Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

স্নাতক পাশ করলেন সাকিব আল হাসান

আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির (এআইইউবি) ২০০৯-১০ সেশন থেকে ব্যাচেলর অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (বিবিএ) ডিগ্রি সম্পন্ন করেছেন বাঁহাতি এই অলরাউন্ডার

আপডেট : ১৯ মার্চ ২০২৩, ০২:৫২ পিএম

ক্রিকেটের মাঠে তার অজ্রস অর্জন। একের পর এক রেকর্ড বুকে নিজের নাম লিখিয়ে যাচ্ছেন তিনি। খেলার মাঠের বাইরে এবার নিজের ব্যক্তিগত অজর্নের ঝুলি আরেকটু ভারী করে নিলেন বাংলাদেশের ক্রিকেটের বরপুত্র সাকিব আল হাসান।

তার নামের পাশে এবার গ্র্যাজুয়েট শব্দ যুক্ত হলো। আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির (এআইইউবি) ২০০৯-১০ সেশন থেকে ব্যাচেলর অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (বিবিএ) ডিগ্রি সম্পন্ন করেছেন বাঁহাতি এই অলরাউন্ডার। 

রবিবার (১৯ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়টির ২১তম সমাবর্তন থেকে গ্র্যাজুয়েশন সনদ পান তিনি।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে রেকর্ড গড়ে জেতে বাংলাদেশ। এই জয়ে ব্যাট ও বলে দারুণ পারফরম্যান্স ছিল সাকিবের। রবিবার বাংলাদেশ দলের কোনো কার্যক্রম না থাকায় সাকিব যান সমাবর্তনে। বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে এআইইউবির ২১তম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর মো. আবদুল হামিদের সদয় সম্মতিক্রমে সভাপতিত্ব করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি গ্র্যাজুয়েটদের মধ্যে সনদ বিতরণ করেন।

২০০৯-১০ সেশনে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাচেলর অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনে ভর্তি হয়েছিলেন সাকিব। কিন্তু ক্রিকেট নিয়ে ব্যস্ত থাকার কারণে লেখাপড়াটা ঠিক মতো করতে পারেননি। অবশেষে ১৪ বছর পর বিবিএ সম্পন্ন করলেন। 

সাকিবের সমাবর্তনে অংশ নেওয়ার ছবি, ভিডিও এরইমধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভেসে বেড়াচ্ছে। যেখানে সমাবর্তনের বিশেষ পোশাক পরা অবস্থায় দেখা গেছে তাকে। 

গ্রাজুয়েশনের আনুষ্ঠানিক ডিগ্রি পেয়ে আনন্দিত সাকিব তার বক্তব্যে বলেন, “অনেক বছর হয়েছে আমার ক্রিকেট খেলার, তখনও আম্মা যখন ফোন করতো, জিজ্ঞেস করতো যে পড়াশোনার কী অবস্থা। আজকে আমি খুবই খুশি, খুবই আনন্দিত ও গর্বিত যে, অবশেষে আমার স্বপ্ন পূরণ হলো। খেলার মাঠে হয়তো বেশি কিছু অর্জন আছে আমার, তবে এটা সবসময় আমার স্বপ্ন ছিল।”

সাকিব আরও বলেন, “খুব বেশি কিছু বলার নেই। সবাইকে দেখে খুব ভালো লাগছে। আশা করি সবার জীবন সামনে এগিয়ে যাবে। শুধু একটা কথাই বলবো, যখন আপনারা স্বপ্ন দেখবেন, স্বপ্নটা বড় দেখবেন। লক্ষ্য নির্ধারণ করে সততার সাথে কাজ করবেন, আমি নিশ্চিত আপনাদের সবার স্বপ্নপূরণ হবে। আমরা সবাই বাংলাদেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবো।”

About

Popular Links