• সোমবার, জানুয়ারী ২০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪৫ রাত

প্রথমদিনে যারা বিএনপির মনোনয়ন পেলেন

  • প্রকাশিত ১২:৩২ দুপুর নভেম্বর ২৭, ২০১৮
বিএনপি

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বগুড়া ও ফেনীর তিনটি আসনে মনোনয়নের চিঠি দেওয়ার মধ্যে দিয়ে ধানের শীষের প্রার্থীদের প্রত্যয়নপত্র দেওয়া শুরু করে দলটি

সোমবার (২৬ নভেম্বর) একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছে বিএনপি। প্রথম ধাপে দলটি বরিশাল, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের মনোনিত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করেছে। এই বিভাগ তিনটির বাইরের কয়েকটি জেলার প্রার্থীদের মনোনয়নের চিঠি দিয়েছে দলটি। 

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বগুড়া ও ফেনীর তিনটি আসনে মনোনয়নের চিঠি দেওয়ার মধ্যে দিয়ে ধানের শীষের প্রার্থীদের প্রত্যয়নপত্র দেওয়া শুরু করে দলটি। খালেদা জিয়া এবার ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৭ আসন থেকে মনোনয়ন নিয়েছেন। মনোনয়ন ফরমে স্বাক্ষর করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার বিকালে গুলশান কার্যালয়ে মনোনয়নের চিঠি বিতরণের মাধ্যমে এ কার্যক্রম শুরু হয়। মঙ্গলবার (২৭ নভেম্বর) সারাদিন চিঠি দেওয়ার কাজ চলবে বলে গুলশান অফিস সূত্রে জানা যায়।

প্রথম দিনে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছেন—

বরগুনা-১: মতিউর রহমান তালুকদার, নজরুল ইসলাম মোল্লা।

বরগুনা-২: নুরুল ইসলাম মনি।

পটুয়াখালী-১: আলতাফ হোসেন চৌধুরী, সুরাইয়া আখতার চৌধুরী।

পটুয়াখালী-২: শহীদুল আলম তালুকদার, সালমা আলম।

পটুয়াখালী-৩: হাসান মামুন, মো. শাহজাহান।

পটুয়াখালী-৪: এবিএম মোশাররফ হোসেন, মনিরুজ্জামান মুনির।

ভোলা-১: এই আসনের নীচে লেখা রয়েছে পার্থ। তিনি বিজেপির চেয়ারম্যান। এছাড়াও এই আসনে বিএনপির গোলাম নবী আলমগীর ও হায়দার লেলিনের নাম রয়েছে। যদিও এই আসনে কারো নাম ঘোষণা করা হয়নি।

ভোলা-২: হাফিজ ইব্রাহিম, রফিকুল ইসলাম মমিন।

ভোলা-৩: হাফিজউদ্দিন আহমেদ, মো: কামাল হোসেন।

ভোলা-৪: নাজিমউদ্দিন আলম, মো. নুরুল ইসলাম নয়ন।

বরিশাল-১: জহিরউদ্দিন স্বপন, আবদুস সোবহান।

বরিশাল-২: সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু, শহিদুল হক জামাল।

বরিশাল-৩: জয়নুল আবেদীন, সেলিমা রহমান।

বরিশাল-৪: মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ, রাজীব আহসান।

বরিশাল-৫: মজিবর রহমান সারোয়ার, এবায়েদুল হক চাঁন।

বরিশাল-৬: আবুল হোসেন খান, মো: রশিদ খান।

ঝালকাঠি-১: শাহজাহান ওমর।

ঝালকাঠি-২: রফিকুল ইসলাম জামাল, ইসরাত সুলতানা ইলেন ভুট্টো, জেবা খান।

পিরোজপুর-১: ব্যারিস্টার সরোয়ার হোসেন।

পিরোজপুর-২: জাতীয় পার্টি (জেপি), এটি ঘোষণা করা হয়নি।

পিরোজপুর-৩: রুহুল আমিন দুলাল, শাহজাহান মিয়া।

পঞ্চগড়-১: ব্যারিস্টার নওশাদ জমির, তৌহিদুল ইসলাম।

পঞ্চগড়-২: ফরহাদ হোসেন আজাদ ও নাদিয়া আক্তার।

ঠাকুরগাঁও-১: মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ঠাকুরগাঁও-২: মোহাম্মদ আব্দুস সালাম, মো: জুলফিকার মর্তুজা চৌধুরী তুলা।

