• শুক্রবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৬ রাত

আইনমন্ত্রী: অন্যায়কারীদের ধরার সাহস একমাত্র শেখ হাসিনারই আছে

  • প্রকাশিত ০৮:০৬ রাত সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৯
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক
বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত ‘ইনডেমনিটি: এক কালো অধ্যায়, ভুলিনি এবং ভুলবো না’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ফোকাস বাংলা

'তাদের দলের আরেকজন দুর্নীতির কারণে মুচলেকা দিয়ে বিদেশে পলাতক যাকে দুটো গালিও দিতে পারে না বিএনপি'

দলমত নির্বিশেষে অন্যায়কারীদের ধরার সাহস একমাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারই আছে বলে মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। বৃহস্পতিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত ‘ইনডেমনিটি: এক কালো অধ্যায়, ভুলিনি এবং ভুলবো না’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা বলেন বলে ইউএনবির একটি খবরে বলা হয়।

আনিসুল হক বলেন, "আজ বিএনপির লোকেরা ক্যাসিনো নিয়ে অনেক বেশি সোচ্চার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহস আছে অন্যায়কারীদের ধরার, সে যে দলেরই হোক। যারা দুর্নীতি করে, তাদের বিরুদ্ধে একমাত্র শেখ হাসিনাই ব্যবস্থা নিতে পারেন। তিনিই পারেন বাংলাদেশকে দুর্নীতিমুক্ত করতে।"

এসময় বিএনপি'র কঠোর সমালোচনা করে আইনমন্ত্রী বলেন, "যারা এতিমের টাকা মেরে খায়, সেই বিএনপি দুর্নীতিবাজদের বাদ দেয়ার সাহস করতে পারে না। তাদের দলের আরেকজন দুর্নীতির কারণে মুচলেকা দিয়ে বিদেশে পলাতক যাকে দুটো গালিও দিতে পারে না বিএনপি।" 

"আপনারা (বিএনপি) শুধু বড় বড় কথা বলতে পারেন। দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি আমাদের শেখাবেন না। তার কারণ হচ্ছে আপনাদের নেতা থেকে শুরু করে, আপনাদের দলের প্রত্যেকের মাথা পর্যন্ত দুর্নীতিতে ডুবে আছে। আমরা আপনাদের বিচার করছি বলেই আজকে আপনাদের এত চিল্লাচিল্লি।"

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সাথে জিয়াউর রহমানের জড়িত থাকার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে মন্ত্রী আরও বলেন, "কর্নেল ফারুক ও রশিদ যখন জিয়াউর রহমানকে গিয়ে বলেন যে তারা শেখ মুজিবকে হত্যা করতে চান, তখন জিয়াউর রহমান বলেছিলেন, আমি তো করতে পারব না, তোমরা করলে আমাদের অসুবিধা নেই। এটা খুনিরাই স্বীকার করে গেছেন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের অন্যতম ষড়যন্ত্রকারী জিয়াউর রহমান।"

বঙ্গবন্ধুর খুনের বিচার বন্ধে জারি করা ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ নিয়ে আনিসুল হক বলেন, "শেখ হাসিনা আইনের শাসন মানেন বলেই আইনের মাধ্যমেই ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ যে একটি কালো আইন সেটা প্রমাণ করার সুযোগ দিয়েছেন এবং প্রমাণ করেছেন। শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচার করিয়েছেন। জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার হয়েছে শেখ হাসিনার জন্য। যুদ্ধাপরাধী এবং মানবতাবিরোধী অপরাধ যারা করেছেন তাদেরও বিচার হয়েছে শেখ হাসিনার কারণে। আমরা দেখেছি যত অন্যায় আছে সবকিছুর বিচার কিন্তু শেখ হাসিনার আমলেই হয়েছে।"

সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন অভিনেতা ড. এনামুল হক, আজিজুল হাকিম, রিয়াজ, আমিরুল হক চৌধুরী, মান্নান হিরা প্রমুখ।