Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘কোয়ার্টার ফাইনালে জিতে গেছি, ফাইনাল হবে জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘২৮ তারিখের পর নাকি শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকবেন না। কিন্তু তিনি তো এখানে বসে আছেন। এমআরটি-৬ আগারগাঁও-মতিঝিল লাইনের উদ্বোধনও করেছেন’

আপডেট : ০৪ নভেম্বর ২০২৩, ০৬:৩৪ পিএম

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, “কোয়াটার ফাইনাল হয়ে গেছে, আমরা জিতে গেছি। সামনে সেমি ফাইনাল, জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে ফাইনাল। ঠিক আছে? সব রেডি তো? বাংলার মানুষ ফাইনাল খেলার জন্য প্রস্তুত।”

শনিবার (৪ নভেম্বর) রাজধানীর আরামবাগে মেট্রোরেলের আগারগাঁও-মতিঝিল অংশের উদ্বোধন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের ঢাকা বিভাগীয় জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় জনসভার মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

২৮ অক্টোবর সরকার উচ্ছেদে বিএনপির আল্টিমেটাম প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, “২৮ তারিখের পর নাকি শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকবেন না। কিন্তু তিনি তো এখানে বসে আছেন। নির্ধারিত সময়ে এমআরটি-৬ আগারগাঁও-মতিঝিল লাইনের উদ্বোধনও করেছেন।”

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে নিয়ে তিনি বলেন, “হায় রে মির্জা ফখরুল, তিনি এখন টেলিভিশনও দেখবেন না। তাকে ওই দিন কেউ কেউ হরতাল ঘোষণার জন্য টেনে ধরেছিল। মাইকে প্রথমে অর্ধদিবস হরতালের ঘোষণা দিল। পরে আবার হাত মাইকে সারা দিন হরতাল বলে ঘোষণা দিল। এরপরেই দৌড়। পালাবার পথ নাকি আমরা (আওয়ামী লীগ) পাব না। এখন তাদের পালাবার পথ কোথায়?”

বিএনপি নেতা আমীর খসরু, গয়েশ্বর রায়সহ অন্যরা কোথায় প্রশ্ন রেখে ওবায়দুল কাদের বলেন, “এত সাহস, এত বীরপুরুষ। তারা এখন কোথায়? শেখ হাসিনা তো আছেন। কিন্তু বিএনপির খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।”

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, “আগামী নির্বাচনে এই জঙ্গিবাদী, সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে পরাজিত করে বঙ্গবন্ধুর কন্যাকে আবারও বিজয়ী করতে হবে। বাংলাদেশের গণতন্ত্র এদের হাতে নিরাপদ নয়। এরা ক্ষমতায় এলে বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করবে, রক্তের বন্যা বইয়ে দিবে, লাশের পাহাড় সৃষ্টি করবে।”

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফীর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন- আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য সাঈদ খোকন, আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

যৌথভাবে জনসভা সঞ্চালনা করেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচি, দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির ও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পনিরুজ্জামান তরুণ প্রমুখ।

About

Popular Links