ঠাকুরগাঁও-৩: জাহিদুর রহমান, জিয়াউল ইসলাম জিয়া।

দিনাজপুর-১:মনজুরুল ইসলাম ও মামুনুর রশিদ চৌধুরী।

দিনাজপুর-২: সাদিক রিয়াজ, মঞ্জুরুল ইসলাম।

দিনাজপুর-৩: জাহাঙ্গীর আলম, মোয়াজ্জেম হোসেন দুলাল।

দিনাজপুর-৪: মো. আক্তারুজ্জামান, হাফিজুর রহমান সরকার।

দিনাজপুর-৫: এ জেড এম রেজওয়ানুল হক, এসএস জাকারিয়া বাচ্চু।

দিনাজপুর-৬: মো. লুৎফর রহমান, অধ্যাপক মো. শাহিনুল ইসলাম শাহিন।

নীলফামারি-১: রফিকুল ইসলাম, ন্যান্সি আহমেদ কবির।

নীলফামারি-২: মো. শামসুজ্জামান (জামান), অ্যাডভোকেট কাজি আকতারুজ্জামান।

নীলফামারি-৩: ফাহমিদ ফয়সাল চৌধুরী।

নীলফামারি-৪: বেবি নাজনিন, আমজাদ হোসেন।

রংপুর-১ : কামরুজ্জামান বাবু, মোশাররফ হোসেন সুজন।

রংপুর-২: মোহম্মাদ আলী সরকার, ওয়াহিদুজ্জামান মামুন, মোজাফফর আলী।

রংপুর-৩: রিটা রহমান (পিপিবি), মোজাফর আহমদ।

রংপুর-৪: আমিনুল ইসলাম রাঙ্গা, খলিলুর রহমান, এমদাদুল হক ভরসা।

রংপুর-৫: সোলায়মান আলম, ডা. মমতাজ।

রংপুর-৬: সাইফুল ইসলাম।

কুড়িগ্রাম-১: সাইফুর রহমান রানা, শামীমা রহমান আকন্দ।

কুড়িগ্রাম-২: সোহেল হোসনাইন কায়কোবাদ, আবু বকর সিদ্দিক।

কুড়িগ্রাম-৩: তাজভীরুল ইসলাম, আবদুল খালেক।

কুড়িগ্রাম-৪: আজিজুর রহমান, মোখলেছুর রহমান।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১: মো. শাহজাহান মিয়া, বেলাল বাকী,

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২: আমিনুল ইসলাম, আনোয়ারুল ইসলাম।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩: আবদুল ওয়াহেদ, হারুনুর রশীদ।

রাজশাহী-১: আমিনুল হক, আতা হক।

রাজশাহী-২: মিজানুর রহমান মিনু, সাহিদ হাসান।

রাজশাহী-৩: শফিকুল হক মিলন, মতিউর রহমান মন্টু।

রাজশাহী-৪: আবু হেনা, মো. আবদুল গফুর।

রাজশাহী-৫: নাদিম মোস্তফা, নজরুল ইসলাম।

রাজশাহী-৬: আবু সাঈদ চাঁন, নুরুজ্জামান খান মানিক।

নওগাঁ-১: সালেক চৌধুরী, মোস্তাফিজুর রহমান, মাসুদ রানা।

নওগাঁ-২: শামসুজ্জামান খান, খাজা নজিবুল্লাহ চৌধুরী।

নওগাঁ-৩: রবিউল আলম বুলেট, পারভেজ আরেফীন সিদ্দিকী জনি।

নওগাঁ-৪: শামসুল আলম প্রামানিক, একরামুল বারী টিটো।

নওগাঁ-৫: জাহিদুল ইসলাম ধলু, নজমুল হক মনি।

নওগাঁ-৬: আলমগীর কবির, শেখ রেজাউল ইসলাম।

নাটোর-১: কামরুন নাহার শিরিন, তাইফুল ইসলাম টিপু।

নাটোর-২: রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সাবিনা ইয়াসমিন ছবি।

