Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ফখরুলের আল্টিমেটাম: নজরদারি বাড়িয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (অপারেশনস) বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, আল্টিমেটামকে কেন্দ্র করে কেউ যদি কোনো ধরনের অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির পাঁয়তারা করে, তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৬:৪৭ পিএম

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের দিনক্ষণ যত এগিয়ে আসছে দেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক শিবিরে উত্তেজনা ততই বাড়ছে। এরসঙ্গে যুক্ত হয়েছে বৈদেশিক ও নানা আন্তর্জাতিক চাপ। দেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল নির্বাচন প্রশ্নে দুই মেরুতে অবস্থান করছে।

আওয়ামী লীগ বর্তমান সরকারের অধীনে সংবিধান মেনে নির্বাচন করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। অন্যদিকে বিএনপি সরকার পতনের এক দফা দাবিতে আন্দোলনরত। একইসঙ্গে দলটির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিও মুখ্য হয়ে উঠছে।

রবিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং বিদেশে তার চিকিৎসার সুযোগ দেওয়ার দাবি জানিয়ে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছেন।

ফখরুলের এই আল্টিমেটাম ঘিরে ঢাকাসহ সারাদেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। যদিও আওয়ামী লীগের নেতারা বিষয়টিকে “পলিটিক্যাল স্ট্যান্টবাজি” বলে দাবি করেছেন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) সূত্র জানায়, রাজনৈতিক কোনো আল্টিমেটামকে কেন্দ্র করে, কিংবা রাজনৈতিক কোনো বিষয়কে সামনে রেখে কেউ যদি কোনো ধরনের অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির পাঁয়তারা করে, তবে তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিষয়টি নজরদারিতে রাখা হয়েছে। এমনকি পুলিশ বাহিনীকে উসকে দিয়ে কেউ যেন ফায়দা নিতে না পারে, সে বিষয়েও মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে। ডিএমপির সংশ্লিষ্ট বিভাগের ডিসিদের তদারকি করতে  বলা হয়েছে।

সূত্র আরও জানায়, ফখরুলের দেওয়া আল্টিমেটাম মূলত সরকারের ওপর বিএনপির চাপ সৃষ্টির কৌশল। এছাড়া সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসানীতি প্রয়োগের ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপিও সরকারকে চাপে রেখে এর সুযোগ নিতে চাইছে। ভিসা নিষেধাজ্ঞার তালিকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য রয়েছে- এমন তথ্য উঠে ‌এলে্ও কারও নাম প্রকাশ না হওয়ায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মধ্যেই কিছুটা অস্বস্তি বিরাজ করছে। সব মিলিয়ে রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটকে সামনে রেখে কীভাবে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যায়, বল প্রয়োগ ছাড়া কীভাবে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা নিবৃত করা যায়, সেসব বিষয়ে মাঠ পর্যায়ে বাহিনীর সদস্যদের বার্তা পাঠানো হয়েছে।

যাদের বিরুদ্ধে মামলা কিংবা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি রয়েছে, তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়মিত দায়িত্ব। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির স্বাভাবিক রাখার অংশ হিসেবে ওয়ারেন্ট তামিল করাও বাহিনীর অন্যতম দায়িত্ব। পুলিশ সূত্রের ভাষ্য, যাদের রাজনৈতিক মামলায় গ্রেপ্তার করা হচ্ছে, তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি রয়েছে, সুতরাং এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া।

ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (অপারেশনস) বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, “আল্টিমেটামকে কেন্দ্র করে কেউ যদি কোনো ধরনের অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির পাঁয়তারা করে, তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

পুরো বিষয়টি পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে এবং গোয়েন্দা নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

About

Popular Links