Friday, June 14, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নয়াপল্টনে জড়ো হচ্ছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা

নয়াপল্টনে বিএনপির সমাবেশ থেকে ১.৭ কিলোমিটার দূরে বায়তুল মোকাররম মসজিদের দক্ষিণ গেটের সামনেও সমাবেশ করার কথা রয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের

আপডেট : ২৮ অক্টোবর ২০২৩, ১২:০০ পিএম

বিএনপির এক দফা দাবি মেনে নিতে সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টির লক্ষ্যে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হচ্ছেন বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

শনিবার (২৮ অক্টোবর) সকাল থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুল উপস্থিতিতে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হতে শুরু করেন দলটির নেতাকর্মীরা।

জ্যেষ্ঠ নেতাদের নির্দেশ অমান্য করে শুক্রবার বিকেলে কয়েক হাজার বিরোধী দলীয় নেতাকর্মী নয়াপল্টনে জড়ো হয়ে রাতভর অবস্থান করেন।

শনিবার সকাল ৯টার দিকে সমাবেশস্থলে গিয়ে দেখা যায়, শহরের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার নেতাকর্মী আসছেন। রঙিন টুপি, ব্যানার, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড ও দলের শীর্ষ নেতাদের প্রতিকৃতি হাতে নিয়ে তারা সমাবেশস্থলে এসে সরকারবিরোধী স্লোগান দিতে থাকেন। কাকরাইল থেকে আরামবাগ পর্যন্ত সড়ক ও গলি বিএনপি নেতাকর্মীদের উপচে পড়ায় ওই এলাকায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

দলের অনেক নেতাকর্মী অভিযোগ করেন, ঢাকার প্রবেশপথ ও বিভিন্ন স্থানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তল্লাশি ও ব্যারিকেডের সম্মুখীন হতে হয়েছে।

নির্দলীয় সরকারের অধীনে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবিতে “এক দফা” আদায়ে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি এই সমাবেশের আয়োজন করেছে। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আবদুস সালামের সভাপতিত্বে দুপুর ২টায় আনুষ্ঠানিকভাবে সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিএনপি ছাড়াও সমমনা অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও জোটও এক দফা দাবিতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে পৃথক সমাবেশের প্রস্তুতি নিয়েছে। নয়াপল্টনে বিএনপির সমাবেশ থেকে ১.৭ কিলোমিটার দূরে বায়তুল মোকাররম মসজিদের দক্ষিণ গেটের সামনেও সমাবেশ করার কথা রয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের।

অনেক সময় নেওয়ার পর অবশেষে শুক্রবার সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) ২০ শর্তে যথাক্রমে রাজধানীর বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেট ও নয়াপল্টনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি দেয়। তবে সবার নজর বিএনপির সমাবেশের দিকে, কারণ ধারণা করা হচ্ছে, দলটি রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ সরকারি অফিস অভিমুখে পদযাত্রা বা ঘেরাও করার মতো কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করতে পারে।

এছাড়া, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী শাপলা চত্বরে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে। তবে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সহিংসতা ও সংঘর্ষের আশঙ্কায় দলটিকে অনুষ্ঠানের অনুমতি দেওয়া হয়নি।

বিএনপির পাশাপাশি জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গণতন্ত্র মঞ্চ, বিজয়নগরে ১২ দলীয় জোট, পুরানা পাল্টান আল রাজি কমপ্লেক্সের সামনে জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট, জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য, আরামবাগে গণফোরাম ও পিপলস পার্টি, এফডিসির কাছে পূর্ব পান্থপথে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি,  পুরানা পাল্টানে লেবার পার্টি, কালভার্ট রোডে গণ অধিকার পরিষদ (রেজা কিবরিয়া), বিজয়নগরে গণ অধিকার পরিষদ (নূর), বিজয়নগরে এবি পার্টি, শাহবাগে সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ, জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী পেশাজীবী পরিষদ এবং মালিবাগে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (এনডিএম) সমাবেশ করার কথা রয়েছে।

About

Popular Links