Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

টি-টোয়েন্টিতে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষেও ধবলধোলাইয়ে চোখ টাইগারদের

সাম্প্রতিক সময়ে টাইগারদের পারফরম্যান্সে স্পষ্ট যে বাংলাদেশ ক্রিকেটে একটি নতুন যুগের সূচনা হয়েছে

আপডেট : ২৭ মার্চ ২০২৩, ১২:০৬ পিএম

ঘরের মাঠে কিছুদিন আগেই বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডকে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে ধবলধোলাই করেছে বাংলাদেশ। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজেও সেই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে চায় টাইগাররা। তাই আরও একবার কৌশলগত আক্রমণাত্মক ক্রিকেটের পরিকল্পনা নিয়েই টি-টোয়েন্টি সিরিজে আইরিশদের মু্খোমুখি হবে স্বাগতিকরা।

সোমবার (২৭ মার্চ) চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। দুপুর ২টায় শুরু হওয়া ম্যাচটি গাজী টিভি এবং টি স্পোর্টস চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচার করবে।

টি-টোয়েন্টি সিরিজে ইংল্যান্ডকে ধবলধোলাইয়ের আগে ওয়ানডে সিরিজে তাদের কাছে ১-২ ব্যবধানে হেরেছিল বাংলাদেশ। ২০১৬ সালের পর সেটিই ছিল ঘরের মাঠে টাইগারদের ওয়ানডে সিরিজ হার। তবে থ্রি লায়ন্সদের কাছে ওয়ানডে সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে হারের পর সীমিত ওভারের সব সংস্করণ মিলিয়ে টানা ৬ ম্যাচে জয়লাভ করেছে বাংলাদেশ।

এর মধ্যে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে জিতে ২০১৪ সালের পর হোয়াইটওয়াশ এড়ায় টাইগাররা। এরপর তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ইংলিশদের হোয়াইটওয়াশ করে বাংলাদেশ। সাফল্যের ধারা অব্যাহত রেথে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ২-০ ব্যবধানে জিতে নেয় স্বাগতিকরা। সিরিজ জয়ের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো প্রতি ম্যাচেই নিত্য নতুন রেকর্ডের জন্ম দিয়েছে বাংলাদেশের ত্রিকেটাররা।

সাম্প্রতিক সময়ে টাইগারদের পারফরম্যান্সে এতটুক স্পষ্ট যে বাংলাদেশ ক্রিকেটে একটি নতুন যুগের সূচনা হয়েছে। তবে কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের দাবি, সবকিছুই সম্ভব হয়েছে কৌশলগত আক্রমণাত্মক ক্রিকেটের বদৌলতে, যা ক্রিকেটারদের সাফল্যের জন্য ক্ষুধার্ত করে তুলে তাদের পারফরম্যান্সে বড় ভূমিকা রেখেছে।

চন্ডিকা হাথুরুসিংহে বলেন, “আমার কাছে এটাকে নতুন যুগের শুরু বলে মনে হয় না। আমরা মূলত জয়ের লক্ষ্যে এভাবেই খেলতে চেয়েছি। আমরা আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলি না। আক্রমণাত্মক বলতে এমন নয় যে আমরা খেলতে নামবো আর যতটা সম্ভব জোরে মারব।”

তিনি আরও বলেন, “আক্রমণাত্মক বলতে সার্বিকভাবে খেলার বিষয়টিকে বোঝানো হয়েছে। আমাদের ফিল্ড প্লেসিং, আমাদের শারীরিক ভাষা, আমাদের ফিল্ডিং, ব্যাটিং নির্বাচন আক্রমণাত্মক হওয়া উচিত। কৌশলগতভাবে আমরা আক্রমণাত্মক হচ্ছি। আমরা নিজেদের উজাড় করে আমাদের সেরাটা দিতে চাই। আমার ধারণা, আক্রমণাত্মক এবং স্বাধীনতার সঙ্গে খেললে এ দলটি সবসময়ই ভাল করবে।”

খেলোয়াড়দের মানসিক নিরাপত্তা তাদের সাফল্যের জন্য ক্ষুধার্ত করে তোলে উল্লেখ করে হাথুরুসিংহে বলেন, “একটি শব্দ যা বিষয়টিকে নিশ্চিত করে তা হচ্ছে খেলোয়াড়দের মানসিক নিরাপত্তা। এটি অনেক বড় একটি শব্দ। এর মধ্যে বিভিন্ন বিষয় আছে; যেমন খেলোয়াড়দের জন্য যদি একটি পরিবেশ তৈরি করা যায় যেখানে তারা ফলাফল আর পরবর্তী প্রতিক্রিয়া নিয়ে চিন্তা না করে খেলবে।”

তিনি আরও বলেন, “শুধু কোচ বা নির্বাচক নয় এমনকি তাদের সতীর্থরাও এসবের ভেতর দিয়ে যাবে না। তারা যদি নতুন কিছু করার স্বাধীনতা পায় এবং যদি তারা ব্যর্থও হয় তাতেও সমস্যা নেই। তারা দিনশেষে একই খেলোয়াড় থাকবে এবং তাদের ওপর আমাদের ভরসা আছে।”

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে অতীত ও সাম্প্রতিক সাফল্য বিবেচনা করে টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ তাদের হোয়াইটওয়াশ করবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণে এখন পর্যন্ত দুই দল পাঁচবার মু্খোমুখি হয়েছে। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে দুই দলের সর্বশেষ সাক্ষাৎ হয়েছিল ২০১৬ সালে।

২০০৯ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথমবারের সাক্ষাতে জয়ের স্বাদ পেয়েছিল আয়ারল্যান্ড। পরবর্তীতে ২০১২ সালে আয়ারল্যান্ডের মাটিতে তিন ম্যাচের সিরিজ ৩-০ ব্যবধানে জয়লাভ করেছিল বাংলাদেশ। ২০১৬ সালে ধর্মশালায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মঞ্চে বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ডের ম্যাচটি বৃষ্টিতে ভেস্তে যায়।

টি-টোয়েন্টি সিরিজে নিজেদের লক্ষ্যের কথা জানিয়ে হাথুরুসিংহে বলেন, “আমরা একই ফলাফল চাই। এ বিষয় নিয়েই আমরা আলোচনা করি। আমরা একই প্রক্রিয়ার মধ্যে যেতে চচ্ছি যা আমাদের রয়েছে। আমরা যদি আমাদের প্রক্রিয়াটি ধরে রাখতে পারি, তাহলে আমরা খুব ভাল দল হিসেবে খেলতে পারব এবং এটাই আমরা খেলোয়াড়দের কাছ থেকে আশা করি। আমরা প্রতিদিন সেই প্রক্রিয়াগুলোতে উন্নতি করার চেষ্টা করছি।“

About

Popular Links