• শনিবার, জানুয়ারী ১৮, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৩৬ সকাল

খালেদাকে কারাগারে হত্যার ষড়যন্ত্র চলছে, অভিযোগ বোনের

  • প্রকাশিত ০৯:১৫ রাত জানুয়ারী ৫, ২০২০
খালেদা জিয়ার বোন সেলিমা ইসলাম
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ৫ জানুয়ারি চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যান তার বোন সেলিমা ইসলাম। ইউএনবি

দুর্নীতির মামলা সাজাপ্রাপ্ত হয়ে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে রয়েছেন খালেদা জিয়া

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার "দ্রুত অবনতি" হচ্ছে দাবি করে তার বোন সেলিমা ইসলাম অভিযোগ করেছেন, সরকার জামিন ও চিকিৎসা না দিয়ে সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীকে কারাগারে হত্যার ষড়যন্ত্র করছে।

রবিবার (৫ জানুয়ারি) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তার বোন খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে এ কথা বলেন সেলিমা ইসলাম। 

তিনি বলেন, "তার (খালেদা) শারীরিক অবস্থা খুবই সংকটাপন্ন। তার সুগার লেভেল এখন ১৮। হাত এবং পায়ে প্রচণ্ড ব্যথায় ভুগছেন। তার বাম হাতের অবস্থা আরও খারাপ হয়েছে।"

সেলিমা আরও বলেন, "মনে হচ্ছে তারা (সরকার) তাকে জামিন না দিয়ে হত্যার ষড়যন্ত্র করছে। তার অবস্থা এতটাই মারাত্মক যে তিনি উঠতে ও বসতে পারছেন না।"

"জামিন না দিয়ে তারা তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। তার এখন চিকিৎসার প্রয়োজন, কিন্তু এখানে (বিএসএমএমইউ) যথেষ্ট চিকিৎসা পাচ্ছেন না। যথাযথ চিকিৎসা ছাড়া তিনি কতদিন বাঁচবেন?"

সেলিমা দাবি করেন, শেষবার যখন তার বোনকে দেখেছেন তার চেয়ে এখনকার অবস্থা আরও খারাপ। তার হাত এবং আঙুল বেঁকে গেছে। হাঁটুর মারাত্মক ব্যথার কারণে নড়াচড়া করতে পারছেন না। হাঁটু ফুলে গেছে।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার কথা বলতে সমস্যা হচ্ছে, বমি বমি ভাব হওয়ার কারণে তিনি ঠিকমতো কিছু খেতে পারেন না। 

খালেদার বোন বলেন, আজ চিকিৎসকরা তাকে দেখে ওষুধ দিয়েছেন। কিন্তু ওষুধ কাজ করছে না। তার এখন উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তার পরিবার বিদেশে পাঠাতে চায় এবং এটা এখন তার জন্য খুবই প্রয়োজন।

এ সময় খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাতে কারা কর্তৃপক্ষ অনুমতি দেয় না বলে অভিযোগ করেন সেলিমা। তিনি বলেন, "আমরা কাছে আসলে তার তো একটু ভালো লাগে। কিন্তু আমরা যে দেখতে আসবো সেই অনুমতি তারা দিচ্ছে না। একমাস-দেড়মাস হয়ে যায় কোনো অনুমতি দেয় না।"

সেলিমা ছাড়াও খালেদা জিয়ার ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলী রহমান সিঁথি, কোকোর ছোট মেয়ে জাহিয়া রহমান এবং আরও তিনজন স্বজন দুপুর ২টা ৫০ মিনিটের দিকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যান। এক ঘণ্টারও বেশি সময় তারা সেখানে ছিলেন বলে জানান বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার।

দুর্নীতির মামলা সাজাপ্রাপ্ত হয়ে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে রয়েছেন খালেদা জিয়া। গত বছরের ১ এপ্রিল থেকে বিএসএমএমইউতে চিকিৎসাধীন তিনি।