Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

লা লিগায় বার্সেলোনার জয়ের ধারা অব্যাহত

ইয়েলো সাবমেরিন খ্যাত দলটিকে ১-০ গোলে হারিয়ে লা লিগার শীর্ষস্থান অক্ষুণ্ণ রাখল কাতালানরা

আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১২:২৯ পিএম

গত অক্টোবরে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের কাছে ৩-১ গোলে পরাজিত হওয়ার পর লা লিগায় আর হারের মুখ দেখেনি বার্সেলোনা। আর নতুন বছরে তো একের পর এক ম্যাচ জিতে চলছে স্প্যানিশ পরাশক্তিরা। ব্যতিক্রম হলো না ভিয়ারিয়ালের ক্ষেত্রেও, ইয়েলো সাবমেরিন খ্যাত দলটিকে ১-০ গোলে হারিয়ে লা লিগার শীর্ষস্থান অক্ষুণ্ণ রাখল কাতালানরা।

রবিবার (১২ ফেব্রুয়ারি) লা সিরামিকা স্টেডিয়ামে বার্সেলোনার জয়টা অবশ্য সহজে আসেনি। প্রায় পুরোটা সময়জুড়েই দুই দল পরস্পরের সঙ্গে সমানে পাল্লা দিয়ে গেছে। আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণের মাধ্যমে বার্সেলোনা আর ভিয়ারিয়াল একে অপরের সামনে কঠিন দেয়াল গড়ে তুলেছিল।

ম্যাচের তৃতীয় মিনিটেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিল বার্সেলোনা। পেদ্রি গঞ্জালেসের থ্রু পাস ধরে প্রতিপক্ষ গোলরক্ষককে একা পেয়েছিলেন রবার্ট লেভানডফস্কি। কিন্তু সুবিধাজনক অবস্থায় থেকেও গোলরক্ষক পেপে রেইনার বরাবর শট নিয়ে সুযোগ হাতছাড়া করেন পোলিশ স্ট্রাইকার।

তবে পেদ্রি-লেভানডফস্কির যুগলবন্দীতে ১৮ মিনিটে ঠিকই লিড পেয়ে যায় বার্সেলোনা। জুলেস কুন্দে প্রতিপক্ষের থেকে বল কেড়ে নেওয়ার পর দুই সতীর্থের পা ঘুরে পেয়ে যান লেভানডফস্কি। পোলিশ স্ট্রাইকারের ফ্লিকে বল পেয়ে জালে জড়াতে ভুল করেননি পেদ্রি। এটি ২০ বছর বয়সী স্প্যানিশ মিডফিল্ডারের ষষ্ট গোল।

পরের মিনিটেই সমতা ফেরাতে পারতো ভিয়ারিয়াল। পাল্টা আক্রমণে বার্সেলোনা ডি-বক্সে বল পেয়ে যান হোসে লুইস মোরালেস। কিন্তু তার নেওয়া শট লক্ষভ্রষ্ট হওয়ায় গোল হজম করতে হয়নি কাতালানদের।

২৬ মিনিটে আবারও গোলের দেখা পেতে পারতেন রবার্ট লেভানডফস্কি। কিন্তু ফ্রাঙঙ্কি ডি ইয়ংয়ের চিপে ডি-বক্সে বল পেয়ে বুলেট গতির শট নিয়েছিলেন ৩৪ বছর বয়সী স্ট্রাইকার। তার নেওয়া শট রুখে দেন ভিয়ারিয়ালের পোড় খাওয়া গোলরক্ষক রেইনা।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে আরও একবার মোরালেসের হাত ধরে সমতায় ফেরানোর কাছাকাছি ছিল ভিয়ারিয়াল। মাঝরেখার কাছে বল পেয়ে দ্রুতগতিতে এগিয়ে গিয়ে বার্সেলোনার ডি-বক্সে ঢুকে যান তিনি। কিন্তু গোলমুখে না রেখে এ ফরোয়ার্ড শট মারেন পাশের জালে।

দ্বিতীয়ার্ধেও গোলের সুযোগ নষ্ট করা অব্যাহত রাখেন লেভানডফস্কি। ৫৫ মিনিটে পেপে রেইনাকে একা পেলেও পোলিশ ফরোয়ার্ডের শট ক্রসবারের অনেক ওপর দিয়ে চলে যায়। ৬৩ মিনিটে রাফিনহার শট দূরের পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়। মাঝে ৬০ মিনিটে ভিয়ারিয়ালের ইয়েরেমি পিনোও গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন। তবে রোনাল্ড আরুহো কর্নারের বিনিময়ে কাতালানদের রক্ষা করেন।

৯০ মিনিটে অবশ্য ঠিকই বার্সেলোনার জালে বল জড়িয়ে দিয়েছিল ভিয়ারিয়াল। কিন্তু অফসাইডের ফাঁদে ভিয়ারিয়ালের স্যামুয়েল চুকুউইজির গোল বাতিল হয়ে যাওয়ায় বেঁচে যায় বার্সা। ম্যাচের যোগ করা সময়ে আবারও আরুহোর কল্যাণে কাতালানদের গোল হজম করতে হয়নি। প্রায় পুরো ম্যাচে দেওয়াল হয়ে ছিলেন এ উরুগুইয়ান সেন্টারব্যাক। বার্সার গোলপ্রহরী মার্ক আন্দ্রে টার স্টেগানও হয়ে উঠেছিলেন চীনের প্রাচীর।

ম্যাচের শেষদিকে অবশ্য পেনাল্টির জন্য জোরালো আবেদন করেছিল ভিয়ারিয়াল। নিজেদের ডি-বক্সে থাকা অবস্থায় হাতে বল লাগে বার্সেলোনা ডিফেন্ডার কুন্দের। ভিয়ারিয়ালের খেলোয়াড়েরা সমস্বরে পেনাল্টির দাবিতে রেফারিকে ঘিরে ধরে। তবে ভিএআর জানিয়ে দেয় পেনাল্টি দেওয়ার মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি। এরপর রেফারি শেষ বাঁশি বাজিয়ে দিলে জয়ের স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ে বার্সেলোনা।

লা লিগায় এ নিয়ে টানা ছয় ম্যাচ এক গোলের ব্যবধানে জিতল বার্সেলোনা। সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে টানা ১৬ ম্যাচে অপরাজিত রয়েছে জাভি হার্নান্দেজের শিষ্যরা।

ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে জয়ের মাধ্যমে লা লিগার পয়েন্ট তালিকায় বার্সেলোনা আর রিয়াল মাদ্রিদের ব্যবধান গিয়ে দাঁড়ালো ১১ তে। ২১ ম্যাচ খেলে ৫৬ পয়েন্ট নিয়ে লা লিগার পয়েন্ট তালিকায় সবার ওপরে আছে বার্সা। অন্যদিকে, এক ম্যাচ কম খেলে ৪৫ পয়েন্ট সংগ্রহে নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে সদ্য ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ জেতা রিয়াল মাদ্রিদ।

About

Popular Links