• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০২ রাত

নৌমন্ত্রী: বিএনপির ২৫ জন প্রার্থী যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সদস্য

  • প্রকাশিত ০৭:০৬ রাত ডিসেম্বর ২, ২০১৮
নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান
রবিবার (০১ ডিসেম্বর) বিকেলে মাদারীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন।

'বিএনপির রাজনীতি জন্ডিসের রাজনীতি, তাই সবই তারা হলুদ দেখে'

আসন্ন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত ২৫ জন প্রার্থী চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সদস্য বলে মন্তব্য করেছেন নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। রবিবার (০১ ডিসেম্বর) বিকেলে মাদারীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নৌমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, "বাংলাদেশের মানুষ রাজাকার মুক্ত একটি সংসদ চায়। কিন্তু বিএনপির ২৫ জনের মতো প্রার্থী করেছে যারা চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের সন্তান ও জামায়াত ইসলামীর সদস্য। এতেই প্রমাণিত হয় যে, বিএনপি জঙ্গি-সন্ত্রাসদের দ্বারা আবারো পাকিস্তানি ভাবনায় একটি সন্ত্রাসী রাষ্ট্র বানাতে ষড়যন্ত্র করছে"।

বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খানের করা এক মন্তব্যের প্রেক্ষিতে শাজাহান খান বলেন, "নজরুল ইসলাম খান বলেছিলেন যে তারা কোন যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সদস্যকে ধানের শীষে প্রার্থী করবো না। কিন্তু মওলানা সাইদীর ছেলে শামীম সাইদী, জয়পুরহাটের আলীম সাহেবের ছেলে, চট্টগ্রামে সাকা চৌধুরীর ভাইসহ অনেকেই আছে যারা যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সদস্য। বিএনপি সব সময় মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য মিথ্যে কথা বলে যাচ্ছে"।

বিএনপির কড়া সমালোচনা করে নৌমন্ত্রী আরও বলেন, "বিএনপির রাজনীতি জন্ডিসের রাজনীতি। তারা যা দেখে সবই হলো খারাপ। সবই তারা হলুদ দেখে। নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় বলেই সিলেট, কুমিল্লায় সিটি নির্বাচনসহ কয়েকটি নির্বাচনেই বিএনপি বিজয়ী জয়। তাহলে সেটা কি?" 

নির্বাচনী আচারণবিধি নিয়ে তিনি বলেন, "প্রথমত আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নির্বাচনী আচারণবিধি ভঙ্গ করার কোন সুযোগ নেই। আমার বিধি মেনেই প্রচারণা চালাবো। দ্বিতীয়ত কারো প্রতি জোর করে আমরা নির্বাচনের বিজয় ছিনিয়ে আনবো না"। 

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন মাদারীপুর পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান মো. খলিলুর রহমান খান, সহকারী পুলিশ সুপার (অপারেশন) আনোয়ার হোসেন ভূইয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি জাহাঙ্গির কবির, জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর এমরান লতিফ প্রমুখ।