Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

জনগণের জন্য রেশন চালুর প্রস্তাব কমিউনিস্ট পার্টির

  • অসহায় মানুষের সংখ্যা বাড়ছে
  • দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হচ্ছে সরকার
  • রাষ্ট্রীয় সহায়তায় ন্যায্যমূল্যের দোকান চালু করার দাবি
আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১০:৫৩ পিএম

দেশের জনগণের জন্য রেশন ব্যবস্থা চালুর প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্টি পার্টি (সিপিবি)। বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) ঢাকার পুরানা পল্টনের মুক্তি ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই প্রস্তাব দেয় সিপিবি।

এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সিপিবির কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য, অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক এম এম আকাশ।

বামপন্থী দলটি বলছে, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের লাগামহীন মূল্যবৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের জীবন অতিষ্ঠ। দিন দিন অসহায় মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। সরকার দাম বেঁধে দিয়েও দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হচ্ছে।

এম এম আকাশ বলেন, “বাজারে গেলে মানুষ এখন আর হাসিমুখে ঘরে ফিরতে পারেন না। প্রতিমুহূর্তে তিনি টের পাচ্ছেন যে তার টাকার দাম কমে গেছে। যে হারে দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি পেয়েছে, সে হারে আয় বৃদ্ধি পায়নি। ফলে বাজেট থেকে প্রথমে শখের পণ্য, পরে প্রয়োজনীয় পণ্য ছেঁটে ফেলে কায়ক্লেশে জীবন ধারণ করতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।”

লিখিত বক্তব্যে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণাপ্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) এবং সানেমের জরিপের ফলাফল তুলে ধরা হয়। যেখানে দেখা গেছে, কোভিড-১৯ সময়কালে যারা দারিদ্র্যসীমার নিচে নেমেছিলেন, তাদের সবাই এখনও দারিদ্র্যসীমার ওপরে উঠে আসতে পারেননি। তাই দেশ এখনও ২০% থেকে ৩০% দারিদ্র্যের হারের মধ্যে আছে। সরকারের কমিয়ে দেওয়া ২০% যদি হিসেবে ধরি, তাহলে এখন এই মুহূর্তে বাংলাদেশে প্রায় ৪ কোটি লোক প্রয়োজনীয় ক্যালরি খাবার পাচ্ছেন না। তাদের কথা সরকার, শাসকগোষ্ঠী ও মুনাফালোভীরা ভাবছে না।

অধ্যাপক এম এম আকাশ বলেন, “আমাদের দেশের ধনীরা বিদেশে ভোগ-বিলাস এবং শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা ক্রয়ে হাজার হাজার কোটি ডলার ব্যয় করছেন। কেউ কেউ বিদেশে বিনিয়োগ করে ডলার উপার্জনও করছেন, কিন্তু এগুলো কিছুই দেশে ডলারের রিজার্ভ বাড়াচ্ছে না। সরকার এক টাকার মেগা প্রজেক্টে তিন টাকা ব্যয় করছে। সে জন্য চীন, জাপান, ভারত, আইএমএফ থেকে প্রচুর ডলার ঋণ নিতে হচ্ছে।”

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, সরকার উদারভাবে জনগণের টাকা থেকে ঋণ নিয়েছে। ব্যক্তি খাতকেও বৃহৎ ঋণ দিয়েছে। সুদের হার দীর্ঘদিন নয়-ছয়-এ সীমাবদ্ধ রেখেছে। ৯% হারে ঋণ নিয়ে সেই ঋণ তারা শোধ করতে পারছে না, অনেকে শোধ করছেন না। ফলে খেলাপি ঋণ জমা হচ্ছে। নতুন উৎপাদনশীল ছোট পুঁজিপতিরা ঋণবঞ্চিত হচ্ছেন।

বর্তমান পরিস্থিতিতে সরকারের জরুরি করণীয় সম্পর্কে এম এম আকাশ বলেন, “আমাদের যে করেই হোক, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়াতে হবে ও প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি ও তার দক্ষ সরবরাহ অব্যাহত রাখতে হবে। এই মুহূর্তে অপ্রয়োজনীয় আমদানি কমালেও প্রয়োজনীয় আমদানি আমরা কমাতে পারব না। এবার আমরা ব্রিকসের ব্যাংকে যোগদান করেছি। এটা কিছুটা নতুন ঋণের নতুন উৎস খুলে দিতে পারে।”

“পক্ষান্তরে যদি আমরা ভুল বাজার নীতি ও কুশাসন, দুঃশাসন অব্যাহত রাখি, শ্রীলঙ্কার মতো ঋণের ফাঁদে পড়ে যাই, তাহলে আমাদের মতো বৃহৎ অর্থনীতির জন্য সেখান থেকে আর বের হয়ে আসা খুবই কঠিন হবে। তাই আজ আমাদের একটি দীর্ঘমেয়াদি বিদেশি ঋণ পরিশোধের ও শক্তিশালী রিজার্ভ গঠনের পরিকল্পনা তৈরি করে এগোনো দরকার।”

সংবাদ সম্মেলনে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য ১৩ দফা প্রস্তাব তুলে ধরা হয়।

এর মধ্যে আছে নিম্নআয়ের মানুষের জন্য, বিশেষত দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাসকারী পরিবারের জন্য স্থায়ী রেশনব্যবস্থা চালু করা। এজন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির কাছে ছবিসহ রেশন কার্ড দেওয়ার ব্যবস্থা করা। এই দরিদ্র মানুষদের জন্য রেশনে কন্ট্রোল দামে চাল, গম, তেল, ডাল, চিনি এবং প্রয়োজনমতো অন্যান্য অত্যাবশ্যক পণ্য সাপ্তাহিক ভিত্তিতে প্রদান করা।

পর্যায়ক্রমে পণ্যের সংখ্যা বাড়ানো। অন্য প্রস্তাবগুলোর মধ্যে আছে রাষ্ট্রীয় সহায়তায় ন্যায্যমূল্যের দোকান চালু করা, “উৎপাদক সমবায় সমিতি” গড়ে তোলা, কৃষকদের কৃষি উপকরণ ন্যায্যমূল্যে দেওয়া, পণ্য পরিবহনে দুর্নীতি বন্ধ করা, টিসিবিকে শক্তিশালী করা, খাদ্যদ্রব্যসহ অত্যাবশ্যকীয় দ্রব্যসামগ্রীর বাফার স্টক গড়ে তোলা, “ক্রেতাস্বার্থ সংরক্ষণ আইন” করা।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন সিপিবি সভাপতি মোহাম্মদ শাহ আলম ও সাধারণ সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স। এ সময় সিপিবির সহকারী সাধারণ সম্পাদক মিহির ঘোষ, প্রেসিডিয়াম সদস্য শাহীন রহমান, সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রেজা, কোষাধ্যক্ষ ফজলুর রহমানসহ কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

About

Popular Links