Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

অভিমানে জাতীয় দলকে বিদায় বললেন সেই পরিশ্রমী ফুটবলার

বছর তিনেক আগে রোজা রেখেই টটেনহামের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে মাঠে নেমেছিলেন এ উইঙ্গার

আপডেট : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৯:৫২ এএম

জাতীয় দল মরক্কোর হয়ে সর্বশেষ ম্যাচ খেলেছেন ৭ মাসেরও বেশি সময় আগে, কোচের সঙ্গে মনোমালিন্যে জায়গা হয়নি মরক্কোর আফ্রিকান নেশন্স কাপের (আফকন) স্কোয়াডে। আদৌ কবে আবার দলে জায়গা পাবেন, তারও কোনো নিশ্চয়তা নেই।

সব মিলিয়ে হাকিম জিয়েখের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের শেষ দেখতে পাচ্ছিলেন অনেকেই। শেষ পর্যন্ত সেটাই হলো, মাত্র ২৮ বছর বয়সেই জাতীয় দল থেকে অবসর নিয়ে আন্তর্জাতিক ফুটবল ক্যারিয়ারের ইতি টানলেন এ  উইঙ্গার।

এক প্রতিবেদনে এ কথা জানিয়েছে গোল ডট কম।

ফুটবল মাঠে জিয়েখ কেমন পরিশ্রমী আর কতটা নিবেদিত তা অনেকেই জানেন। বছর তিনেক আগে রোজা রেখেই টটেনহামের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে মাঠে নেমেছিলেন এ উইঙ্গার। ম্যাচের মাঝপথেই ইফতারের সময়ে তাৎক্ষণিক শক্তি জোগাতে খেয়েছিলেন এনার্জি জেল। এমনকি তার মিনিট দশেক পরে পেয়েছিলেন গোলের দেখাও।

কিন্তু তার মতো একজনের পরিশ্রমী খেলোয়াড়ই আত্মনিবেদনের অভাবে মরক্কোর কোচ ভাহিদ হালিলহোদচিচের চক্ষুশূল হয়েছেন। জাতীয় দলের হয়ে হাকিম জিয়েখকে শেষবার মাঠে দেখা গিয়েছিল গত বছরের জুনে বুর্কিনা ফাসোর বিরুদ্ধে প্রীতি ম্যাচে। সে ম্যাচের পর হালিলহোদচিচ বলেন, “শেষ দুই ম্যাচে বিশেষ করে সর্বশেষটিতে তার আচরণ জাতীয় দলের খেলোয়াড়ের মতো ছিল না। সে দেরিতে এসেছিল এবং তাকে দেওয়া কাজ করতেও রাজি হয়নি। এ বিষয়ে এর চেয়ে বেশি কিছু বলার নেই।”

মরক্কোর কোচ আরও বলেন, “সে ঠিকমতো অনুশীলন করতে এবং খেলতে চায় না। সব মিলিয়ে সে দলে ডাক পাওয়ার উপযুক্ত না। ভুলে গেলে চলবে না যে ৩ বছর আগের আফকনে সে ছিল সবচেয়ে সবচেয়ে সমালোচিত খেলোয়াড়। সে যদি লিওনে দলে না থাকে তো তাকে আমি ফিরতে অনুরোধ করব না।”

হাকিম জিয়েখ যে তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায়ও নেই তা আরও নিশ্চিত হয়ে যায় সদ্য শেষ হওয়া আফকনের সময়ে। টুর্নামেন্ট থকে মরক্কোর বিদায়ের পর হাকিম জিয়েখের বিষয়ে ভাহিদ হালিলহোদচিচ বলেছিলেন, “তার নাম যদি লিওনেল মেসিও হতো, তবুও তাকে আর ফেরানোর সুযোগ নেই।”

আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে নিজের অবসরের প্রসঙ্গে জিয়েখ বলেন, “আমি সবই বুঝতে পারছি। কিন্তু আমি মরক্কো জাতীয় দলে ফিরবো না এবং এটিই আমার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত। সেখানে (জাতীয় দলে) কী হচ্ছে এটি দিবালোকের মতো পরিষ্কার এবং আমি ক্লাব ফুটবলে পূর্ণ মনোযোগ দেবো।”

মরোক্কান এ উইঙ্গার আরও বলেন, “দিনশেষে আপনাকে কোচের সিদ্ধান্তকে সম্মান জানাতে হবে। আমার বিষয়ে তার সিদ্ধান্ত স্পষ্ট। আমি ভক্তদের ব্যাপারটিও বুঝতে পারছি। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে কিছু করার নেই।”

About

Popular Links