• রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৭ রাত

রেলওয়ের কাছে কৃষক লীগের ৩৮০টি ফ্রি টিকেটের আবদার

  • প্রকাশিত ০৯:৩৩ রাত অক্টোবর ২৫, ২০১৯
বাংলাদেশ কৃষক লীগ
বাংলাদেশ কৃষক লীগ

এ ব্যাপারে কৃষক লীগের চট্টগ্রাম উত্তর জেলা কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম জানান, তারা দরিদ্র কৃষক হিসেবে এই ফ্রি টিকেটের আবেদন করেছিলেন

আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ কৃষক লীগের জাতীয় সম্মেলনে যোগ দিতে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় আসার জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ের কাছে বিনামূল্যে ৩৮০টি টিকেট দেওয়ার অনুরোধ করেছে সংগঠনটি। 

বিবিসি বাংলা জানায়, গত ২০ অক্টোবর রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের প্রধান বাণিজ্যিক কর্মকর্তাকে (সিসিএম) উদ্দেশ্য করে চিঠি দেয় বাংলাদেশ কৃষক লীগ চট্টগ্রাম উত্তর জেলা কমিটি।

সংগঠনটির প্যাডে সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী এবং সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলামের স্বাক্ষরিত চিঠিতে এই ফ্রি টিকেটের আবেদন জানানো হয়।

আবেদনের সঙ্গে ১৯০ জন প্রতিনিধি ও পর্যবেক্ষকের নাম, পরিচয় ও মোবাইল ফোন নম্বরও সংযুক্ত করে দেওয়া হয়েছে।

আগামী ৬ নভেম্বর ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কৃষক লীগের এই জাতীয় সম্মেলন হওয়ার কথা রয়েছে। এতে চট্টগ্রাম থেকে ১৯০ জন প্রতিনিধি ও পর্যবেক্ষক যোগ দেবেন। তাদের এই যাওয়া আসার জন্যই রেলওয়ের কাছে তূর্ণা-নিশীথা এক্সপ্রেসের চট্টগ্রাম-ঢাকা-চট্টগ্রামের প্রথম শ্রেণির ফ্রি টিকেট চেয়েছে সংগঠনটি।

এদিকে, বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ কৃষক লীগ নেতাদের লিখিতভাবে জানিয়ে দিয়েছেন, বিনামূল্যে টিকেট সরবরাহের কোন নিয়ম নেই। তাই তাদের ফ্রি টিকেট দেওয়াও সম্ভব হয়নি।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, "কৃষক লীগের আবেদনটি আমরা পেয়েছি। রেলওয়েতে ফ্রি টিকেট দেওয়ার কোন ব্যবস্থা নেই। টিকেট পেতে হলে টাকা দিয়ে কিনতে হবে।"

রেলওয়ে সূত্রমতে, তূর্ণা নিশীথা ট্রেনের প্রথম শ্রেণীর প্রতিটি টিকেটের দাম ৭৩৫ টাকা। সেই হিসেবে ক্ষেত্রে ৩৮০টি টিকেটের দাম আসে ২ লাখ ৭৯ হাজার ৩০০ টাকা।

এ ব্যাপারে কৃষক লীগের চট্টগ্রাম উত্তর জেলা কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম জানান, তারা দরিদ্র কৃষক হিসেবে এই ফ্রি টিকেটের আবেদন করেছিলেন।

বিবিসিকে তিনি বলেন, "আমরা ক্ষমতাসীন দলের অঙ্গ সংগঠন, আমরা গরিব কৃষক। বেশিরভাগের আর্থিক অবস্থা ভাল না। ট্রেনের টিকেট কেনার টাকা নাই। তো এইজন্য আমরা লিখিতভাবে জানিয়েছি যে ফ্রি টিকেট দেয়ার কোন সিস্টেম আছে কিনা। আমরা চেয়েছি আমাদের ১৯০জনের যাওয়া আসার জন্য যেন একটা বগি দেয়া হয়।"

এদিকে প্রতিনিধি তালিকায় থাকা অনেকেই ট্রেনের টিকেট ফ্রি চাওয়ার বিষয়টিতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বলে জানা গেছে।

তাদের দাবি, তারা প্রত্যেকে ট্রেনের টিকেটের জন্য এক হাজার টাকা করে দিয়েছেন। তারপরও সংগঠনকে এভাবে হেয় করার ঘটনায় তারা ক্ষোভ জানান।