প্রতি কৃতজ্ঞ, সেটা মাঝে মাঝে ভাষায় প্রকাশ করা জরুরি।

মিলেমিশে কাজ

একে অপরের সঙ্গে সময় কাটানোর পাশাপাশি একসঙ্গে কাজ করাও জরুরি। বাড়ির কাজ একে অপরের সঙ্গে মিলেমিশে করতে পারেন। দেখবেন সম্পর্কের জটিলতা অনেকটাই কেটেছে। শুধু বাড়ির কাজ নয়, একে অপরের সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য একসঙ্গে জিমে যাওয়া শুরু করতে পারেন, সুইমিং করতে পারেন। একে অপরের যত কাছাকাছি থাকবেন, ভুল বোঝাবুঝি ততই কমবে।

সঙ্গীর গুরুত্ব দেওয়া

সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে হলে সঙ্গীর ওপর নিজের মতামত চাপিয়ে দিলে চলবে না, সঙ্গীর মতামতকেও গুরুত্ব দিতে হবে। সঙ্গীর কোনো কাজ ভুল মনে হলে তাকে বুঝিয়ে বলুন, তবে নিজের কোনো সিদ্ধান্ত তার ওপর চাপিয়ে দেবেন না।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

About

Popular Links