• সোমবার, অক্টোবর ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৩ রাত

সাংবাদিকদের ওপর হামলা: দোষ স্বীকার করে ক্ষমা চাইলো ছাত্রলীগ

  • প্রকাশিত ০৯:৪০ রাত সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ

জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) সংবাদ সংগ্রহ করার সময় তিন সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখা ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের হামলায় ছাত্রদলের ১১ কর্মী আহত হন।

বার্তা সংস্থা ইউএনবি জানিয়েছে, এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাশ ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (ডুজা) অফিসে গিয়ে সাংবাদিকদের কাছে ক্ষমা চান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘‘এটা আমাদের ব্যর্থতা, কিছু বিশৃঙ্খল ছাত্রলীগ কর্মী অপ্রত্যাশিতভাবে সাংবাদিকদের ওপর হামলা করেছে। আমাদের পক্ষ থেকে এরকম কোনো নির্দেশনা ছিল না, একারণে আমরা দুঃখ প্রকাশ করছি।’’

এঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘‘এটা একেবারে অপ্রত্যাশিত, ক্যাম্পাসের সাংবাদিকরা ছাত্রবান্ধব শিক্ষাঙ্গন বজায় রাখতে প্রধান ভূমিকা পালন করছে। আমরা তাদের সাথে সবসময় ভালো সম্পর্ক বজায় রাখতে চাই। বিশৃঙ্খল কর্মীরা আমাদের সংগঠনের দুর্নাম করছে। কিন্তু এটা আমাদের ব্যর্থতা এবং আমরা তাদের বিরুদ্ধে কঠিন ব্যবস্থা নেবো।’’

হামলায় সম্পৃক্ত থাকার কথা অস্বীকার করে ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাশ বলেন, ‘‘ঘটনার সময় আমি লাইব্রেরিতে ছিলাম, সংঘর্ষের কথা শুনে ঘটনাস্থলে আসি। এ অপ্রত্যাশিত ঘটনা সম্পর্কে আমরা জানতাম না। তারপরও এঘটনায় আমরা দুঃখ প্রকাশ করছি।’’

ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

ডুজা সভাপতি রায়হানুল ইসলাম আবির, সাধারণ সম্পাদক মাহাদি আল মাহতাসিম নিবির ও অন্যান্য সদস্যরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় ছাত্রদলের নতুন কমিটির নেতাদের স্বাগত জানাতে কর্মীরা জড়ো হলে হামলার ঘটনা ঘটে।

এসময় পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে যাওয়া তিন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদকের ওপরও হামলা চালায় ছাত্রলীগ।

আহত তিন সাংবাদিক হলেন- স্টুডেন্ট জার্নালের আনিসুর রহান, বিজনেস বাংলাদেশের নুরুল ইসলাম আফসার ও প্রতিদিনের সংবাদের রাহাতুল ইসলাম রাফি।