Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কাদের: স্বাধীনতা চেয়ে, স্বাধীনতা এনে বঙ্গবন্ধু ভুল করেননি

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা শেখ হাসিনার কাছ থেকে শিখবো। এই পরিবার থেকে শিক্ষার আছে। আজ সততা, সাহসের জন্য কোথায় যেতে হবে না। কোনো মনীষীর নিবন্ধন পড়তে হবে না’

আপডেট : ১৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:৫৪ পিএম

আগস্ট মাসের পাকিস্তানের একটি পত্রিকার উদ্ধৃতি দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “পাকিস্তানের পত্রিকা এক্সপ্রেস ট্রিবিউন। সেখানে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করে একটি নিবন্ধন লিখেছিলেন দেশটির এক প্রদেশে সাবেক মুখ্যসচিব। সেখানে তিনি বলেছেন, ‘পাকিস্তানের তুলনায় ১৯৭০ সালে বাংলাদেশ ৭৫% দরিদ্র ছিল। কিন্তু এখন পাকিস্তানের চেয়ে ৪৫% ধনী'। স্বাধীনতা চেয়ে, স্বাধীনতা এনে বঙ্গবন্ধু ভুল করেননি।”

রবিবার (১৮ ডিসেম্বর) সকালে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভার স্বাগত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, “আজ পাকিস্তান আমাদের চেয়ে শক্তিশালী, এর পেছনে আর্থ-সামাজিক কোনো বিষয়ই নেই। শক্তিশালী কারণ, তাদের শ'খানেক পারমাণবিক বোমা আছে। আমাদের কাছে বিধ্বংসী বোমা নেই। এছাড়া অন্য কোনো অংশে পাকিস্তান আমাদের বিট করতে পারেনি। আত্মশক্তি হলো মূল কথা। সেই আত্মশক্তিতে আমরা আজ বলীয়ান একটা জাতি।”

তিনি আরও বলেন, “সারা পৃথিবীতে মহামন্দার তপ্ত বাতাস। এই তপ্ত বাতাসের আঁচ আমাদের এখানেও লেগেছে। তবে সংকটের মধ্যে শেখ হাসিনাই একমাত্র নেতা, যিনি সংকটকে সম্ভাবনার রূপ দিতে পারেন।”

কাদের বলেন, “এখন বাংলাদেশের জিডিপি ৪৪৩.৩২ বিলিয়ন। পাকিস্তানের ৩০৭.১৯ বিলিয়ন ডলার। পার ক্যাপিটাল ইনকাম বাংলাদেশের দুই হাজার ৮২৪, পাকিস্তানে ১৬৫৮। জিডিপি গ্রোথ ৭.৫% বাংলাদেশে, পাকিস্তানে ২%।”

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, “আমরা শেখ হাসিনার কাছ থেকে শিখবো। এই পরিবার থেকে শিক্ষার আছে। আজ সততা, সাহসের জন্য কোথায় যেতে হবে না। কোনো মনীষীর নিবন্ধন পড়তে হবে না। আমাদের জাতির পিতা থেকে আমরা শিক্ষা নেবো। এই জনপদে বঙ্গবন্ধু নেই, এই জনপদে শেখ হাসিনাও একদিন থাকবেন না। কিন্তু তাদের উত্তরাধিকার বেঁচে থাকবে। স্বাধীনতার উত্তরাধিকার বেঁচে থাকবে, বেঁচে থাকবে মুক্তির উত্তরাধিকার।”

সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন, শাহজাহান খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও সিমিন হোসেন রিমি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি বজলুর রহমান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির প্রমুখ।

সভা সঞ্চালনা করেন প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ এবং উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম।

About

Popular Links