Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

আওয়ামী লীগ ‘প্রতিশ্রুতি না রাখায়’ ভোটের মাঠ ছাড়লেন টাঙ্গাইলের জাপা প্রার্থী

জহিরুল ইসলাম জহির বলেন, আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টিকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনে এনেছিল তারা সে কথা রাখেনি। এখানে নির্বাচনের পরিবেশ নেই

আপডেট : ০৩ জানুয়ারি ২০২৪, ১২:১১ পিএম

আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীকে সমর্থন জানিয়ে টাঙ্গাইল-৭ (মির্জাপুর) আসনের জাতীয় পার্টির প্রার্থী জহিরুল ইসলাম জহির নির্বাচনের মাঠ থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা ও ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মীর এনায়েত হোসেন মন্টুকে সমর্থন দিয়ে মঙ্গলবার (২ জানুয়ারি) এই ঘোষণা দেন তিনি।

নির্বাচনের মাঠ ছেড়ে দেওয়ার বিষয়ে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী জহিরুল ইসলাম জহির বলেন, “আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টিকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনে এনেছিল তারা সে কথা রাখেনি। এখানে নির্বাচনের পরিবেশ নেই।”

বিএনপির বর্জনের মধ্যেই আগামী ৭ জানুয়ারি হতে যাচ্ছে দ্বাদশ জাতীয় সংসদের ভোট। আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটে থাকা জাপা এবার এককভাবে সব আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দেয়। তবে শেষ পর্যন্ত ২৬৫টি আসনে দলীয় প্রতীক দেয় তারা।

নবম সংসদ থেকে “আওয়ামী লীগের কাছে সমঝোতায় আসন নেওয়া জাপা” এবারও ২৬টি আসনে সমঝোতা করেছে। এই ২৬টি আসনে কোনো প্রার্থী রাখেনি আওয়ামী লীগ। বিএনপি না থাকায় নির্বাচনের মাঠের সুবিধা পাওয়ার কথা জাপার। তবে আওয়ামী লীগ এবার দরীয় নেতাদের “স্বতন্ত্র” হওয়ার স্বাধীনতা দেওয়ায় বেশ চাপে পড়েছে জিএম কাদেরের নেতৃত্বে থাকা জাপা। ফলে “সমঝোতার” আসনেও জয় নিয়ে শঙ্কা রয়েছে ৭% ভোটারের সমর্থন পাওয়া দলটির। দলটির শীর্ষ নেতা মুজিবুল হক চুন্নুর ভোটের পোস্টারে “আওয়ামী লীগ সমর্থিত” লেখা থাকায় তেমনটিই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা।

ভোটের মাঠে ব্যাপক হম্বিতম্বি করে প্রবেশ করা দলটির মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীরা বিভিন্ন আসন থেকে সরে যাচ্ছেন। এমনকি “সমঝোতার” ২৬ আসন ছাড়া অন্য আসনগুলোতে তাদের প্রচারণাও তেমন চোখে পড়ছে না বলে সংবাদমাধ্যমের খবরে আসছে। এ অবস্থায় টাঙ্গাইলের এই আসন থেকে ভোটের মাঠ ছাড়লেন তিনি।

টাঙ্গাইল-৭ আসনে ভোটের মাঠে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন দলটির স্থানীয় প্রবীণ নেতা ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মীর এনায়েত হোসেন মন্টু। তাকে সমর্থন দেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, “আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতাকর্মী দলীয় প্রার্থী নৌকার পক্ষে না থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থীর (মন্টু) পক্ষে কাজ করছেন। তাই এলাকার স্বার্থে প্রবীণ মীর এনায়েত হোসেন মন্টুকে সমর্থন জানিয়েছি।”

আগামী ৭ জানুয়ারি হবে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের ভোট। দলীয় ও স্বতন্ত্র মিলে এবার ১,৯৪০ জনের বেশি প্রার্থী রয়েছেন। এরমধ্যে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টিসহ অংশ নিচ্ছে ২৭টি দল। বিএনপি ও সমমনা দলগুলো ভোট বর্জন করেছে।

এবার ৩০০ সংসদীয় আসনে ভোটার রয়েছে ১১ কোটি ৯৬ লাখ ৯১ হাজার ৯৩৭ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬ কোটি ৭ লাখ ৭১ হাজার ৭২০ জন এবং নারী ভোটার ৫ কোটি ৮৯ লাখ ১৯ হাজার ৩৬৯ জন। আর হিজড়া ভোটার রয়েছেন ৮৪৮ জন।

About

Popular Links