Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

স্পট ফিক্সিং প্রসঙ্গে ম্যাক্সওয়েলের জবাব

তথ্যচিত্রটিতে এক ভারতীয় নাগরিক স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িত দু্ইজন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারের নাম বললেও প্রচারের সময় সম্পাদনা করে আড়াল করা দেওয়া হয় নাম দুটি।

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০১৮, ১০:২৬ পিএম

টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি যেটিকে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল তার ক্যারিয়ারের অন্যতম স্মরণীয় অধ্যায় হিসেবে মনে করেন। সেই অধ্যায়েই স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগে মর্মাহত এই অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান।

চলতি বছরের মে মাসে ক্রীড়া সম্পর্কিত দুর্নীতি নিয়ে টিভি চ্যানেল আল জাজিরা একটি তথ্যচিত্র প্রচার করেছিল। তথ্যচিত্রটিতে দাবি করা হয়েছিল, ২০১৭ সালের ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার রাঁচি টেস্ট ম্যাচে স্পট ফিক্সিং হয়েছিল এবং বলা হয়, অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানরা ম্যাচের একটি নির্দিষ্ট সময়ে জুয়াড়িদের বেঁধে দেওয়া গতিতে রান তুলেছে।

তথ্যচিত্রটিতে এক ভারতীয় নাগরিক স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িত দু্ইজন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারের নাম বললেও প্রচারের সময় সম্পাদনা করে আড়াল করা দেওয়া হয় নাম দুটি। কিন্তু, নাম প্রকাশ না করলেও যে সময়ের কথা বলা হয়েছে এবং ভিডিও ফুটেজে যা দেখা গেছে, তাতে, অভিযুক্ত দুই অস্ট্রেলিয়ানের একজন যে ম্যাক্সওয়েল তা অনেকটাই নিশ্চিত।

সম্প্রতি এসইএন রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ম্যাক্সওয়েল জানালেন, “আমি স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিলাম। একটু মর্মাহতও হয়েছিলাম। এমন একটি ম্যাচে এসবে জড়িত থাকার নিয়ে অভিযোগ তোলা হয়েছে, যেখানে আমার কেবল সুখস্মৃতিই আছে, অসাধারণ স্মৃতি… সেঞ্চুরি হওয়ার পর স্টিভেন স্মিথকে জড়িয়ে ধরার অনুভূতিটা আমার এখনও মনে পড়ে। এমন অভিযোগে সেই অনুভূতিকে নষ্ট করা ছিল ভয়ঙ্কর। আর এসবে বিন্দুমাত্র সত্যতা নেই। শতভাগ অন্যায় দাবি। আমার ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা মুহূর্তকে কলঙ্কময় করা ছিল খুব নিষ্ঠুর।”

টিভি চ্যানেলটি তখন বলেছিল, প্রচারের সময় নাম সম্পাদনা করা হলেও বিস্তারিত তথ্য তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানাবেন। এমনকি প্রচারের আগে ওই ফুটেজও নাকি ম্যাক্সওয়েলকে দেখানো হয়েছিল। তবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া বা আইসিসি থেকে তাকে কোনো জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হতে হয়নি। ম্যাক্সওয়েলের ধারণা, সরাসরি নাম নেওয়া হয়নি বলেই তাকে এখনও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়নি।

তদন্তের স্বার্থে আল জাজিরার কাছে সে সময় অসম্পাদিত ফুটেজ চেয়েছিল আইসিসি ও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। তবে টিভি চ্যানেলটি ফুটেজ দিতে রাজি হয়নি বলেই জানা গিয়েছিল। আইসিসি অবশ্য তথ্যচিত্রে তোলা বিভিন্ন অভিযোগ নিয়ে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে।


About

Popular Links