• সোমবার, জুলাই ১৩, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১১ রাত

আঞ্চলিক ইস্যু দিয়ে সরকার ঘায়েলের ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছে আ. লীগ

  • প্রকাশিত ০২:০২ রাত মে ১৩, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট ০২:০৩ রাত মে ১৩, ২০১৮
আঞ্চলিক ইস্যু দিয়ে সরকার ঘায়েলের ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছে আ. লীগ

আওয়ামী লীগএবার আঞ্চলিক ইস্যুগুলো কাজে লাগিয়ে ষড়যন্ত্রকারীরা সরকারকে ঘায়েল করতে চায় বলে মনে করছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। দলটির শীর্ষ নেতাদের দাবি, জাতীয় বিভিন্ন ইস্যুতে ব্যর্থ হওয়ায় আঞ্চলিক ইস্যুগুলো নিয়ে মাঠে নেমেছে সরকারের বিরুদ্ধ শক্তিগুলো। শক্তিমান চাকমা হত্যাসহ দুই দিনের ব্যবধানে পার্বত্য অঞ্চলের হত্যাকাণ্ডগুলো সরকারবিরোধী ষড়যন্ত্রের অংশ বলে মনে করেন তারা। পাহাড়ে বিদ্যমান কোন্দল টার্গেট করে চক্রান্ত শুরু হয়েছে। এর সঙ্গে বিএনপির সম্পৃক্ততা রয়েছে বলেও দাবি করেন আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা।

আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারকেরা মনে করেন, আগামী জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার নতুন টার্গেট আঞ্চলিক ইস্যু।

পাহাড়ে কোন্দল রয়েছে— এ কথা স্বীকার করে আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারকেরা বলছেন, সেই কোন্দলের আগুনে ঘি ঢেলে ফায়দা হাসিল করতে মাঠে নেমেছে ষড়যন্ত্রকারীরা। জাতীয় নির্বাচনের আগে তাদের নতুন আরেক খেলা ‘পাহাড়ের অস্থিরতা’। যারা ইতোমধ্যে জাতীয় রাজনীতিতে ব্যর্থ হয়েছে তারা এখন কোথায় আঞ্চলিক ইস্যু আছে তা চিহ্নিত করছে। সেগুলোকে পুঁজি করে কীভাবে অস্থিরতা সৃষ্টি করা যায় সেই ছক কষছে।

তবে জানা গেছে, পার্বত্য অঞ্চলে এরই মধ্যে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে, খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। খুব শিগগিরই এ পরিস্থিতি সামাল দেবে সরকার।

আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারকরা জানান, ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ), পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (পিসিজেএসএস), জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা) ও নবগঠিত ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) দলের ভেতরে বোঝাপড়ায় গরমিল রয়েছে। জনসংহতি সমিতির (এমএন লারমা) সহ-সভাপতি ছিলেন শক্তিমান চাকমা। তিনি ছিলেন রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা চেয়্যারমানও। তাকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ইউপিডিএফের বিরুদ্ধে। নবগঠিত ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) দলের সভাপতি তপন জ্যোতি চাকমা। শক্তিমান চাকমার শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে গাড়িতে হামলা করে হত্যা করা হয় তাকেও। সেখানে হত্যার শিকার হয় আরও চারজন। এ হত্যাকাণ্ডেরও অভিযোগ উঠে ইউপিডিএফের বিরুদ্ধে।

ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বলছেন, পাহাড়ের পরিস্থিতির দিন দিন উন্নতি হচ্ছে, শান্তিচুক্তির সুফল পেতে শুরু করেছে পাহাড়িরা, ভূমি কমিশন বাস্তবায়ন হতে শুরু করেছে। এসব উন্নতি দেশি-বিদেশি অনেক শক্তি অপছন্দ করছে। আর সামনে নির্বাচন থাকায় দেশীয় শক্তিগুলো তা ভণ্ডুলে মাঠে নামছে। দুয়ে দুয়ে চার মিলে যাওয়ায় অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে পাহাড়ে হত্যাকাণ্ড ঘটেছে।

সরকারি দলের নীতি-নির্ধারকেরা বলছেন, পাহাড়ে অস্থিরতার হেতু কী, কারা এর সঙ্গে জড়িত, কারা উসকানি দিচ্ছে, তা খুঁজে বের করতে কাজ করছে সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। এরপরই উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘পাহাড়ের ঘটনা নিয়ে সরকারের বিভিন্ন সংস্থা কাজ করছে। কেন এসব হত্যাকাণ্ড? কার ইন্ধনে? এসব তদন্ত করা হচ্ছে। দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করে এ পরিস্থিতি নিরসন করা হবে।’

আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারকেরা বলেন, তাদের কাছে তথ্য রয়েছে দেশি-বিদেশি শক্তি এক হয়ে আঞ্চলিক ইস্যুগুলোর দিকে মনোযোগ দিয়েছে। জাতীয় ইস্যুগুলোতে সরকারকে পরাস্ত করতে না পেরে আঞ্চলিক ইস্যুগুলো কাজে লাগিয়ে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে চায়।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা মনে করি, এখানে সরকারবিরোধী দেশি-বিদেশি মহলের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ইন্ধন রয়েছে। এ দফায় তাদের টার্গেট পাহাড়। সেখানে অস্থিরতা সৃষ্টি করতে হত্যাকাণ্ডে মেতে উঠেছে।’ তিনি জানান, পাহাড়ের অস্থিরতা নিয়ে সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা কাজ করছে। তাদের তথ্যের ভিত্তিতে সরকার ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘পাহাড়ে অস্থিরতার একটি সুপরিকল্পিত প্রচেষ্ট এই হত্যাকাণ্ড। সরকারবিরোধী রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক শক্তিগুলো এক হয়ে আঞ্চলিক ইস্যুগুলো কাজে লাগাতে ষড়যন্ত্র করছে। দীর্ঘদিন পাহাড়ে শান্তি বিরাজ করছে, এটা এখন তাদের গাত্রদাহের কারণ।’

50
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail