Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সুজন: যথেষ্ট হয়েছে, এখনই সাকিব ইস্যু থামানোর সময়

সাকিবের সম্মতিতেই দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের ওয়ানডে ও টেস্ট স্কোয়াডে তাকে রেখে দল ঘোষণা করেছিল বিসিবি। কিন্তু  বিজ্ঞাপনের শ্যুটিংয়ের জন্য দুবাইয়ে যাওয়ার আগে তিনি জানান, দক্ষিণ আফ্রিকায় খেলার মতো শারীরিক ও মানসিক প্রস্তুতি নেই

আপডেট : ০৮ মার্চ ২০২২, ০৮:৫৭ পিএম

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন বলেছেন, ‘‘এখন ফুল স্টপের সময় চলে এসেছে। দ্যাটস এনাফ। আপনি বিসিবিকে ডিকটেক্ট করতে পারেন না। আপনি বলতে পারেন না যে আমি খেলবো…খেলবো না। আপনি খেলতে চাইলে ঠিকমতো খেলুন। খেলতে না চাইলে বলে দিন। ব্রেক চাইলে পুরোপুরি ব্রেক নিন। কেউ আপনাকে আটকাবে না। প্রেসিডেন্টও এভাবেই বলতে চান। হয়ত উনি একটু আস্তে বলেছেন, আমি একটু উচ্চস্বরে।’’

টেস্ট খেলা নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় দলের অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে এসব কথা বলেন সুজন।

সুজন বলেন,  “তারা যদি অনুভব করে খেলার জন্য আগ্রহী না তো তারা নিজেদের ইচ্ছেটা বেছে নিক। কিন্তু একটা প্রক্রিয়ার মধ্যে যেতে হবে। সাকিব-তামিম একটা সিরিজ না খেললে ওই জায়গায় নতুন কাউকে সুযোগ দেওয়া হবে। আবার ওরা ফিরলে ওই ছেলেটার কী হবে?”

সাকিবের সম্মতিতেই দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের ওয়ানডে ও টেস্ট স্কোয়াডে তাকে রেখে দল ঘোষণা করেছিল বিসিবি। কিন্তু রবিবার রাতে বিজ্ঞাপনের শ্যুটিংয়ে অংশ নিতে দুবাইয়ে যাওয়ার আগে সাকিব জানান, দক্ষিণ আফ্রিকায় খেলার মতো শারীরিক ও মানসিক প্রস্তুতি নেই তার। তিনি খেলার মতো অবস্থায় নেই।

সাকিবের এমন অবস্থানের পর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া আসে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কাছ থেকে।


আরও পড়ুন- বিসিবি প্রধান: সাকিব মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হলে আইপিএল খেলতে চাচ্ছিল কেন?


এবার তার আচমকা এই অবস্থানে ভীষণ চটেছেন খালেদ মাহমুদ। তিনি মনে করেন দলের সিনিয়র সবাইকে ছাড়াই এগিয়ে যাওয়ার কথা ভাবার সময় হয়েছে,  “আমার মনে হয় এখন হাই টাইম, বোর্ডের একটা ফুলস্টপ করা উচিত। যথেষ্ট হয়েছে। বারবার এমন হতে পারে না যে, আমি চাইলাম খেললাম, চাইলাম খেললাম না। এখন শুধু সাকিবের কথা বলছি না, সবাইকে ছাড়াই ভাবার সুযোগ এসেছে।”

এর আগেও নানা কারণে জাতীয় দলের সিরিজ থেকে ছুটি নিয়েছেন সাকিব। সর্বশেষ নিউজিল্যান্ড সফরেও শুরুতে তার নাম ছিল। পরে সাকিব নিজেকে সরিয়ে নেন। তখন জানিয়েছিলেন পরিবারকে সময় দিতে তার যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া দরকার। অবশ্য বাংলাদেশ দল নিউজিল্যান্ড যাওয়ার পরও বেশ কয়েকদিন পরিবার ছাড়া দেশে বিজ্ঞাপনের শ্যুটিংয়ে ব্যস্ত ছিলেন এই শীর্ষ ক্রিকেটার।

সুজন আরও বলেন, “এখানে সাকিব না খেললেও কোনো সমস্যা না, আই ডোন্ট কেয়ার। আমি মনে করি বিসিবিও কনসার্ন না, আমরা চাই যে সাকিব খেলুক। কিন্তু ওর যদি মনে না চায় যে কোন এক ফরম্যাট খেলবো না বা দুই ফরম্যাটে খেলব না তো সে বলুক। একটা সময় আমিও ভয় পেতাম যে এই ছেলেগুলো না থাকলেও বাংলাদেশ দল কোথায় যাবে। কিন্তু এখন আমি আর ভয় পাই না।”

আইপিএলের নিলামের আগে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে টেস্ট সিরিজের সময়ে নিজেকে ফাঁকা রেখেছিলেন সাকিব। তার শুধু সেখানে ওয়ানডে সিরিজ খেলার কথা ছিল। কিন্তু আইপিএলে দল না পাওয়ায় পরিস্থিতি বদলে যায়। এ বিষয়েও কথা বলেন বিসিবির এই পরিচালক, “সাকিব যেহেতু আইপিএল খেলতে যাচ্ছে না তখন বলা হয়েছে তুমি কি টেস্ট খেলবে, সে বলেছে ইয়েস। তখন তার নাম দলে দেয়া হয়েছে। এখন দেখেন আইপিএলে যদি দল পেত, তাহলে খেলতে যেত না? বোর্ড কেন রিকোয়েস্ট করবে? এখানে বোর্ড ডিক্টেড করবে। কারণ সে চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটার।  সিনিয়র ক্রিকেটারদের প্রয়োজন অপরিসীম। কিন্তু ওদের ছাড়া দল হবে না এমন না।”

About

Popular Links