Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিশ্বকাপ ড্র: দুই গ্রুপে ধুন্ধুমার লড়াইয়ের আভাস!

শুক্রবার (১ এপ্রিল) আয়োজক কাতারের রাজধানী দোহায় এক জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ২০২২ বিশ্বকাপের ড্র অনুষ্ঠিত হয়

আপডেট : ০২ এপ্রিল ২০২২, ১২:৩৫ এএম

কাতারে ২০২২ বিশ্বকাপের পর্দা উঠতে এখনও ৭ মাসের বেশি সময় বাকি। কিন্তু গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ খ্যাত ফিফা বিশ্বকাপের দামামা বেজে উঠেছে ইতোমধ্যেই। অংশগ্রহণকারী দলগুলো যে এরই মধ্যে জেনে গেল কে কার বিরুদ্ধে মোকাবিলা করবে।

শুক্রবার (১ এপ্রিল) আয়োজক কাতারের রাজধানী দোহায় এক জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিশ্বকাপের ড্র অনুষ্ঠিত হলো। আর এতেই অংশগ্রহণকারী ৩২টি দল ৮টি গ্রুপে বিভক্ত হলো। যদিও বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের দৌড়ে এখনও ৩টি স্থানের জন্য ৭টি দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। তবে তাদের সম্ভাব্য উপস্থিতিকে বিবেচনায় নিয়েই সম্পন্ন হলো ড্রয়ের আনুষ্ঠানিকতা।

বিশ্বকাপের প্রতি আসরেই গ্রুপ পর্বের ড্র হওয়ার পর প্রশ্ন উঠে কোন গ্রুপটা এবার মৃত্যুকূপ। মৃত্যুকূপ বলতে গ্রুপের ৪টি দলেরই পরের পর্ব অর্থাৎ নকআউট রাউন্ডে যাওয়ার সমান সুযোগ এবং সম্ভাবনা থাকে। সেদিক বিবেচনায় এবার ই এবং এইচ গ্রুপকে বলা হচ্ছে গ্রুপপর্বের মরণফাঁদ।

ই গ্রুপে শীর্ষ বাছাই হিসেবে রয়েছে ২০১০ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন স্পেন। তাদের সঙ্গে রয়েছে ২০১৪ সালের শিরোপা জয়ী এবং চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। দুই ইউরোপিয়ান জায়ান্টের সঙ্গে রয়েছে এশিয়ান ফুটবলের পরাশক্তি জাপান। গ্রুপের অন্য দলটি হতে পারে কোস্টারিকা কিংবা নিউজিল্যান্ড। দুদলের মধ্যকার প্লে-অফ রাউন্ডের ম্যাচটিতে জয়ী দলই এই গ্রুপে জায়গা করে নেবে।

অন্যদিকে, এইচ গ্রুপের শীর্ষ বাছাই হিসেবে রয়েছে সদ্য প্লে-অফ বাধা পেরিয়ে আসা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল। তাদের গ্রুপসঙ্গী হিসেবে রয়েছে দুবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে। এছাড়া, আফ্রিকা থেকে ঘানা এবং এশিয়ান ফুটবলের বড় শক্তি দক্ষিণ কোরিয়া তাদের গ্রুপে রয়েছে।

পর্তুগাল তাদের ইতিহাসের অন্যতম সেরা স্কোয়াড নিয়ে এলেও গতবারে উরুগুয়ের কাছে হেরে শেষ ষোলো থেকে বিদায় নেওয়ার স্মৃতি তাদের অধিকাংশের মধ্যেই চাঙ্গা। গত বিশ্বকাপেই তৎকালীন ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জার্মানিকে গ্রুপ পর্বে বিদায় করে দিয়েছিল দক্ষিণ কোরিয়। আবার ২০০২ সালে এশিয়া মহদেশে অনুষ্ঠিত প্রথম ও একমাত্র বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল খেলেছিল কোরিয়ানরা। আর এর আগে তিনবার বিশ্বকাপে অংশ নিয়ে দুবারই গ্রুপর্বের বৈতরণী পেরোনো ঘানাও যে ছেড়ে কথা বলবে না, তা দিবালোকের মতো স্পষ্ট।


বিশ্বকাপ ইতিহাসের সফলতম দল ব্রাজিল যেন নিজেদের আবিষ্কার করেছিল ২০১৮ বিশ্বকাপে। চার বছর আগে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপের মতো এবারেও তাদের গ্রুপসঙ্গী হিসেবে রয়েছে দুই ইউরোপীয় দল সার্বিয়া ও সুইজারল্যান্ড। শুধুমাত্র গতবারের কোস্টারিকার জায়গাটা নিয়েছে অদম্য সিংহ খ্যাত ক্যামেরুন।

এদিকে, লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা বেশ সহজ গ্রুপেই পড়েছে। সি গ্রুপে আলবিসেলেস্তেদের প্রতিপক্ষ হিসেবে রয়েছে সৌদি আরব, মেক্সিকো ও পোল্যান্ড।

তুলনামূলক সহজ গ্রুপ পেয়েছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সও। ২০১৮ বিশ্বকাপের শিরোপাজয়ীরা গ্রুপসঙ্গী হিসেবে পেয়েছে ডেনমার্ক, তিউনিসিয়াকে। তাদের সম্ভাব্য অন্য গ্রুপসঙ্গী হবে পেরু,অস্ট্রেলিয়া কিংবা সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে কোনো একটি দল।

বিশ্বকাপের স্বাগতিক হওয়ার সুবাদে প্রথমারের মতো বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ আসরে অংশ নেওয়ার সুযোগ পেয়েছে কাতার। অনুমিতভাবেই এ গ্রুপের শীর্ষ বাছাই হিসেবে রয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। ওই গ্রুপের অন্য তিনটি দল  নেদারল্যান্ডস, সেনেগাল, ইকুয়েডর।

এছাড়া, নকআউট পর্বে জায়গা করে নিতে বি গ্রুপে গ্রুপ বি ইংল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, ইরান, ওয়েলস/স্কটল্যান্ড/ইউক্রেন এবং এফ গ্রুপে বেলজিয়াম, ক্রোয়েশিয়া, মরক্কো, কানাডা পরস্পরের মোকাবিলা করবে।

আগামী ২১ নভেম্বর স্বাগতিক কাতার ও ইকুয়েডরের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে ২০২২ বিশ্বকাপ। আর ১৮ ডিসেম্বর কোনো এক দলের হাতে শিরোপা স্বরূপ সোনালী ট্রফি ওঠার মাধ্যমে পর্দা নামবে এশিয়া মহদেশে আয়োজিত দ্বিতীয় বিশ্বকাপের।

আপাতত বিশ্বকাপের যাবতীয় লড়াই কাগজে-কলমে হলেও শেষ পর্যন্ত নিজেদের সক্ষমতার প্রমাণ দিতে হবে মাঠের লড়াইয়েই। তাতে দিনশেষে যারা শেষ হাসি হাসবে তারাই টিকে থাকবে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দৌড়ে। তাতে কি এবার পরাশক্তিগুলোই লড়াইয়ে থাকবে নাকি আন্ডারডগ হিসেবে কেউ চমকে দেবে? উত্তরটা তোলা থাকলো নভেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে শুরু হতে যাওয়া ফুটবলের বিশ্বযজ্ঞ পর্যন্তই।

About

Popular Links