Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে বাংলাদেশের ৫ রানের আক্ষেপ

এই হারের ফলে বাংলাদেশের সেমিফাইনাল স্বপ্ন সুতোয় ঝুলে গেল

আপডেট : ০২ নভেম্বর ২০২২, ০৬:৫৬ পিএম

আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে ওঠার গুরুত্বপূর্ণ লড়াইয়ে ভারতের মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ। তবে এই ম্যাচে ভারতীয়দের পাশাপাশি বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছিল বৃষ্টি। তবুও বাংলাদেশ ম্যাচের শেষ পর্যন্ত লড়ে গিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে ডাকওয়ার্থ লুইস মেথডে ৫ রানে হেরেছে টাইগাররা।

বুধবার (২ নভেম্বর) অ্যাডিলেড ওভালে টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠান বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। চতুর্থ ওভারে ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মাকে সাজঘরেই পাঠান হাসান মাহমুদ। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে লোকেশ রাহুল আর সূর্যকুমার যাদব ৬৭ রান তুলে বিপদ সামাল দেন। ৩২ বলে ৫০ রান করে সাকিবের বলে ফিরে যান রাহুল। দলীয় ১১৭ রানে ৩০ রান করা সূর্যকুমার আউট হন।

ডেথ ওভারে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উইকেট হারালেও ভারত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮৪ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায়। এই বড় সংগ্রহের পেছনে বড় ভূমিকা

৮টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪৪ বলে অপরাজিত ৬৪ রান করা ভিরাট কোহলির। বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে হাসান মাহমুদ ৩টি এবং সাকিব ২টি করে উইকেট নেন।

ভারতের ছুঁড়ে দেওয়া ১৮৫ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা দুর্দান্ত করেছিল। ২১ বলে অর্ধশতক তুলে নেওয়া লিটন দাসের কল্যাণে বাংলাদেশ বিনা উইকেটে ৭ ওভারে ৬৬ রান তুলে ফেলে। তবে এরপরেই অ্যাডিলেডের আকাশ ভেঙে বৃষ্টি নামায় খেলায় বিঘ্ন ঘটে।

কিছুক্ষণ বন্ধ থাকার পর আবার খেলা শুরু ওভার কমিয়ে নতুন লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়। জয়ের জন্য টাইগারদের তখন ১৬ ওভারে করতে হবে ১৫১ রান। অর্থাৎ ৫৪ বলে আরও ৮৪ রান প্রয়োজন বাংলাদেশের।

বৃষ্টি বিরতির পর মাঠে নামার পর অষ্টম ওভারে দলীয় ৬৮ রানে ৭টি চার ও ৩টি ছক্কায় ২৭ বলে ৬০ রান করা লিটন রানআউট হয়ে গেলে ছন্দ কেটে যায় বাংলাদেশের। এক ওভার পরেই ২১ রান করা শান্তও ফিরে চাপে পড়ে টাইগারারা।


আরও পড়ুন- ক্রিকেটের বৃষ্টি আইন বা ডাকওয়ার্থ লুইস মেথডের আদ্যোপান্ত


জয়ের জন্য তখন সাকিব আর আফিফ হোসেনের দিকে তাকিয়ে ছিল বাংলাদেশ। তবে একাদশ ওভারে তিন বলের ব্যবধানে দুজনই সাজঘরে ফিরে যান। পরের ওভারে ইয়াসির আলি ও মোসাদ্দেক হোসেন  তাদের পথ অনুসরণ করলে হারের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

তবে বিপর্যয়ের মুখে দাঁড়িয়েও জয়ের সম্ভাবনা জাগিয়েছিল উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান সোহান ও তাসকিন আহমেদ। জয়ের জন্য শেষ দুই ওভারে ৩১ রান প্রয়োজন ছিল বাংলাদেশের। হার্দিক পান্ডিয়ার করা ১৫তম ওভারে তাসকিন এক চার এবং এক ছয় মেরে আশা জাগিয়ে রাখেন। শেষ ওভারে জেতার জন্য ২০ রান দরকার ছিল টাইগারদের।

অর্শদীপ সিংয়ের করা শেষ ওভারের দ্বিতীয় বলে ছক্কা মারেন নুরুল হাসান। পঞ্চম বলে সোহানের মারা বাউন্ডারিতে শেষ বলে বাংলাদেশের দরকার ছিল ৭ রান। কিন্তু সোহান এক রানের বেশি নিতে না পারায় ৫ রানে জয় পায় ভারত।

এই হারের ফলে বাংলাদেশের সেমিফাইনাল স্বপ্ন সুতোয় ঝুলে গেল। আগামী রবিবার একই ভেন্যুতে সুপার টুয়েলভের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের মোকাবিলা করবে টাইগাররা।

About

Popular Links