Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

রাজনীতি থেকে অবসর নেওয়ার ইঙ্গিত দিলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'আমি এর বেশি আর (রাজনীতি) চালিয়ে যেতে চাই না।'

আপডেট : ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৩:০০ পিএম

একাদশ জাতীয় সংসদের মেয়াদ শেষে রাজনীতি থেকে অবসর নেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জার্মান সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলকে (ডিডাব্লিউ) দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমন ইঙ্গিত দেন তিনি। 

সংবাদমাধ্যমটিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শেখ হাসিনা বলেন, 'ধারাবাহিকভাবে এটা তৃতীয় মেয়াদ এবং এর আগেও আমি প্রধানমন্ত্রী ছিলাম (১৯৯৬ থেকে ২০০১), সুতরাং এটা আমার চতুর্থ মেয়াদ। আমি এর বেশি আর (রাজনীতি) চালিয়ে যেতে চাই না। আমি মনে করি, সবার বিরতি নেওয়া উচিত যাতে আমরা তরুণ প্রজন্মের জন্য স্থান করে দিতে পারি।'

এর আগে গত মঙ্গলবার গাজীপুরে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর (ভিডিপি) ৩৯তম জাতীয় সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অবসরের পর গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় নিজ গ্রামে গিয়ে থাকার ইচ্ছা আছে তার।

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৬৭ আসনে নিরঙ্কুশ জয় পায় শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ। পরে ১০ ফেব্রুয়ারী কিশোরগঞ্জ-১ আসনে পুনর্নির্বাচনেও জয় পায় দলটি। ফলে চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রিত্বের দায়িত্ব পান শেখ হাসিনা।  

প্রধান অগ্রাধিকার খাদ্য নিরাপত্তা

ডয়চে ভেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী বলেন তিনি ক্ষমতায় থাকাকালীন দারিদ্র্য ও খাদ্য নিরাপত্তার ওপর সবচেয়ে জোর দেওয়া হবে। 

শেখ হাসিনা বলেন, 'খাদ্য নিরাপত্তা, আবাসন, শিক্ষা, চিকিৎসা, কর্মসংস্থানের সুযোগ; এগুলো মানুষের মৌলিক চাহিদা। মানুষ অবশ্যই একটি ভালো জীবন চায়... আমাদের এগুলো নিশ্চিত করতে হবে।' 

দেশে একদলীয় শাসনব্যবস্থা নেই

বাংলাদেশে একদলীয় শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার চেষ্ঠা চলছে কিনা-এমন প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, 'এবার, আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা ২৬০ আসনে (৩০০ আসনের মধ্যে) জয় লাভ করেছে। সুতরাং, সংসদে অন্য দলগুলোও রয়েছে। এটা কীভাবে একদলীয় শাসন হতে পারে?'    

বিরোধী দলগুলো দূর্বল ছিল এমন অভিযোগ এনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'যদি নির্দিষ্ট দল মানুষের মনে জায়গা করে না নিতে পারে, তাদের বিশ্বাস অর্জন না করতে পারে এবং ভোট না পায়, তাহলে এটা কার দায়িত্ব? এটা আসলে তাদের দূর্বলতা তুলে ধরে।'

রোহিঙ্গাদের কর্মসংস্থা করা হবে  

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীরা যেন জীবিকার জন্য উপার্জন করতে পারে সে লক্ষ্যে তাদের কর্মসংস্থান করা হবে বলে সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন শেখ হাসিনা। 

ডয়চে ভেলকে তিনি বলেন, বঙ্গোপসাগরের উপকূলে ভাসানচরে ১ লাখ রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসন করা হবে। সেখানে আবাসস্থল তৈরি করা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের সেখানে কাজ দেওয়া হবে, যেন নারী-পুরুষরা উপার্জনের জন্য কিছু করতে পারে।

About

Popular Links