• সোমবার, এপ্রিল ০৬, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০৪ রাত

আ.লীগের নির্বাচনী ট্রেন সফর

  • প্রকাশিত ১২:০০ দুপুর সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮
উত্তরবঙ্গের জেলাগুলোতে নির্বাচনী ট্রেন সফর করছে আওয়ামী লীগ।
উত্তরবঙ্গের জেলাগুলোতে নির্বাচনী ট্রেন সফর করছে আওয়ামী লীগ।ছবি : ইউএনবি

আওয়ামী লীগের এই সফর উপলক্ষে ঢাকা থেকে নীলফামারীগামী ‘নীলসাগর এক্সপ্রেস’ ট্রেনের একটি বগি রিজার্ভ করা হয়েছে।

সরকারের উন্নয়ন কাজ তৃণমূলে পৌঁছে দিতে এবং আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলোতে নির্বাচনী ট্রেন সফর করছে আওয়ামী লীগ।

আজ শনিবার সকাল ৮টায় কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে ছেড়েছে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ট্রেন। দলটির সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সফরকারী দলের প্রতিনিধিত্ব করছেন।

আওয়ামী লীগের এই সফর উপলক্ষে ঢাকা থেকে নীলফামারীগামী ‘নীলসাগর এক্সপ্রেস’ ট্রেনের একটি বগি রিজার্ভ করা হয়েছে।

দলটির এই ট্রেন যাত্রায় সাতজন কেন্দ্রীয় নেতা ও ২৬ জন গণমাধ্যমকর্মী দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সফর সঙ্গী হিসেবে আছেন।

নির্বাচনী ট্রেন যাত্রার শুরুতে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকারের উন্নয়ন কাজ তৃণমূলে পৌঁছে দিতে এবং দলকে শক্তিশালী করতেই উত্তরাঞ্চলে আওয়ামী লীগের ট্রেন সফর।

কাদের বলেন, দেশব্যাপী দলকে শক্তিশালী করতে ভবিষ্যতে নৌ ও সড়ক পথেও সফর করা হবে। তৃণমূলের মানুষ যাতে বিএনপি-জামায়াতের ‘গুজবের রাজনীতির’ বিষয়ে সচেতন থাকে সে বিষয়ে দলের এই সাংগঠিক কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। সফরে উত্তরের বিভিন্ন স্টেশনে ১১টিরও বেশি পথসভা করার কথা রয়েছে।

উদ্বোধনী বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এই যাত্রা আমাদের নির্বাচনী যাত্রা। এই যাত্রা আমাদের অব্যাহত থাকবে। আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর লঞ্চ যোগে নির্বাচনী সফর করব আমরা। এরপর সড়কপথে আমাদের চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ যাওয়ার কথা রয়েছে।’

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘ইতিমধ্যে আমরা রাজশাহী নির্বাচনী সফর করে এসেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন বার্তা তৃণমূলে পৌঁছে দেয়ার জন্যই আমাদের এই নির্বাচনী সফর। এই সফরের মাধ্যমে আমরা তৃণমূলের কিছু বার্তা দিতে চাই।’

কাদের বলেন, ‘সামনে নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতা পূর্ণ হবে। প্রস্তুতি সেভাবেই নিতে হবে। অভ্যন্তরীণ কোনো সমস্যা থাকলে তা নিরসন করা হবে। আমাদের এই যাত্রা তৃণমূল নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করবে।’

ট্রেন যাত্রার সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছেন আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। সফরের বিষয়ে তিনি বলেন, ঢাকা থেকে নীলফামারী যাওয়ার পথে টাঙ্গাইল, পাবনার ঈশ্বরদী, নাটোর, বগুড়ার শান্তাহার, জয়পুরহাট, আক্কেলপুর, দিনাজপুরের বিরামপুর, ফুলবাড়ি, পার্বতীপুর ও ননীলফামারীর সৈয়দপুর স্টেশনে পথসভা করা হবে।

সফররত আওয়ামী লীগ নেতারা জানান, স্বাভাবিক সময়ে ট্রেনের যাত্রাবিরতি তিন থেকে চার মিনিট হলেও পথসভা উপলক্ষে নীলসাগর এক্সপ্রেসের যাত্রাবিরতি হবে ১০ মিনিট। এই বিরতির ফাঁকেই উপস্থিত স্থানীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে নির্বাচনী বক্তব্য দেবেন ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী এই ট্রেন সফরে অন্যান্য নেতাদের মধ্যে আছেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বি. এম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, উপদপ্তর বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ।