Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

তথ্যমন্ত্রী: বিএনপির আমলে শ্রমিকদের গুলি করে হত্যা করা হয়েছে

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে’

আপডেট : ০১ মে ২০২২, ০৫:০৬ পিএম

বিএনপির আমলে আন্দোলন দমাতে শ্রমিকদের গুলি করে হত্যা করা হয়েছে আর আওয়ামী লীগ সরকার শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

রবিববার (১ মে) আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, “জননেত্রী শেখ হাসিনা শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন, মজুরি ৮ গুণ বৃদ্ধি করেছেন। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে শ্রমিকরা যখন তাদের অধিকার আদায়ের দাবিতে আন্দোলন করেছে, তাদের বিভিন্ন সময় গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। এটি হচ্ছে, বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে অন্যদের পার্থক্য।”

নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি প্রসঙ্গে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, “যেখানে ভোজ্য তেলের দাম ইউরোপে ৫০ শতাংশের বেশি বেড়েছে, খাদ্য পণ্যের দাম ৪০ শতাংশ-অনেক ক্ষেত্রে দ্বিগুণ হয়েছে, যুক্তরাজ্যে খাদ্য পণ্যের দাম ২৫ শতাংশের বেশি বেড়েছে, সুপার মার্কেটে নানা ধরনের খাদ্য পণ্যের সংকট দেখা দিয়েছে; সেখানে আমাদের দেশে সেটি হয়নি।”

তিনি বলেন, “এত বিশ্ব সংকটের মধ্যেও আমাদের দেশে জীবনযাত্রা নির্বিঘ্ন আছে। আজকে শ্রীলঙ্কা-ভারত-পাকিস্তানের দিকে তাকিয়ে দেখুন। পাকিস্তানে শহরাঞ্চলে ৬ ঘণ্টা লোডশেডিং, গ্রামে ৮ থেকে ১২ ঘণ্টা লোডশেডিং। সে ক্ষেত্রে আমাদের দেশ কোথায় আছে। প্রধানমন্ত্রীর নানা উদ্যোগের কারণে।”

বিএনপির সমালোচনা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, “জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন, তখন তিনি যাতে দেশে ফিরতে না পারেন সে জন্য সমস্ত প্রচেষ্টা জিয়াউর রহমান করেছিলেন। নানাভাবে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছেন। কিন্তু শেখ হাসিনা ঘোষণা করেছিলেন যে কোনো মূল্যে তিনি বাংলাদেশে আসবেন। তার এই দৃঢ়চেতা মনোভাব এবং আন্তর্জাতিক নানা প্রেসারের কারণে জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুকন্যাকে দেশে আসতে দিতে বাধ্য হয়েছিলেন।”

তিনি বলেন, “বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশে আসাকে কেন্দ্র করে বিমানবন্দরে যাতে লোক সমাগম না হয়, সেজন্য নানা প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা হয়েছিল। দেশে আসার পর তিনি ৩২ নম্বরের বাড়িতে গিয়ে একটি মিলাদ পড়াতে চেয়েছিলেন, জিয়াউর রহমান সেটির অনুমতি দেননি। অনুমতি না দেওয়ায় ৩২ নম্বরের বাড়ির সামনের রাস্তায় বসে শেখ হাসিনাকে বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্ট শহীদদের মাগফিরাত কামনা করে মিলাদ পড়াতে হয়েছিল। এই হচ্ছে জিয়াউর রহমান ও বিএনপি।”

About

Popular Links