Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

জয় দিয়েই ন্যু ক্যাম্পকে বার্সার বিদায়

মৌসুম শেষে ক্লাব ছাড়ার আগে এটিই ছিল ঘরের মাঠে নিজেদের দর্শকের সামনে আলবা ও বুসকেটসের শেষ ম্যাচ

আপডেট : ২৯ মে ২০২৩, ১২:১০ পিএম

২০২২-২৩ মৌসুমের লা লিগার শিরোপা অনেক আগেই বগলদাবা করে ফেলেছিল বার্সেলোনা। তবুও ঘরের মাঠে রিয়াল মায়োর্কার বিপক্ষে রবিবারের (২৮ মে) ম্যাচটি কাতালান ক্লাবটির জন্য ছিল বিশেষ কিছুই। এ ম্যাচে যে বিদায়ের ত্রি মোহনা এসে মিলেছিল একই বিন্দুতে।

চলমান মৌসুম শেষেই বার্সেলোনা ছাড়ছেন দীর্ঘদিনের দুই পুরোনো যোদ্ধা সার্জিও বুসকেটস এবং জর্ডি আলবা। অন্যদিকে, সংস্কারকাজের জন্য আগামী মৌসুমে ন্যু ক্যাম্পে কোনো খেলা গড়াবে না। সব মিলিয়ে রবিবার ন্যু ক্যাম্পে যেন বেজে উঠেছিল বিদায়ের রাগিনী।

দুই কিংবদন্তির বিদায় আর ঘরের মাঠের সাময়িক বিরতির মুহূর্তটা অবশ্য জয় দিয়েই রাঙিয়েছে বার্সেলোনা। আনসু ফাতির জোড়া গোল আর পাবলো গাভির গোলে রিয়াল মায়োর্কাকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে জাভি হার্নান্দেজের শিষ্যরা। চলমান মৌসুমে এটিই ঘরের মাঠে কাতালান ক্লাবটির শেষ ম্যাচ।

লা লিগার শিরোপা নিশ্চিতের পর টানা দুই ম‍্যাচে হেরে গিয়েছিল বার্সেলোনা। তবে রিয়াল মায়োর্কার বিপক্ষে শুরু থেকেই ভিন্ন কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিল তারা। ম্যাচের বয়স মিনিট পেরোনোর আগেই এগিয়ে যায় কাতালানরা। রবার্ট লেভানডফস্কির ডিফেন্স চেরা পাস থেকে গাভির পা ঘুরে বল আসে ফাতির পায়ে। প্রতিপক্ষের জালে বল জড়াতে তরুণ স্প্যানিশ ফরোয়ার্ডের কোনো ভুল হয়নি।

স্বাগতিকদের একের পর এক আক্রমণের তোপে নিজেদের অর্ধ ছেড়েই বের হতে পারছিল না রিয়াল মায়োর্কা। এর মধ্যে ১৩ মিনিটে দশজনের দলে পরিণত হয় তারা। বার্সার ফুলব্যাক আলেহান্দ্রো বাল্দেকে বিপজ্জনক এক ফাউল করে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়ান আমাথ এনদিয়াইয়ে। রেফারি প্রথমে তাকে হলুদ কার্ড দেখালেও ভিডিও অ্যাসিস্টেন্ট রেফারির (ভিএআর) সহযোগিতায় লাল কার্ড দেখান।

২৪ মিনিটে ফাতির দ্বিতীয় গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে বার্সেলোনা। ফ্রাঙ্কি ডি ইয়ংয়ের পাস থেকে বল পেয়ে লেভানডফস্কি প্রথম টোকায় খুঁজে নেন ফাতিকে। চোট থেকে ফিরে দীর্ঘদিনের নিজের ছায়া হয়ে থাকা এ উইঙ্গার নিঁখুত ফিনিশিংয়ে ফের বল জালে জড়িয়ে জোড়া গোল করেন।

প্রথমার্ধের শেষদিকে এবং মধ্যবিরতির পর দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই ব্যবধান বাড়াতে ঝাঁপিয়ে পড়ে বার্সার খেলোয়াড়রা। কিন্তু লেভানডফস্কি, উসমান ডেম্বেলে, হুলেস কুন্দের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়। অবশেষে ৭০ মিনিটে ডেম্বেলের কাছ থেকে ডি-বক্সের মাথায় বল পেয়ে বাঁ পায়ের জোরাল শটে গোল করেন গাভি। সংস্কারকাজের আগে এ তরুণ স্প্যানিশ মিডফিল্ডারের পা থেকেই শেষ গোলের সাক্ষী হয় ন্যু ক্যাম্প।

৮১ মিনিটে সতীর্থ, প্রতিপক্ষ আর প্রায় ৯০ হাজার দর্শকের তুমুল করতালির মধ‍্য দিয়ে মাঠ ছাড়েন আলবা। ন্যু ক্যাম্পে বার্সেলোনার হয়ে নিজের শেষ ম‍্যাচ খেলা স্প‍্যানিশ এ লেফটব্যাককে দাঁড়িয়ে অভ্যর্থনা জানান সমর্থকরা। মিনিট চারেক পর একই দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি দেখা যায় অধিনায়ক বুসকেটসের বেলায়ও।

ঘরের মাঠে নিজেদের দর্শকের সামনে দুই বার্সেলোনা কিংবদন্তির বিদায়ের অভিব্যক্তি অবশ্য দুই রকম ছিল। ন্যু ক্যাম্পে শেষবারের মতো সমর্থকদের সামনে এসে বাঁধ মানছিল না আলবার অশ্রুসজল চোখ। অন্যদিকে, বুসকেটসের মুখ থেকে যেন হাসিই সরছিল না।

ম‍্যাচের শেষ বাঁশি বাজতেই মাঠে নেমে আসেন বার্সেলোনার খেলোয়াড়রা। ক্রাচে ভর করে নেমে আসেন প্রথমার্ধে খুঁড়িয়ে মাঠ ছাড়া বাল্দেও। সংস্কারকাজের আগে শেষবারের মদো দেখানো হয় কাতালান ক্লাবটির স্মরণীয় কিছু পারফরম‍্যান্স ও ক্লাব কিংবদন্তির নানা কারিকুরি। শেষে এ মৌসুমে জেতা দুটি ট্রফি একে একে নিয়ে আসেন আলবা ও বুসকেটস।

আগামী ১ জুন থেকে ন্যু ক্যাম্পের সংস্কারকাজ শুরু হবে। বর্তমানে ন্যু ক্যাম্পের আসন সংখ্যা ৯৯,৩০০। “এস্পাই বার্সা” নামে একটি পরিকল্পনার মাধ্যমে সেটি বাড়িয়ে এক লাখ পাঁচ হাজারে উন্নীত করার পরিকল্পনা রয়েছে ক্লাবটির। ধারণা করা হচ্ছে, ২০২৬ সালের মধ্যে স্টেডিয়ামের সংস্কার কাজ শেষ হবে। ২০২৩-২৪ মৌসুমে কাতালান ক্লাবটি লুইস কোম্পানিস অলিম্পিক স্টেডিয়ামকে ঘরের মাঠ হিসেবে ব্যবহার করবে। ২০২৪-২৫ মৌসুমে খেলা ফের ন্যু ক্যাম্পে ফিরলেও সংস্কারকাজ চলবে।

About

Popular Links