Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটে নতুন ভূমিকায় লারা

খেলোয়াড়দের কৌশলগত পরামর্শ দেওয়া এবং গেম সেন্স উন্নতির জন্য প্রধান কোচদের সহপযোগিতা করাই হবে লারার মূল দায়িত্ব

আপডেট : ২৭ জানুয়ারি ২০২৩, ০৫:৪৯ পিএম

ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক অধিনায়ক কিংবদন্তি ব্যাটার ব্রায়ান লারা ২০২৩ সালে নতুন ভূমিকায় ক্রিকেটে ফিরেছেন। ক্যারিবীয় এ কিংবদন্তিকে জাতীয় দলের পাশাপাশি একাডেমির পারফরম্যান্স মেন্টর হিসেবে নিযুক্ত করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেট বোর্ড।

ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজের (সিডব্লিউআই) পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, পারফরম্যান্স মেন্টর হিসেবে খেলোয়াড়দের কৌশলগত পরামর্শ দেওয়া এবং গেম সেন্স উন্নতির জন্য প্রধান কোচদের সহযোগিতা করাই হবে লারার দায়িত্ব। এছাড়া, বিশ্বকাপের পরিকল্পনা সাজাতে সিডব্লুআই পরিচালক জিমি অ্যাডামসকেও সহায়তা করবেন তিনি।

খেলোয়াড়ি জীবনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে টেস্টে ১৩১ ম্যাচ খেলে ৫২.৮৮ গড়ে ১১,৯৮৩ রান করেছেন ব্রায়ান লারা। তিনি ২০০৪ সালে অ্যান্টিগা টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অপরাজিত ৪০০ রানের ইনিংস খেলেন, যা আজও এ ফরম্যাটে এক ইনিংসে যেকোনো ব্যাটসম্যানের করা সর্বোচ্চ রান। সেই সঙ্গে ক্যারিবীয়দের হয়ে ওয়ানডেতে ১০, ৪০৫ রান করেছেন এই কিংবদন্তি বাঁহাতি ব্যাটার।

নতুন ভূমিকা নিয়ে ব্রায়ান লারা বলেন, অস্ট্রেলিয়ায় খেলোয়াড় ও কোচদের সঙ্গে সময় কাটিয়ে এবং বোর্ডের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে মনে হয়েছে মানসিকভাবে ও কৌশলগত সাফল্যের জন্য তাদের সাহায্য করতে পারব। আমি সামনে জিম্বাবুয়ে সিরিজে দলের সঙ্গে যোগ দিতে এবং বছরের শেষের দিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অন্যান্য স্কোয়াডের সঙ্গে কাজ করার সুযোগের অপেক্ষায় আছি।

সিডব্লুআই পরিচালক জিমি অ্যাডামস জানান, লারা ওয়েস্ট ইন্ডিজের খেলোয়াড় এবং কোচদের মূল্যবান দিকনির্দেশনা এবং পরামর্শ দেবে। আমার বিশ্বাস, তিনি আমাদের উচ্চমানের পারফর্ম করার মানসিকতা ও কৌশলগত সংস্কৃতিকে উন্নত করতে সহায়তা করে সব সংস্করণে আমাদের সাফল্য এনে দেবেন। লারাকে পেয়ে খেলোয়াড়েরা তার সঙ্গে কাজ করতে উন্মুখ।

গত বছর অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিদায়ের পর দলের ব্যর্থতার কারণ অনুসন্ধানে তিন সদস্য বিশিষ্ট পর্যালোচনা কমিটি গঠন করা হয়। ৫২ বছর বয়সী লারা সেখানে কাজ করেছেন। পর্যালোচনা কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়, ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-টোয়েন্টি লিগের চেয়ে খেলোয়াড়রা যদি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বেশি গুরুত্ব না দেন, তাহলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের অস্তিত্ব হুমকির মুখে পড়বে।

About

Popular Links