• সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪০ রাত

সিটি নির্বাচন: বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়ায় ৬ জনকে কোপানোর অভিযোগ

  • প্রকাশিত ১০:২৩ রাত জানুয়ারী ২৫, ২০২০
সংবাদ সম্মেলন
শনিবার (২৫ জানুয়ারি) সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন (ক্র্যাব) মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ভুক্তভোগী মো. আসাদুল ও তার পরিবার। ঢাকা ট্রিবিউন

এই ঘটনায় বৃদ্ধাসহ একই পরিবারের ৬ জন আহত হয়েছেন

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৪২ নম্বর ওয়ার্ডে বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন করায় একই পরিবারের ৬ জনকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমের সমর্থকদের বিরুদ্ধে।

শনিবার (২৫ জানুয়ারি) সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন (ক্র্যাব) মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মো. আসাদুল নামে এক ব্যক্তি এই অভিযোগ করেন। 

সংবাদ সম্মেলনে আসাদুল বলেন, আগামী ২ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য সিটি নির্বাচনে ৪২ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আইয়ূব আনসার মিন্টুর সমর্থক তিনি। সততা ও যোগ্যতা বিবেচনায় তাদের পরিবার মিন্টুকে সমর্থন করে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে জাহাঙ্গীর আলম তার বাহিনী দিয়ে বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে আসছিলেন। সর্বশেষ গত ২২ জানুয়ারি রাত ১১ টার সময় জাহাঙ্গীর আলমের সমর্থক সহিবুর রহমান, ফয়সাল, বাদশা, কামাল, তাজ মোহাম্মদ ও নাদিমসহ একদল দুর্বৃত্ত পিস্তল, হকিস্টিক, রড, চাপাতি ও লাঠিসোটা নিয়ে তাদের বাড়িতে ঢুকে হামলা চালান। 

আসাদুল আরও বলেন, চাপাতি ও হকিস্টিকের আঘাতে তার ৭৬ বছরের বৃদ্ধা দাদী ফাতেমা বেগম, চাচা মাসুদুর রহমান, আজিজুল হক, ফুফু রুবিনা বেগম, ভাই রিপনসহ ৬ জন গুরুতর আহত হন। তারা ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। এই ঘটনায় তারা বাড্ডা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেয়া হলেও তার কোন সুফল পাননি। চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন আসাদুলের পুরো পরিবার। তারা নিজেদের নিরাপত্তা এবং ৪২ নম্বর ওয়ার্ডে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পারভেজ ইসলাম ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, "দুইপক্ষ পরস্পরের আত্মীয়-স্বজন। তাদের মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধ আছে। নতুন করে সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়া নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এবিষয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্তাধীন।"