Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

হাল্যান্ডের তাণ্ডবের পেছনে তবে গরুর হৃৎপিণ্ড-কলিজা?

নিজেকে সুগঠিত রাখতে প্রতিদিন প্রায় ছয় হাজার ক্যালরির খাবার খান হাল্যান্ড

আপডেট : ১১ অক্টোবর ২০২২, ০৭:২৮ পিএম

গ্রীষ্মকালীন দলবদলে ম্যানচেস্টার সিটিতে যোগ দেওয়ার পর থেকে দারুণ ছন্দে আছেন আর্লিং হাল্যান্ড। সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ইংলিশ ক্লাবটির হয়ে ১৩ ম্যাচ খেলে ২০টি গোল করে ফেলেছেন এই স্ট্রাইকার। এমনকি, ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের কয়েকটি রেকর্ডও নতুন করে নিজের নামে লিখে নিয়েছেন তিনি।

প্রতিপক্ষের গোলমুখের সামনে হাল্যান্ডের এমন বিধ্বংসী চেহারা দেখে অনেকেই হতবাক। এর মধ্যে নরওয়েজিয়ান স্ট্রাইকারকে প্রিমিয়ার লিগ এবং ইংল্যান্ড থেকে বিতাড়িত করতে পিটিশন দায়েরের ঘটনাও ঘটেছে। তবে যাই করা হোক না কেন, বর্তমান সময়ের স্ট্রাইকারদের মধ্যে হাল্যান্ডই যে এখন সবচেয়ে তুখোড় ফর্মে রয়েছেন তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

কিন্তু গোলের জন্য হাল্যান্ডের এমন খুনে মেজাজের পেছনে রহস্য কী? একটি হতে পারে তার দৈনন্দিন জীবনযাত্রা এবং খাদ্যতালিকা। আর সেসব নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে সামনে এলো, হাল্যান্ডের গোলক্ষুধার পেছনে অন্যতম অনুঘটক হিসেবে কাজ করেছে গরুর হৃৎপিণ্ড-কলিজা।

সম্প্রতি আর্লিং হাল্যান্ডকে নিয়ে দ্য বিগ ডিসিশন নামে একটি তথ্যচিত্র মুক্তি পেয়েছে। সেই তথ্যচিত্রে নরওয়েজিয়ান ফরোয়ার্ডের দৈনন্দিন জীবনযাত্রার বিভিন্ন বিষয় উঠে এসেছে। সেখানে জানা যায়, নিজেকে সুগঠিত রাখতে প্রতিদিন প্রায় ছয় হাজার ক্যালরির খাবার খান হাল্যান্ড। আর সেই খাবারের বড় অংশজুড়ে আছে গরুর হৃৎপিণ্ড আর কলিজা।


দ্য বিগ ডিসিশন নামের তথ্যচিত্রের একটি দৃশ্যে আর্লিং হাল্যান্ডকে বলতে দেখা যায়, “আপনারা তো এটা খান না। কিন্তু আমি আমার শরীরের যত্নের বিষয়ে সচেতন। আমার মনে হয়, স্থানীয় মানসম্পন্ন খাবার খাওয়া সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।”

নিজেকে ফিট রাখতে অনেক খেলোয়াড়ই নিজেদের দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় মাংস রাখেন না। বিশেষ করে ফুটবলারদের ক্ষেত্রে মাংস এড়িয়ে যাওয়ার বিষয়টি আরও বেশি লক্ষ্যণীয়। কিন্তু এক্ষেত্রে হাল্যান্ডের অবস্থান একদমই বিপরীত মেরুতে।

এ ব্যাপারে হাল্যান্ডের ব্যাখ্যা, মানুষ বলে, “মাংস খাওয়া নাকি স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ। কিন্তু কোন মাংস খাওয়া খারাপ? ম্যাকডোনাল্ড থেকে আপনি যে মাংস কিনে আনছেন সেটা? সেটা নাকি স্থানীয় ঘাস খেয়ে বেড়ে ওঠা গরুর মাংস? আমি মূলত গরুর গুর্দা আর কলিজা খাই।”

আর্লিং হাল্যান্ডের বাবা আলফি হাল্যান্ডও খেলোয়াড়ি জীবনে এক সময়ে ম্যানচেস্টার সিটির হয়ে খেলেছেন। যদিও হাঁটুর ইনজুরির কারণে তার ক্যারিয়ারের আয়ু অনেকটাই কমে গিয়েছিল। তবে সিটিজেনদের হয়ে ছেলের দুর্দান্ত ফর্ম দেখে হয়ত সেই কষ্ট অনেকটাই ভুলে গেছেন আলফি।

চলমান মৌসুমে সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ম্যানচেস্টার সিটির হয়ে ১৩ ম্যাচ খেলে ২০টি গোল করে ফেলেছেন হাল্যান্ড/টুইটার

ঘরের মাঠ ইতিহাদ স্টেডিয়ামে ম্যানচেস্টার সিটির প্রতিটি ম্যাচের আগেই বাবার রান্না করা লাসাগন খান আর্লিং হাল্যান্ড। চলমান মৌসুমে ঘরের মাঠে ম্যানচেস্টার সিটির হয়ে টানা তিন ম্যাচে হ্যাটট্রিকও করেছিলেন ২২ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকার। যদিও সাউদাম্পটনের বিপক্ষে ঘরের মাঠে সর্বশেষ ম্যাচে মাত্র একবারই গোলের দেখা পেয়েছেন হাল্যান্ড।

তবে ম্যাচের পরে হাল্যান্ডের দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় থাকা গরুর হৃৎপিণ্ড-কলিজা নিয়ে রসিকতার সুরে ম্যানচেস্টার সিটি কোচ পেপ গার্দিওলা বলেন, “পুরো দলের জন্য রান্না করতেই আমরা আর্লিং হাল্যান্ডের বাবাকে প্রস্তাব দিতে পারি। যদি এটিই (গরুর হৃৎপিণ্ড-কলিজা) হাল্যান্ডের দুর্দান্ত ফর্মের পেছনের রহস্য হয়, তাহলে আমি তাকে এখানে আনতে চেয়ারম্যান খালদুন আল মুবারককে রাজি করাব!”

এছাড়া, নিজেকে ফিট রাখতে প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে রৌদ্রস্নান করার পাশাপাশি সারাদিনের পান করা পানির পরিশোধনের বিষয়টিও লক্ষ্য রাখেন আর্লিং হাল্যান্ড। সেগুলো যে হাল্যান্ডের জন্য দারুণভাবে কাজে দিচ্ছে, সেটি না বলে দিলেও চলছে।

About

Popular Links