Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পুরো ল্যাটিন আমেরিকার ভার কাঁধে নিয়ে সেমিফাইনালে আর্জেন্টিনা

শেষ আটে নেদারল্যান্ডসকে টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালে পা রেখেছে আর্জেন্টিনা

আপডেট : ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৩৯ পিএম

টাইব্রেকারে ক্রোয়েশিয়ার কাছে ব্রাজিলের বিদায়ের পর কাতার বিশ্বকাপে একমাত্র ল্যাটিন আমেরিকান দল হিসেবে টিকে ছিল কেবল আর্জেন্টিনা। আপাতত আলবিসেলেস্তেদের হাতেই থাকছে ল্যাটিন আমেরিকার মশাল। শেষ আটে নেদারল্যান্ডসকে টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালে পা রেখেছে দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে আকাশী-সাদা শিবিরের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া।

শুক্রবার (৯ ডিসেম্বর) কাতারের লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে নেদারল্যান্ডসের বিরুদ্ধে নিজেদের চিরাচরিত ৪-৩-৩ থেকে বের হয়ে ৩-৫-২ ফর্মেশনে মাঠে নেমেছিল আর্জেন্টিনা। একজন ফরোয়ার্ড নিয়ে খেলার পরেও আক্রমণে ডাচদের চেয়ে আলবিসেলেস্তেরাই ছিল এগিয়ে। দুই দলের আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণের চেষ্টা চললেও পরিষ্কার গোলের সুযোগ সৃষ্টি করতে পারছিল না। 

ম্যাচের ৮ মিনিটেই আন্ড্রিস নোপার্টের ভুলে অষ্টম মিনিটে বিপদে পড়তে বসেছিল নেদারল্যান্ডস। বক্সে হুলিয়ান আলভারেস থাকা সত্ত্বেও তার পাশ দিয়ে ডান দিকে সতীর্থকে পাস দেন ডাচ গোলরক্ষক। বল নিয়ন্ত্রণে নিতে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড চেষ্টা করেও পারেননি, বেঁচে যায় নেদারল্যান্ডস। ১৪ মিনিটে বাঁ দিক থেকে আকুনার জোরালো ক্রসে ম্যাক অ্যালিস্টার মাথা ছোঁয়াতে পারলে এগিয়ে যেতে পারত আর্জেন্টিনা।

২২ মিনিটে ডান প্রান্ত দিয়ে আক্রমণে উঠে ভেতরে ঢোকার চেষ্টারত অবস্থায় বক্সের বাইরে থেকে মেসি শট নিলেও তা পোস্টের অনেক বাইরে দিয়ে চলে যায়। মিনিট দুয়েক পর নেদারল্যান্ডসও গোলের সুযোগ পেয়েছিল। যদিও ডাচ ফরোয়ার্ড স্টিভেন বারউইনের শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে বাইরে চলে যায়।

ম্যাচের ৩৩ মিনিটে প্রথমবারের মতো লক্ষ্যে বল রাখতে সমর্থ হয় আর্জেন্টিনা। ডি-বক্সের বাইরে থেকে রদ্রিগো ডি পলের শট তালুবন্দি করতে যদিও তেমন বেগ পেতে হয়নি ডাচ গোলরক্ষক আন্ড্রিস নোপার্টকে।

তবে আর্জেন্টিনা কাঙ্খিত লিড পেয়ে যায় মিনিট দুয়েক পরেই। মাঝমাঠে বল পেয়ে সঙ্গে থাকা একজনকে ছিটকে দিয়ে প্রতিপক্ষ ডি-বক্সে এগোতে থাকা মলিনার দিকে দারুণ এক থ্রু বল বাড়ান মেসি। ডি-বক্সের মুখে প্রথম ছোঁয়ায় বল ভেতরে টেনে দ্বিতীয় টোকায় এগিয়ে আসা ডাচ গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়িয়ে দেন মোলিনা। প্রথমার্ধে এই এক গোলে এগিয়ে থেকেই মধ্যবিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেও বল দখলে রেখে দুদল আক্রমণে ওঠার চেষ্টা করে। তবে ফিনিশিং থার্ডে গিয়ে কোনো দলই সুবিধা করতে না পারায় গোল আসছিল। ৬৩ মিনিটে লিওনেল মেসির ফ্রি-কিক অল্পের জন্য ক্রসবার উঁচিয়ে না গেলে দ্বিতীয় গোল পেয়ে যেতো আর্জেন্টিনা।

