Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

অ্যাটলেটিকোকে হারিয়ে লা লিগার শীর্ষস্থান ধরে রাখলো বার্সা

রবার্ট লেভানডফস্কিকে ছাড়াই পাওয়া এ জয়ে রিয়াল মাদ্রিদের চেয়ে তিন পয়েন্ট এগিয়ে থেকে শীর্ষে রয়েছে কাতালানরা

আপডেট : ০৯ জানুয়ারি ২০২৩, ১২:০১ পিএম

আগেরদিন ভিয়ারিয়ালের কাছে রিয়াল মাদ্রিদের পরাজয়ে বার্সেলোনার সামনে সুযোগ ছিল পয়েন্ট ব্যবধান বাড়িয়ে লা লিগার শীর্ষস্থান ধরে রাখার। রবিবার (৮ জানুয়ারি) রিয়ালের নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে তাদেরই মাঠে ১-০ হারিয়ে সুযোগটা ভালোমতোই কাজে লাগিয়েছে জাভি হার্নান্দেজের শিষ্যরা।

নিষেধাজ্ঞার কারণে রবার্ট লেভানডফস্কি না থাকলেও অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানো স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরু থেকেই দাপুটে ছিল বার্সেলোনা। ম্যাচের প্রথম গোলের সুযোগও পেয়েছিল তারাই। তিন মিনিটে প্রতিপক্ষের ডি বক্সে বিপজ্জনক জায়গা থেকে শট নিয়েছিলেন বার্সার আনসু ফাতি। তবে অ্যাটলেটিকো ডিফেন্ডার সাভিচ স্প্যানিশ ফরোয়ার্ডের নেওয়া শট ব্লক করেন।

ছয় মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিল অ্যাটলেটিকোও। যদিও ২৫ গজ দূর থেকে পাবলো বারিওসের নেওয়া শট ঠেকাতে বেগ পেতে হয়নি বার্সেলোনা গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টার স্টেগানকে। মিনিট তিনেক পর বার্সেলোনা ডিফেন্ডার আন্দ্রেয়াস ক্রিস্টেনসেনের নেওয়া শট ঠেকিয়ে দেন অ্যাটলেটিকো গোলরক্ষক ইয়ান অব্লাক।

মিনিট খানেক পর অ্যাটলেটিকোর সীমানায় আবারও জোড়া আঘাত হানে বার্সেলোনা। অ্যাটলেটিকো ডি-বক্সে ফাঁকায় বল পেয়ে বার্সেলোনা উইঙ্গার ওসমান ডেম্বেলে শট নিতে গেলেও তা বিপদমুক্ত করে দেন মার্কোস লরেন্তে। পরমুহূর্তে আনসু ফাতির শট স্লাইডিংয়ের মাধ্যমে আটকে দেন অ্যাটলেটিকো সেন্টারব্যাক হোসে গিমেনেজ।

বার্সেলোনার মুহুর্মুহু আক্রমণে নিজেদের অর্ধেই ব্যতিব্যস্ত ছিল অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। প্রতিপক্ষের কয়েকজন খেলোয়াড়কে বোকা বানিয়ে অ্যাটলেটিকোর ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন পেদ্রি গঞ্জালেস। তিনি বল বাড়ালে তা পাবলো গাভির পা ঘুরে যায় ডেম্বেলের কাছে। বল পেয়ে আড়াআড়ি শটে দূরের পোস্ট দিয়ে জাল খুঁজে নিয়ে কাতালানদের লিড এনে দেন অরক্ষিত ফরাসি উইঙ্গার।

অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের ভুলে মিনিট দুয়েক পর লিড দ্বিগুণ করার সুযোগ পেয়েছিল বার্সেলোনা। হিমেনেসের দুর্বল ব্যাক পাস থেকে ডি বক্সে বল পেয়ে যান পেদ্রি। তবে অব্লাককে একা পেয়েও সময়মতো শট না নেওয়ায় ছুটে এসে তার শট ব্লক করেন আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডার নাহুয়েল মলিনা।

৩১ মিনিটে স্বাগতিকদের সমতায় ফেরানোর সুযোগ পেয়েছিলেন মার্কোস লরেন্তে। আঁতোয়ান গ্রিজম্যানের পাসে স্প্যানিশ মিডফিল্ডারের শট বার্সা সেন্টারব্যাক রোনাল্ড আরাউহোর হাতে লেগে পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়। অ্যাটলেটিকো খেলোয়াড়রা পেনাল্টির জোরালো আবেদন করলেও ভিএআরে দেখে সেই আবেদন নাকচ করে দেন রেফারি।

দশ মিনিট পর আবারও ম্যাচে ফেরার সুযোগ পেয়েছিল অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। এবার তাদের সামনে বাধার দেয়াল হয়ে দাঁড়ান মার্ক আন্দ্রে টার স্টেগান। ইয়ানিক কারাসকোর চমৎকার পাস থেকে ডি বক্সের মাথায় বল পেয়ে জোরালো শট নিয়েছিলেন গ্রিজম্যান। তবে ফরাসি উইঙ্গারের নেওয়া বুলেট গতির শট কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন বার্সা গোলরক্ষক। প্রথমার্ধের শেষ দিকে হোসে মারিয়া হিমেনেজের হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যে না থাকায় এক গোলের ব্যবধানে এগিয়ে থেকেই মধ্যবিরতিতে যায় কাতালান ক্লাবটি।

দ্বিতীয়ার্ধে চার মিনিটের ব্যবধানে বার্সেলোনার ব্যবধান দ্বিগুণ করার দুটি সুযোগ পেয়েছিলেন ডেম্বেলে। যদিও সেগুলোর কোনোটিই গোলে পরিণত হয়নি। ৫৮ মিনিটে টের স্টেগেনের লম্বা করে বাড়ানো বল তিনি যখন পান, সামনে ছিলেন কেবল একজন ডিফেন্ডার। তবে তাকে এড়িয়ে শট নিতে নিতে আরও দুই জন এসে ফরাসি উইঙ্গারের কাছ থেকে বল কেড়ে নেন।

৬২ মিনিটে প্রতি আক্রমণে লম্বা করে বাড়ানো বলে গোল প্রায় পেয়েই যাচ্ছিলেন দেম্বেলে। তবে সাভিচেন চমৎকার স্লাইড ট্যাকেলে কর্নারের বিনিময়ে তার সেই প্রচেষ্টা নস্যাত হয়ে যায়। ১১ মিনিট পর ফেরান তোরেস বল জালে জড়ালেও অফসাইডের কারণে তা বাতিল হয়ে যায়।

যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে হাতাহাতিতে জড়িয়ে লাল কার্ড দেখেন বার্সেলোনার ফেরান তোরেস এবং অ্যাটলেটিকোর স্তেফান সাভিচ। তবে দশজনের দলে পরিণত হলেও ম্যাচের বাকি সময়ে কোনো দলই গোল করতে পারেনি। শেষদিকে অবশ্য গ্রিজম্যান-কোরেয়ার মিলিত প্রচেষ্টা গোললাইন থেকে ব্যর্থ করে দেন মোরাতাকে পাহারায় রাখা আরুহো। ফলে ম্যাচশেষে পূর্ণ ৩ পয়েন্ট নিয়েই মাঠ ছাড়ে বার্সেলোনা।

১৬ ম্যাচ থেকে ৪১ পয়েন্ট সংগ্রহে নিয়ে লা লা লিগার শীর্ষস্থান ধরে রাখলো বার্সেলোনা। সমান সংখ্যক ম্যাচে ৩৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে রিয়াল মাদ্রিদ। ২৭ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ।

About

Popular Links