নাটোর-৩: মো. দাউদার মাহমুদ, অধ্য মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম আনু।

নাটোর-৪: আব্দুল আজিজ, মোজাম্মেল হক।

লালমনিরহাট-১: মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার হাসান রাজিব প্রধান।

লালমরিহাট-৩: আসাদুল হাবিব দুলু।

সিরাজগঞ্জ-১: রুমান মোর্শেদ কনক চাপা, মো. নাজমুল হাসান।

সিরাজগঞ্জ-২: ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, রুমানা মাহমুদ।

সিরাজগঞ্জ-৩: আব্দুল মান্নান তালুকদার, আয়নুল হক।

সিরাজগঞ্জ-৪: (জামায়াত) রেজাউল রহমান ও শামসুল আলম।

সিরাজগঞ্জ-৫: রকিবুল করিম খান, আমিরুল ইসলাম খান আলিম।

সিরাজগঞ্জ-৬: কামরুজ্জামান এহিয়া খান মজলিস, এম এ মুহিত।

পাবনা-১: সালাউদ্দিন খান পিপিএম।

পাবনা-২: একে এম সেলিম রেজা হাবীব , হাসান জাফির তুহিন।

পাবনা-৩: কে এম আনোয়ারুল, হাসাদুল ইসলাম হীরা।

পাবনা-৪: হাবিবুর রহমান হাবীব, সিরাজুল ইসলাম।

বগুড়া-১: মো. শোকরানা, কাজী রফিকুল ইসলাম।

বগুড়া-২: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা (নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক) মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপির শাহে আলম।

বগুড়া-৩: আব্দুল মমিন তালুকদার, মাসুদা মোমিন।

বগুড়া-৪: মো. মোশারফ হোসেন, জিয়াউল হক মোল্লা। ব

গুড়া-৫: গোলাম মো. সিরাজ, জানে আলম খোকা।

বগুড়া-৬: বেগম খালেদা জিয়া, মো. রেজাউল করিম, অ্যাডভোকেট একে এম

বগুড়া-৭: বেগম খালেদা জিয়া, মোর্শেদ মিলটন।

নোয়াখালী-১: ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, মামুনুর রশিদ।

নোয়াখালী-২: জয়নাল আবদীন ফারুক, কাজী মো. মফিদুর।

নোয়াখালী-৩: বরকত উল্লাহ বুলু, কাজী মাজহারুল ইসলাম।

নোয়াখালী-৪: শাহিনূর বেগম।

নোয়াখালী-৫: মওদুদ আহমদ। 

নোয়াখালী-৬: ফজলুল আজিম।

কবক্সবাজার-১: হাসিনা আহমেদ ।

কক্সবাজার-৩: লুৎফর রহমান কাজল।

কক্সবাজার-৪: মো. সালাহ উদ্দিন, শাহজাহান চৌধুরী।

রাঙ্গামাটি: দীপেন দেওয়ান ও মনি স্বপন দেওয়ান।

বান্দরবন: সাচিন ক্রু জেরি, উম্মে কুলসুম সুলতানা।

খাগড়াছড়ি: আব্দুল ওয়াদুদ ভূইয়া।

গাইবান্দা-১: খন্দকার আহাদ আহমেদ, মাহমুদুন্নবী টিটুল।

গাইবান্দা-২: এই আসনের নীচে লেখা আছে আব্দুর রশিদ সরকার যোগদান করতে পারেন।

গাইবান্দা-৩: ডা: মঈনুল হাসান সাদিক, মিসেস রওশনারা খাতুন।

গাইবান্দা-৪: ফারুক কবির আহমেদ, মো. ওবায়দুর হক সরকার।