তবে ৯ মিনিট পর মেসির গোলেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে আর্জেন্টিনা। বাঁ দিক দিয়ে ডাচ ডি-বক্সে ঢোকার মুখে নেদারল্যান্ডস ডিফেন্ডার ডামফ্রিস আর্জেন্টিনার মার্কোস আকুনাকে অবৈধভাবে বাধা দিলে পেনাল্টি পায় আলবিসেলেস্তেরা। স্পটকিক থেকে বল জালে জড়াতে ভুল করেননি আর্জেন্টিনা অধিনায়ক। এই গোলের মাধ্যমে ফিফা বিশ্বকাপে মেসির গোলসংখ্যা হলো ১০টি। ফলে বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার সর্বোচ্চ গোলদাতা গাব্রিয়েল বাতিস্তুতার রেকর্ড ছুঁলেন ৩৫ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড।

দুই গোলের ব্যবধানে এগিয়ে যাওয়ার পর আর্জেন্টিনা সহজেই সেমিফাইনালে পা রাখবে বলে মনে হচ্ছিলো। তবে বাদ সাঁধেন ৭৮ মিনিটে বদলি হিসেবে মাঠে নামা ভঠ ভেহর্স্ট। মাঠে নামার মিনিট পাঁচেক পরেই বাঁ দিক থেকে স্টিভেন বেরহাসের ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে গোল করে ব্যবধান এই ডাচ ফরোয়ার্ড। নির্ধারিত ৯০ মিনিট শেষে অতিরিক্ত দশ মিনিট দেওয়া হয়। যোগ করা সময়ের শেষ মিনিটে বক্সের বাইরে বিপজ্জনক জায়গায় ভেহর্স্টকে ফাউল করে বসলেন হেরমান পেস্সেইয়া। টিউন কুপমেইনার্সের বুদ্ধিদীপ্ত ফ্রি-কিকে ভঠ ভেহর্স্ট দ্বিতীয় গোল করে নেদারল্যান্ডসকে সমতায় ফেরান, সেই সঙ্গগে ম্যাচটিকেও নিয়ে যানন অতিরিক্ত সময়ে।

অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধের শেষদিকে এগিয়ে যাওয়ার ভালো সুযোগ এসেছিল আর্জেন্টিনার সামনে। তবে মেসির ফ্রি-কিকে প্রাণপণ চেষ্টা করেও দূরের পোস্টে থাকা নিকোলাস ওটামেন্ডি। অতিরিক্ত সময়ের শেষদিকে নেদারল্যান্ডস রক্ষণে রীতিমতো তান্ডব চালায় আর্জেন্টিনার ফরোয়ার্ড লাইনস। কিন্তু কখনও লাউতারো মার্টিনেজের শট ডাচ অধিনায়ক ভার্জিল ভ্যান ডাইকের গায়ে ব্লকড হয়েছে তো আবার কখনও বদলি নামা অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়ার বাঁকানো কর্নার ফিরিয়ে দেন ডাচ গোলরক্ষক নোপার্ট। আবার এঞ্জো ফার্নান্দেজের শট নোপার্টকে পরাস্ত করলেও পোস্টে প্রতিহত হয়। ফলে দুদলের সর্বশেষ সাক্ষাতের মতো আরও একটি লড়াই টাইব্রেকারে ভালো।

টাইব্রেকারে নেদারল্যান্ডসের প্রথম দুই শটে ভার্জিল ভ্যান ডাইক এবং স্টিভেন বেরহাসের প্রচেষ্টা রুখে দেন আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক। অন্যদিকে, আলবিসেলেস্তেদের পক্ষে প্রথম দুই শটেই লক্ষ্যভেদ করেন লিওনেল মেসি এবং লিয়ান্দ্রো পারাদেস। নেদারল্যান্ডসের পরের তিন শটেই টিউন কুপমেইনার্স, ভঠ ভেহর্স্ট আর লুক ডি ইয়ং বল জালে জড়ান। আর্জেন্টিনার তৃতীয় শটে গঞ্জালো মন্তিয়েল লক্ষ্যভেদ করলেও পরের শটে এঞ্জো ফার্নান্দেজ পোস্টের বাইরে শট মারেন। তবে পঞ্চম শটে লাউতারো মার্টিনেজের শট জালে জড়িয়ে গেলে শেষ চারের টিকিট পায় আর্জেন্টিনা।

About

Popular Links