Saturday, June 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কাদের: আধার দিয়েছি, এখন রুই-কাতলা ধরা পড়বে

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নেত্রী যেটা বলেছেন, সেটা আমিও বলব। আধার দিয়েছি, এখন রুই-কালতা ধরা পড়বে’

আপডেট : ০৯ জুন ২০২৪, ০২:৫৬ পিএম

লুটপাট করতে নয়, বন্ধ করতেই এ বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, “দুর্নীতিবাজদের ধরতে নতুন করে আইন করার দরকার নেই। যে আইন আছে সেটা দিয়েই ধরা সম্ভব। নেত্রী যেটা বলেছেন, সেটা আমিও বলব। আধার দিয়েছি, এখন রুই-কাতলা ধরা পড়বে।”

রবিবার (৯ জুন) দুপুরে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলটির কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ, জেলা আওয়ামী লীগ এবং সব সহযোগী সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের যৌথসভা শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির অগ্নিসন্ত্রাস ও হুমকি মোকাবিলা করার জন্য ভবিষ্যতে অবশ্যই শান্তি সমাবেশ করতে হবে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, “আগামীতেও এ ধরনের হুমকি মোকাবিলায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগীরা সবাই আমরা প্রস্তুত।”

কালো টাকা প্রসঙ্গে ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, “কালো টাকা সাদা তো সাইফুর রহমান করেছেন, বেগম খালেদা জিয়াও করেছেন। আমি বলতে চাই না, বেগম জিয়া ও সাইফুর রহমান তাহলে দুর্বৃত্ত? এই বাজেট করা হয়েছে রাঘব-বোয়ালদের লুটপাট বন্ধ করার জন্য।”

বিএনপির সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, “বিএনপি যে লুটপাটের রাজত্ব সৃষ্টি করেছিল, দেশকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়েছিল, সেই অন্ধকার পথ থেকে এই দেশকে শেখ হাসিনা উদ্ধার করেছেন। লুটপাট করার জন্যও না। উল্টো লুটপাট আমরা বন্ধ করেছি। দু-একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটছে। তবে দুর্নীতিবাজদের বিচার করার সাহস বিএনপির ছিল না, শেখ হাসিনার আছে। লুটপাট করে কেউ পার পেয়ে যেতে পারবে না। এযাবৎকালে সেটা প্রমাণিত হয়েছে।”

নিজের লোককে শায়েস্তা করার সাহস বিএনপির নেই উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, “বুয়েটে সনি হত্যার বিচার কে করেছে? আর আবরার হত্যায় যে কয়েকজন মৃত্যুদণ্ড পেয়েছে সবাই ছাত্রলীগ বলে পরিচিত। বিশ্বজিৎ হত্যার বিচার কি হয়নি? তারা তাদের সময় তাদের দলীয় কোনো নেতার একটা বিচার করেছে?”

তিনি আরও বলেন, “আশরাফুল হুদা, রকিবুল হুদা, এসপি কোহিনূর এদের বিচার কে করেছে? বেনজীর, আজিজ সাহেবরা দুর্নীতি করে ছাড় পাবেন না। তারা আওয়ামী লীগের লোক নন। একজন পুলিশ আরেকজন সেনা অফিসার। কথা হচ্ছে দুর্নীতি করে কেউ ছাড় পেয়েছে কি-না? যেটা বিএনপি করেছে। আমরা ইম্পিউনিটি কালচার গড়ে তুলিনি।”

যৌথসভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এসএম কামাল জোসেন, মির্জা আজম, সুজিত রায় নন্দী, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খানসহ ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ, জেলা আওয়ামী লীগ এবং সব সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা।

About

Popular Links